• ১৮ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:১৬
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

ক্যাপ্টেন নওশাদ জীবিত নয়, ফিরেছেন কফিন বন্দি হয়ে

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২, ২০২১, ১১:১৪ পূর্বাহ্ণ
ক্যাপ্টেন নওশাদ জীবিত নয়, ফিরেছেন কফিন বন্দি হয়ে

ফাইল ছবি

ঢাকা ব্যুরো ।।

অবশেষে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পাইলট নওশাদ আতাউল কাইউম বাসায় ফিরেছেন। তবে জীবিত নয়, ফিরেছেন কফিন বন্দি হয়ে। বৃহস্পতিবার (০২ সেপ্টেম্বর) সকালে বিমানের বিজি-০২৬ ফ্লাইটে তার মরদেহ ঢাকার বিমানবন্দরে পৌঁছালে সেখানে আনুষ্ঠানিকতা শেষে তার মরদেহ উত্তরার বাসায় নেওয়া হয়।

বাসার নিচ তলায় গোসল শেষে নওশাদের মরদেহ দেখার সুযোগ পাবে স্বজনরা। স্বজনদের দেখা শেষ হলেই নেওয়া হবে তার দীর্ঘদিনের কর্মস্থল বলাকাতে। সেখানেই অনুষ্ঠিত হবে জানাজা নামাজ। এরপর বনানীর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

এর আগে ক্যাপ্টেন নওশাদের মরদেহ ঢাকায় পৌঁছালে তার কফিনে শ্রদ্ধা জানান বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী ও সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন, বিমানের এমডি ও সিইও ড. আবু সালেহ মোস্তফা কামালসহ বিমান ও মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

গত ২৭ আগস্ট বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট ওমানের মাসকাট থেকে ঢাকায় ফেরার সময় মধ্য আকাশে হার্ট অ্যাটাক করেছিলেন তিনি। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে বিমানের সেকেন্ড পাইলট তাৎক্ষণিকভাবে নাগপুরে জরুরিভিত্তিতে বিমানটি অবতরণ করান। বিমানের সিডিউল ফ্লাইট ‘বিজি ০২২’ ফ্লাইটে এ ঘটনা ঘটে। ওই ফ্লাইটে ১২৪ জন যাত্রী ছিলেন।

ফ্লাইটটি অবতরণের পর ক্যাপ্টেন নওশাদকে নাগপুরের কিংসওয়ে হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে দুই দিন চিকিৎসার পর অবস্থার অবনতি হলে ২৯ আগস্ট তাকে হাসপাতালের সার্জিক্যাল ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (এসআইসিইউ) কোমায় নেওয়া হয়। সেখানে তাকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়। হার্ট অ্যাটাকের পর তার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয় বলে জানিয়েছিলেন হাসপাতালের চিকিৎসকরা। তবে চিকিৎসকদের সব চেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়ে ৩০ আগস্ট বেলা ১১টার দিকে না ফেরার দেশে চলে যান ক্যাপ্টেন নওশাদ।

Sharing is caring!