• ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:৪৫
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

চাকরি হারালেন বাংলাদেশ কোচ স্টিভ রোডস

bmahedi
প্রকাশিত জুলাই ৯, ২০১৯, ০৭:১৩ পূর্বাহ্ণ
চাকরি হারালেন বাংলাদেশ কোচ স্টিভ রোডস

আলহাজ্ব মতিয়ার রহমান ।। 

বিশ্বকাপ চলাকালে গুঞ্জনই সত্যি হলো। চুকে গেল বাংলাদেশের সঙ্গে হেড কোচ স্টিভ রোডসের সম্পর্ক। গতকাল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড জানিয়েছে, দুপক্ষের সমঝোতার ভিত্তিতে কোচের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছে তারা। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দল প্রত্যাশামতো পারফরম্যান্স করতে না পারায় এ ইংলিশ কোচের সঙ্গে আর সম্পর্ক রাখল না বিসিবি। যদিও শোনা যাচ্ছিল নতুন কোচের খোঁজ না পাওয়া পর্যন্ত নিজ পদে বহাল থাকবেন তিনি। এ মাসের শেষে শ্রীলঙ্কায় তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজেও তার থাকার কথা শোনা গিয়েছিল। কিন্তু তার আগেই কোচের বিদায় নিশ্চিত করেছেন বিসিবির পরিচালক এবং মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। ‘কোচের চুক্তির মেয়াদ ছিল

২০২০ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত। তবে চুক্তিতে উল্লেখ ছিল এই বিশ্বকাপ শেষে দুপক্ষ তা পর্যালোচনা করতে পারবে। বিশ্বকাপ চলাকালে বেশ কজন পরিচালক লন্ডনে বসে কোচের সঙ্গে চুক্তি নিয়ে আলোচনা করেছেন। দুপক্ষের সমঝোতার মাধ্যমেই আমরা তার চুক্তিটি বাতিল করেছি।’ রোডসের সঙ্গে চুক্তি বাতিলের বিষয়টি নিশ্চিত করলেও তার উত্তরসূরি কে হবেন এ বিষয়ে পরিষ্কার কিছু জানাতে পারেননি জালাল ইউনুস। ক্রিকেটপাড়ায় জোর গুঞ্জন, বিসিবি জাতীয় দলের সাবেক দুজন কোচের সঙ্গে আলোচনা করছে। শোনা যাচ্ছে, রোডসের পূর্বসূরি চন্দিকা হাথুরুসিংহে ও ডেভ হোয়াটমোরের কাছ থেকে দায়িত্ব নেওয়া জেমি সিডন্সকে ফের বাংলাদেশের দায়িত্ব নেওয়ার অনানুষ্ঠানিক প্রস্তাব দিয়েছে বিসিবি। এ বিষয়ে জালাল ইউনুস বলেন, ‘এরকম কোনো কিছুই হয়নি। নতুন কোচের ব্যাপারে আগামী ২১ তারিখ বোর্ডসভায় সিদ্ধান্ত হবে। তার আগে কিছুই বলা যাচ্ছে না।’

৫৫ বছর বয়সী ইয়র্কশায়ারের সাবেক কোচ রোডসের পারফরম্যান্স নিয়ে ক্রিকেটার ও বিসিবির কর্তারা সন্তুষ্ট ছিলেন না। অথচ পরিসংখ্যান বলছে, ২০১৮ সালের ৭ জুন দায়িত্ব নেওয়ার পর বিশ্বকাপ পর্যন্ত এই কোচের সাফল্যের পাল্লাই ভারী। তার অধীনে বাংলাদেশ মোট নয় টেস্ট খেলে জিতেছে তিন ম্যাচ আর হেরেছে পাঁচটিতে। বিশ্বকাপের আট ম্যাচসহ খেলা ৩০ ওয়ানডেতে ১৭ জয় ও ১৩ হার। আর টি-টোয়েন্টিতে ছয় ম্যাচে তিন জয়ের বিপরীতে হার তিনটিতে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে সাফল্য দিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছিলেন রোডস। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিÑ উভয় সিরিজেই তিন ম্যাচের লড়াইয়ে ২-১ ব্যবধানে জিতেছিল বাংলাদেশ। তবে এর আগে টেস্ট সিরিজে ছিল ব্যর্থতা। দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজে হতে হয় হোয়াইটওয়াশ। এর পরপরই সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত এশিয়া কাপে অংশ নিয়ে ফাইনালেও পৌঁছে গিয়েছিল বাংলাদেশ। কিন্তু ভারতের কাছে হেরে সে যাত্রায় শিরোপা জেতা হয়নি। এরপর দেশের মাটিতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ ১-১ ব্যবধানে ড্র হয়। তবে ওয়ানডে সিরিজ ৩-০-তে জিতে নেন মাশরাফীরা। দেশের মাটিতে পরের সিরিজে আবারও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। এবার ওয়েস্ট ইন্ডিজকে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করে রোডসের শিষ্যরা। পরে ওয়ানডেতে ২-১-এ জয় ও টি-টোয়েন্টিতে ২-১-এ সিরিজ হারের স্বাদ পায় স্বাগতিকরা। পরের সিরিজটি কঠিন ছিল রোডসের। নিউজিল্যান্ডে টেস্ট ও ওয়ানডে দুই ফরম্যাটেই হোয়াইটওয়াশ হয়ে ফিরতে হয় তার দলকে। তবে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ জিতে নেয় বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডকে নিয়ে হয় টুর্নামেন্টটি। তাতে ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ত্রিদেশীয় সিরিজ জয়ের সাফল্য দেখায় বাংলাদেশ।

রোডসের পাশাপাশি দলের বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশ এবং স্পিন কোচ সুনীল যোশির সঙ্গেও চুক্তি নবায়ন করবে না বিসিবি।

Sharing is caring!