• ৭ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৩:২১
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

জনপ্রিয়তার শীর্ষে হেভিওয়েট মেম্বার প্রার্থী মুজিবুর রহমান

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত অক্টোবর ২৯, ২০২১, ১০:২৮ পূর্বাহ্ণ
জনপ্রিয়তার শীর্ষে হেভিওয়েট মেম্বার প্রার্থী মুজিবুর রহমান

ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধি।। 

গামী ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠেয়  ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার ৭নং নাভারণ ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডে জনপ্রিয়তার শীর্ষে অবস্থান করছেন হেভিওয়েট ইউপি মেম্বার প্রার্থী মুজিবুর রহমান (মুজি)। এরই মধ্যে নিজের আচার-আচরণ, কথা-বার্তা, জনসেবা ও সাংগঠনিক দক্ষতার মাধ্যমে তিনি নিজ এলাকাসহ আশপাশের এলাকার মানুষদের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন। পাশাপাশি আসন্ন ইউপি নির্বাচনে তিনি সকলের দোয়া ও সমর্থন কামনা করছেন।

জনসেবার কারণে সাধারণ মানুষের কাছে তিনি অত্যন্ত আস্থাভাজন ব্যক্তি হিসেবে ইতোমধ্যেই পরিচিতি লাভ করেছেন। একজন উদীয়মান যুব রাজনীতিবিদ হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে তিনি নিজেকে সাধারণ মানুষের সেবায় নিয়োজিত রেখেছেন। পাশাপাশি তিনি তার সাধ্য অনুযায়ী সাধারণ মানুষের পাশে থেকে বিভিন্ন ধরনের সাহায্য সহযোগিতা করে গেছেন। এ ছাড়া আগামীতেও তিনি নিজেকে মানুষের সেবায় উৎসর্গ করে দিতে চান।

এ দিকে, স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, মুজিবুর রহমান (মুজি) ওয়ার্ডের মানুষের সকল বিপদে-আপদে এগিয়ে আসেন। রাত-দিন যখনই কেউ কোনো বিপদে পড়ে তাকে স্মরণ করে, সাথে সাথে তিনি সেখানে ছুটে যান। সকলের জন্য তার সেবা ও সহযোগিতার দ্বার উন্মুক্ত করে দিয়েছেন তিনি। এ ছাড়া আগামী ১১ নভেম্বর  ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলমত নির্বিশেষে উন্নয়নের স্বার্থে ৪নং ওয়ার্ডের জনপ্রিয় মেম্বার প্রার্থী মুজিবুর রহমানকে নির্বাচিত করলে এলাকার ব্যাপক উন্নয়ন ঘটবে বলেও আশা করছেন সাধারণ জনগণ।

এছাড়া ওয়ার্ডের সর্বসাধারণের মুখে আলোচনায় রয়েছে এবারের মেম্বার প্রার্থীদের মধ্যে যোগ্য ও সৎ হিসেবে মুজিবুর রহমান। এলাকাজুড়ে তার অবস্থান অন্যসব প্রার্থীদের চেয়ে অনেক ভালো রয়েছে।উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

এ ব্যাপারে জনপ্রিয় মেম্বার প্রার্থী মুজিবুর রহমান বলেন, আমাকে যদি জনগণ তাদের সেবা করার সুযোগ দিয়ে নির্বাচিত করে, তাহলে আমি ৪ নং ওয়ার্ডকে নাভারণ ইউনিয়নের ওয়ার্ডগুলোর মধ্যে সেরা রোল মডেল ওয়ার্ড হিসেবে উপহার দেব, ইনশাআল্লাহ।

তিনি আরও বলেন, আমার স্বপ্ন- এলাকাবাসীর সেবা করা ও সুখে-দুঃখে তাদের পাশে থাকা। এ সময় আমৃত্যু জনসেবার কাজে নিজেকে নিয়োজিত রাখবেন বলেও দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।

 বার্তাকণ্ঠ /এন

Sharing is caring!