• ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ১২:১১
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

বকশীগঞ্জের মেরুরচরে নির্বাচনী সহিংসতায় ৪ গ্রামের মানুষকে ঘরে ফেরার আহ্বান

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত জানুয়ারি ১৪, ২০২২, ১৬:৫৩ অপরাহ্ণ
বকশীগঞ্জের মেরুরচরে নির্বাচনী সহিংসতায় ৪ গ্রামের মানুষকে ঘরে ফেরার আহ্বান
আল মোজাহিদ বাবু,বকশীগঞ্জ (জামালপুর)।।
জামালপুরের বকশীগঞ্জে পঞ্চম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণের দিনে মেরুরচর পুলিশের গাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ায় ঘটনা ও পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় পালিয়ে থাকা নিরপরাধ মানুষকে ঘরে ফেরাতে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
মেরুরচর ইউনিয়নের হাছেন আলী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আজ শুক্রবার বেলা ১১ টায় ওই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
আলোচনা সভায় বক্তারা স্থানীয় মানুষকে আশ্বস্ত করে বলেন, কাউকে বিনা দোষে হয়রানি করা হবে না। যারা পুলিশের গাড়ি পুড়িয়েছে তাদের ভিডিও ফুটেজ দেখে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে।
অযথা কেউ আতঙ্কিত হবেন না। তাই আমরা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আপনাদের ঘরে ফেরার আহ্বান জানাচ্ছি। আপনারা ঘরে ফিরুন, কাজে লেগে পড়ুন।
আলোচনা সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুন মুন জাহান লিজার সভাপতিত্বে এসময় প্রধান অতিথি হিসাবে  বক্তব্য  রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ তালুকদার,  দেওয়ানগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাকিবুল ইসলাম রাসেল, সাবেক চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান, উপজেলা শিল্প ও বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুল হামিদ, রাজিউল হাসান লাভলু, আবদুল লতিফ মজনু প্রমুখ।
জানা জানায়, গত ৫ জানুয়ারি মেরুরচর ইউনিয়নের হাছেন উচ্চ বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে পুলিশের সাথে একটি পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের সময় কিছু চিহ্নিত দুর্বৃত্ত পুলিশের পিকআপ ভ্যান ও চার টি মোটর সাইকেল পুড়িয়ে দেয়। এছাড়াও পুলিশের ওপর হামলা করা হয়। এতে ২০ পুলিশ সদস্য আহত হন।
এঘটনার পর মেরুরচর ইউনিয়নের চার টি গ্রামের ৯২ জনকে নামীয় ও এক হাজার ৬০০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে বকশীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। এর পর থেকে মেরুরচর, ভাটি কলকিহারা, ফকির পাড়া ও বাঘাডুবা গ্রামের মানুষ ঘর বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়। এতে করে এসব এলাকা গ্রেপ্তার আতঙ্কে জনশুন্য হয়ে পড়ে ।
এদিকে আতঙ্কিত মানুষ ঘর বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ায় সরিষা, পেঁয়াজ , কাঁচা মরিচ ও অন্যান্য ফসল ঘরে তুলতে পারছেন না। এনিয়ে এসব এলাকার মানুষের জানমালের নিরাপত্তার স্বার্থে নিরপরাধ ব্যক্তিদের নির্বিঘ্নে ঘরে ফেরার আহ্বান জানান থানা পুলিশ। কিন্তু মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করায় কেউ ঘরে ফেরেন নি।
অবশেষে আজ শুক্রবার উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে স্থানীয় এলাকাবাসীকে হয়রানি না করতে ও তাদের আশ্বস্ত করতে ফের উদ্যোগে নেওয়া হয়। এনিয়ে এলাকাবাসীর সাথে আলোচনা সভা ও মতবিনিময় করা হয়।
আলোচনা সভায় উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুর রউফ তালুকদার, পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ রাকিবুল ইসলাম রাসেল ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুন মুন জাহান লিজা স্থানীয় জনগণকে অভয় দেন । তাদেরকে আগের মত ব্যবসা বাণিজ্য, কৃষি কাজ, ফসল তোলা ও দোকান খোলার জন্য আহ্বান জানান। আলোচনা সভা শেষে মেরুরচর বাজারের বন্ধ দোকানপাট খুলে দেন কর্মকর্তারা।

 নজরুল/বার্তাকণ্ঠ

 

Sharing is caring!