• ২রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৩:৪৭
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

চেয়ারম্যান প্রার্থী স্বামী, মাঠ কাপাচ্ছেন তার স্ত্রী  

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত নভেম্বর ২৩, ২০২১, ২১:৫৭ অপরাহ্ণ
চেয়ারম্যান প্রার্থী স্বামী, মাঠ কাপাচ্ছেন তার স্ত্রী  

শহিদ জয়, যশোর।। 

মতাভরে স্নিগ্ধ সুষমায় জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে,দেশে উন্নয়নের ধারা বজায় রাখতে পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও পিছিয়ে নেই।দেশের প্রায় প্রতিটি সেক্টরে কর্মরত রয়েছেন হাজারো মা বোন।অবহেলিত নারী সমাজকে যুগোপোযোগী করে সমধিকার প্রতিষ্ঠার আপ্রান চেষ্টা চালাচ্ছেন মানবতার জননী।
সেখানে পিছিয়ে নেই যশোরের শার্শা উপজেলার বাগআঁচড়া ইউনিয়নের নারী সমাজ।ব্যতিক্রমী একজন নারী নেত্রী এ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইলিয়াছ কবির বকুলের সহধর্মিণী সানজানা শিলা।
বৈবাহিক জীবনও কাটছে রাজনৈতিক পরিবারে।এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার। একজন রাজনীতিকের স্ত্রী হয়ে সে কি আর ঘরে বসে থাকতে পারে? তাঁর শরীরে যদি থাকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রক্ত।
যশোরের শার্শার বাগআঁচড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক দু’দু বারের ইউপি চেয়ারম্যান স্বামী ইলিয়াছ কবির বকুল।এবারো নৌকার কান্ডারী তিনি।
যে কারণে সানজানা শীলা নিজেই নির্বাচনী মাঠে নেমে পড়েছেন। নারীদেরকে সঙ্ঘবদ্ধ করে কখনো শ্লোগান দিচ্ছেন,কখনো দোয়া নিচ্ছেন, হ্যান্ডবিল বিতরন করছেন,নারীদেরকে বোঝাচ্ছেন,দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন, ‘নৌকায়’ ভোট চাচ্ছেন।সঙ্গে রেখেছেন বাগআচড়া ইউনিয়নের এক গাদা নারীকর্মী।নির্বাচনী মাঠে ব্যস্ত সময় পার করছেন শীলা।
জানতে চাইলে শীলা বলেন,আমি আওয়ামী পরিবারের সন্তান।জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক।আমার বিয়ে হয়েছে আওয়ামী পরিবারে।স্বামীর অনুমতি নিয়ে আমি নিজেই নির্বাচনী মাঠে নেমে পড়েছি। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে নৌকা প্রতীকে ভোট চাইছি।
ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন এ নারী নেত্রীর আহবানে সাড়া দিয়ে মানুষ হচ্ছেন নৌকামুখি,তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীর ছড়াছড়ি সর্বত্র,পথে পথে আছে হামলা আক্রমনের আশঙ্কা,সব প্রতিকুলতা পরিহার করে তার এ প্রচেষ্টা প্রশংসার দাবি রাখে,স্যালুট সানজানা শিলা।
২৮ নভেম্বর শার্শা উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন অবাধ,নিরপেক্ষ এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশে আয়োজনে স্থানীয় প্রশাসন ইতোমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন।

Sharing is caring!