• ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, বিকাল ৪:৪০
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

তোপের মুখে বাইডেন

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত আগস্ট ২১, ২০২১, ১০:২০ পূর্বাহ্ণ
তোপের মুখে বাইডেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।। 

আফগানিস্তানের কাবুল বিমাবন্দরে হামলার আশঙ্কা জানিয়ে দ্রুত সেখানে আটকে পড়া মার্কিন নাগরিকদের ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

আফগানিস্তানের কাবুল বিমাবন্দরে হামলার আশঙ্কা জানিয়ে দ্রুত সেখানে আটকে পড়া মার্কিন নাগরিকদের ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। শুক্রবার হোয়াইট হাউজে এক সংবাদ সম্মেলনে বাস্তুহারা আফগানদেরও দেশটি ছাড়তে সহায়তা দেয়ার আশ্বাস দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এদিকে, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, প্রয়োজন হলে তালেবানের সঙ্গে কাজ করবে যুক্তরাজ্য।

আফগানিস্তানের বর্তমান পরিস্থিতির জন্য যে রাজনৈতিক অস্থিরতা তৈরি হয়েছে তা নিয়ে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। শুক্রবার হোয়াইট হাউজে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তালেবান শাসিত ভূখণ্ডে আটকে পড়া মার্কিন নাগরিক এবং বাস্তুহারা আফগানদের দেশে ফেরানো হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।
বাইডেন বলেন, আফগানিস্তানে আটকে পরা মার্কিন ও সাধারণ আফগান নাগরিকদের সরিয়ে নিতে যা করা প্রয়োজন আমরা তাই করবো। এ প্রক্রিয়া সফল করতে আমরা তালেবানের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছি।
কিন্তু কাবুল বিমানবন্দরের পরিস্থিতি দিন দিন যে ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে তাতে উদ্বেগ জানিয়েছেন বাইডেন। কারণ বিমানবন্দরের আশপাশে নিরাপত্তা চৌকিগুলোতে সশস্ত্র অবস্থানে রয়েছেন তালেবান সদস্যরা। পরিস্থিতি সামালাতে হিমশিম খাচ্ছে সেখানে দায়িত্বরত মার্কিন বাহিনী। তবে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম জানিয়েছে, শুক্রবার রাতে কয়েক ঘণ্টার বিরতির পরে ফের আকাশপথে কাবুল থেকে বহু মানুষকে অন্যত্র নিয়ে যাওয়ার কাজ শুরু করেছে মার্কিন সেনারা।
বাইডেন বলেন, ‘দেশটির বর্তমান সময়ের ছবি দেখে কেউই সুস্থ থাকতে পারবে না। আমরা পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা করছি। সাধারণ আফগানদের অনেকেই দেশ ছাড়তে মরিয়া, কিন্তু তালেবান সদস্যরা বিভিন্ন উপায়ে তাদের বাধা দিচ্ছে। চূড়ান্ত ফলাফলে কী হতে যাচ্ছে এ বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দিতে পারছি না। কারণ এটি এখন পর্যন্ত সবচেয়ে কঠিন অপারেশন।’
এ সময় সাংবাদিকদের সমালোচনার মুখে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার ব্যর্থতার কথা প্রত্যাখ্যান করেন বাইডেন। আফগানিস্তানের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে শিগগিরই আলোচনার জন্য জি -সেভেন সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে একটি বৈঠকে বসবেন বলেও জানা তিনি।
এদিকে, কূটনৈতিক স্বার্থে তালেবানের সঙ্গে যোগাযোগ রাখবেন বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। শুক্রবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে তিনি এ কথা বলেন।
বরিস জনসন বলেন, ‘আমি মানুষকে আশ্বস্ত করতে চাই, আফগানিস্তানের জন্য একটি সমাধান বের করতে আমাদের রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক প্রচেষ্টা থাকবে। প্রয়োজন হলে অবশ্যই তালেবানের সঙ্গেও আমরা কাজ করব। তালেবানেকে তাদের কাজ দিয়ে মূল্যায়ন করা হবে।’
এদিকে, চীন জানিয়েছে, আফগানিস্তানে নতুন করে যেন মানবিক বিপর্যয়ের সৃষ্টি না হয়, সেজন্য সব পক্ষকে সচেষ্ট থাকতে হবে। আফগান শরণার্থীদের চীনে আশ্রয় দেয়া হবে বলেও জানায় দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
এদিকে, মস্কো সফরর জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেলের সঙ্গে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বৈঠকেও উঠে আসে আফগানিস্তান প্রসঙ্গ। দেশটির চলমান পরিস্থিতি সামাল দিতে করণীয় নিয়ে আলোচনা হয় দুই নেতার মধ্যে।

Sharing is caring!