• ৭ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, সকাল ৬:২৭
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ, দম্পতির বিরুদ্ধে যশোর দুদকে মামলা

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত নভেম্বর ১০, ২০২১, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ণ
অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ, দম্পতির বিরুদ্ধে যশোর দুদকে মামলা
যশোর ব্যুরো ।।
ড়াইলের এক দম্পতির বিরুদ্ধে ৬ কোটি সাড়ে ২৬ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সমন্বিত যশোর জেলা কার্যালয়ে আলাদা দুটি মামলা হয়েছে। সোমবার (৮ নভেম্বর) দুদকের সহকারী পরিচালক মোহা. মোশাররফ হোসেন মামলা দুটি করেছেন।
আসামিরা হলেন, নড়াইল সদর উপজেলার পাইকড়া গ্রামের মৃত সৈয়দ আকবর আলীর ছেলে সৈয়দ আবিদুল ইসলাম (৫০) ও তার স্ত্রী ইসরাত জাহান সহেলী (৫০)। বর্তমানে এই দম্পতি রাজধানী ঢাকার গুলশানের বাসিন্দা।
দুদক সূত্র জানায়, অভিযুক্ত দম্পতির বিরুদ্ধে নানা অনৈতিক পন্থায় বিপুল অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ পাওয়া যায়। এর প্রেক্ষিতে তাদের সম্পদের হিসেবে দিতে পৃথক নোটিস জারি করা হয়। এরপর ২০১৯ সালের ২৬ ডিসেম্বর সম্পদ বিবরণীর ফরম পূরণ করে তা দুদকে দাখিল করেন সৈয়দ আবিদুল ইসলাম ও ইসরাত জাহান সহেলী দম্পতি।
সৈয়দ আবিদুল ইসলাম তার দেয়া সম্পদ বিবরণীতে উল্লেখ করেছেন, তিনি ১ কোটি ৩১ লাখ ৩৬ হাজার ৫শ’ টাকার স্থাবর ও ৬৬ লাখ ২৭ হাজার ২৭১ টাকার অস্থাবর সম্পদের মালিক। কিন্তু দুদক যাচাইকালে তার নামে ১ কোটি ৩১ লাখ ৩৬ হাজার ৫শ’ টাকার স্থাবর এবং ৪ কোটি ৮২ লাখ ৩০ হাজার ১৩৬ টাকার সম্পদ থাকার তথ্য পায়। অর্থাৎ তিনি দুদুকে ৪ কোটি ১৬ লাখ ২ হাজার ৩৯২ টাকার অস্থাবর সম্পদ থাকার তথ্য গোপন করেছেন। তার বৈধ আয় পাওয়া যায় ৬৮ লাখ ১০ হাজার ৪১ টাকা। এই বৈধ আয় বাদ দিলে সৈয়দ আবিদুল ইসলাম ৫ কোটি ৪৫ লাখ ৫৬ হাজার ৬২২ টাকা জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করেছেন।
অপরদিকে ইসরাত জাহান সহেলী তার দেয়া সম্পদ বিবরণীতে উল্লেখ করেছেন, তিনি ৬১ লাখ ১৪ হাজার টাকার স্থাবর ও ৯ লাখ ৪৩ হাজার ৪শ’ টাকার মালিক। কিন্তু দুদক যাচাইকালে তার নামে ৭০ লাখ ৮২ হাজার ৮৭১ টাকার স্থাবর ও ১৪ লাখ ৬১ হাজার ৪শ’ টাকার অস্থাবর সম্পদ থাকার তথ্য পায়। অর্থাৎ তিনি দুদকে ১৪ লাখ ৮৬ হাজার ৮৭১ টাকার অস্থাবর সম্পদ থাকার তথ্য গোপন করেছেন। তার বৈধ আয় পাওয়া যায় ৪ লাখ ৪৮ হাজার টাকা। এই টাকা বাদ দিলে ইসরাত জাহান সহেলী ৮০ লাখ ৯৬ হাজার ২৭১ টাকা জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করেছেন।
দুদকের উপ-পরিচালক মো. নাজমুচ্ছায়াদাত মঙ্গলবার (৯ নভেম্বর) সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
 বার্তাকণ্ঠ/এন

Sharing is caring!