• ২৬শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, সকাল ১১:০৮
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

আরো ১৮৬ মে. টন ইলিশ গেল ভারতে

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১, ১৮:১৩ অপরাহ্ণ
আরো ১৮৬ মে. টন ইলিশ গেল ভারতে
বেনাপোল প্রতিনিধি।। 
তৃতীয় দিনে ভারতে গেলো আর ও ১৮৬ মেট্রিক টন ইলিশ। শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে চার হাজার ৬০০ মেট্রিক টন ইলিশ রপ্তানির অনুমতি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। তার অংশ হিসেবে তিন দিনে ভারতে গেল ৪৯৮ মেট্রিক টন ইলিশ।
শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) রাত ১১টা পর্যন্ত ১৮৬ মেট্রিক টন ইলিশ মাছ বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ভারতে প্রবেশের জন্য ১২ রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান গেটপাশ (আইজিএম) করেছে। এর আগে গত বুধবার ভারতে গেছে ১০৩ মেট্রিক টন, বৃহস্পতিবার ২০৯ মেট্রিক টন ও আজ যাচ্ছে ১৮৬ মেট্রিক টন ইলিশ। এ নিয়ে গত তিনদিনে গেল ৪৯৮ মেট্রিক টন ইলিশ।
পদ্মার ইলিশ পশ্চিমবঙ্গের বাঙালিদের কাছে প্রিয় হলেও দেশের চাহিদা বিবেচনায় বিভিন্ন সময় তা রপ্তানি বন্ধ রাখে বাংলাদেশ সরকার। ২০১২ সালের আগে ভারতে ইলিশ রপ্তানি করা হতো। তবে ইলিশের উৎপাদন কমে যাওয়ায় ২০১২ সালের পর রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়া হয়। গত বছরও দুর্গাপূজা উপলক্ষে এক হাজার ৪৫০ মেট্রিক টন ইলিশ রপ্তানির অনুমোদন দিয়েছিল সরকার। এরপর থেকে আবারও বন্ধ থাকে রপ্তানি।
শার্শা উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবুল হাসান জানান, ইলিশ রপ্তানি নিষিদ্ধ হলেও দুর্গাপূজা উপলক্ষে এবার ৪০ মেট্রিক টন করে ১১৫টি প্রতিষ্ঠানকে চার হাজার ৬০০ মেট্রিক টন ইলিশ ভারতে রপ্তানির অনুমতি দিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে ২০ সেপ্টেম্বর ৫২টি প্রতিষ্ঠানকে দুই হাজার ৮০ মেট্রিক টন ও ২৩ সেপ্টেম্বর ৬৩টি প্রতিষ্ঠানকে দুই হাজার ৫২০ মেট্রিক টন ইলিশ মাছ ভারতে রপ্তানির অনুমতি দেওয়া হয়। তারই ধারাবাহিকতায় বুধবার ইলিশের প্রথম চালানের ১০৩ মেট্রিক টন, বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় চালানে ২০৯ মেট্রিক টন ও আজ ১৮৬ মেট্রিক টন ইলিশ ভারতে প্রবেশ করে। পর্যায়ক্রমে বাকি ইলিশ রপ্তানি হবে। আগামী ১০ অক্টোবরের মধ্যে সব ইলিশ রপ্তানির নির্দেশনা রয়েছে।
ইলিশ মাছ রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান অর্পিতা ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের মালিক বিশুদানন্দা আচার্জী বলেন, এবার ভারতে চার হাজার ৬০০ মেট্রিক টন ইলিশ রপ্তানি করা হবে। প্রতি কেজি ইলিশের রপ্তানিমূল্য ১০ মার্কিন ডলার যা বাংলাদেশি টাকায় প্রতি কেজি ৮৫০ টাকা। ভারত ও বাংলাদেশ দুই দেশের কাস্টমস থেকে শুল্কমুক্ত সুবিধায় ইলিশের এ চালান ছাড় করানো হচ্ছে। ইলিশের রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান হলো ১১৫টি।
তিনি আরও বলেন, ১০ অক্টোবরের মধ্যে সকল ইলিশ রপ্তানির নির্দেশনা থাকলেও সরকার ৪ অক্টোবর থেকে ইলিশ মাছ ধরা নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। এর ফলে রপ্তানিকারকরা কীভাবে এত পরিমাণ ইলিশ এসময়ের মধ্যে ভারতে রপ্তানি করতে পারবে সেটাই ভাবনার বিষয়।
বেনাপোল কাস্টমস কমিশনার আজিজুর রহমান জানান, ইলিশ রপ্তানির তৃতীয় চালান বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারতে গেছে। তিন চালানে ৪৯৮ মেট্রিক টন ইলিশ ভারতে গেলো। দ্রুত রপ্তানির জন্য কাস্টমসের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

Sharing is caring!