• ২৭শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৯:০০
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

ক্রিকেট মহাযুদ্ধে আজ ভারত-পাকিস্তান মুখোমুখি

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত অক্টোবর ২৪, ২০২১, ০৮:৫৪ পূর্বাহ্ণ
ক্রিকেট মহাযুদ্ধে আজ ভারত-পাকিস্তান মুখোমুখি

স্পোর্টস ডেস্ক।।উপমহাদেশের বিশাল বাজার ধরতে মৌসুমের প্রথম এল ক্লাসিকোর জন্য ছুটির দিনের ‘প্রাইম টাইম’ বেছে নিয়েছে স্প্যানিশ লা লিগা কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশ সময় আজ রাত ৮টা ১৫ মিনিটে ন্যুক্যাম্পে মুখোমুখি হবে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনা ও রিয়াল মাদ্রিদ। টিভিতে খেলা দেখা দর্শকদের জন্য সময়টা আদর্শ হলেও একইদিনে ক্রিকেটের এল ক্লাসিকো পড়ে যাওয়ায় লা লিগা কর্তৃপক্ষের পরিকল্পনা মাঠে মারা যেতে পারে! উপমহাদেশের রবিবাসরীয় মেন্যুতে মেসিবিহীন এল ক্লাসিকোর চেয়ে ঢের লোভনীয় ব্যাঞ্জন রয়েছে। ক্রিকেটে সব ম্যাচের সেরা ম্যাচ ভারত-পাকিস্তান মহারণ আজ। সেটাও বিশ্বকাপ মঞ্চে। দুবাইয়ে রাত ৮টায় সুপার টুয়েলভের এই অগ্নিগর্ভ লড়াই দিয়েই এবারের টি ২০ বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবে চিরবৈরী দুই পড়শি।

অননুমেয় চরিত্রের জন্য পাকিস্তানের সম্ভাবনা কখনোই উড়িয়ে দেওয়া যায় না। তবে শক্তি-সামর্থ্য ও ধারাবাহিকতার প্রশ্নে অনেক এগিয়ে ভারত। এবারের আসরে শিরোপার অন্যতম দাবিদার তারা। অধিনায়ক কোহলির হাতে আছে রোহিত শর্মা, লোকেশ রাহুল, ঋষভ পন্ত, হার্দিক পান্ডিয়া, জাসপ্রিত বুমরা, মোহাম্মদ শামি, রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও বরীন্দ্র জাদেজার মতো মারণাস্ত্র। আইপিএলের শেষভাগ সংযুক্ত আরব আমিরাতে হওয়ায় কন্ডিশনও তাদের চেনা। ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়াকে হেলায় হারিয়ে বিশ্বকাপের প্রস্তুতিটাও দারুণ হয়েছে কোহলিদের। প্রতিভার কমতি নেই পাকিস্তান দলেও। অধিনায়ক বাবর আজম সময়ের সেরা ব্যাটারদের একজন। মোহাম্মদ রিজওয়ান, ফখর জামান, হাসান আলী ও শাহিন শাহ আফ্রিদির পাশাপাশি ব্যবধান গড়ে দিতে পারেন দুই বুড়ো শোয়েব মালিক ও মোহাম্মদ হাফিজ। নিজেদের সামর্থ্যে আস্থা রেখেই এবার অতীত ভুলে বিশ্বকাপ মঞ্চে ভারতের গেরো খোলার স্বপ্ন দেখছেন বাবর আজম। শনিবার ম্যাচ-পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে নতুন ইতিহাস লেখার প্রতিশ্রুতি দিলেন পাকিস্তান অধিনায়ক, ‘সত্যি বলছি, অতীত পেছনে ফেলে এসেছি আমরা। নির্দিষ্ট দিনে আমরা আমাদের সামর্থ্য ও আত্মবিশ্বাসকে পারফরম্যান্সে অনূদিত করে ভালো ফল বের করে নিতে চাই। রেকর্ডের জন্মই হয় ভাঙার জন্য। এবার আমরা নতুন ইতিহাস লিখতে চাই। দেশ ছাড়ার আগে আমাদের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তার ১৯৯২ বিশ্বকাপ জয়ের অভিজ্ঞতা আমাদের সঙ্গে ভাগাভাগি করে ভারতের বিপক্ষে আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলার পরামর্শ দিয়েছেন। সেটাই করব আমরা।’

ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলিও অতীতের সাফল্যে বুঁদ না হয়ে সমীহের চোখে দেখছেন পাকিস্তানকে, ‘আমরা কখনো অতীতের পারফরম্যান্স বা রেকর্ড নিয়ে আলোচনা করি না। এতে মনোযোগ নড়ে যায়। নিজেদের প্রস্তুতি ও নির্দিষ্ট দিনে পরিকল্পনার সঠিক বাস্তবায়নই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আমার কাছে পাকিস্তান সবসময়ই শক্তিশালী দল। তাদের বিপক্ষে সেরা ক্রিকেটই খেলতে হবে আপনাকে। কারণ ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেওয়ার মতো অনেক প্রতিভাবান খেলোয়াড় আছে পাকিস্তানের।’ ভারত অধিনায়ক হিসাবে এটাই শেষ টুর্নামেন্ট কোহলির। এরপরই তিনি নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়াবেন, সেই ঘোষণা দিয়েছেন আগেই।

Sharing is caring!