• ২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৩:১৩
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

বর্ষায় ছেলেদের ত্বকের যত্ন

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত জুন ৮, ২০২১, ১৯:৪৫ অপরাহ্ণ
বর্ষায় ছেলেদের ত্বকের যত্ন

ডেস্ক রিপোর্ট ##

অনেকেই মনে করেন রূপচর্চা শুধু নারীদের জন্য। নিজেকে সতেজ, লাবণ্যময় আর তারুণ্যদীপ্ত রাখতে ছেলে বা মেয়েদের রূপচর্চার জুড়ি নেই। ত্বক পরিষ্কার রাখা রূপচর্চার অন্যতম বিষয়। নিজেকে আকর্ষণীয় ও পরিচ্ছন্ন দেখাতে মেয়েদের পাশাপাশি ছেলেদেরও উচিত ত্বকের যত্ন নেওয়ার দরকার আছে।

সুন্দর ত্বক, সুন্দর চুল, সুস্বাস্থ্য পেতে হলে প্রয়োজন নিয়মিত যত্ন, পরিষ্কার, পরিচ্ছন্নতা, ব্যালেন্স ডায়েট ও ভালো একটা ঘুম। ত্বকের যত্নে ছেলেরা এখন অনেক সচেতন। করোনাকালীন সময়ে স্যালুনে না গিয়ে ঘরে চুল কাটানোর পাশাপাশি শ্যাম্পু, মেনিকিউর, ব্লিচ, ফেসিয়াল, ম্যাসাজ করতে পারেন। জেনে নিন ছেলেদের রূপচর্চার কিছু উপায়।

ছেলেরা দিনের বেশিরভাগ সময় বাইরে কাটান। তাই ঘর থেকে বের হওয়ার আগে হাত-মুখ ধুয়ে সানক্রিম বা লোশন লাগিয়ে নেয়া উচিত। ব্যাগের মধ্যে একটা ফেসিয়াল বা ফেসওয়াশ রাখা ভালো। শহরের যানজট আর ধুলোবালির মধ্যে অফিসে পৌঁছে প্রথমেই ফেসওয়াশ দিয়ে হাত-মুখ ধুয়ে ফ্রেশ হয়ে নিন। এতে ভালোভাবে কাজে মনোযোগ দেওয়া যায়।

যাদের শুষ্ক ত্বক তারা সানবার্ন ফেসিয়াল করাতে পারেন। এটা রোদেপোড়া ত্বকের জন্যও উপকারী। যাদের ত্বক তৈলাক্ত, তারা করাতে পারেন অ্যালোভেরা ও গোল্ড ফেসিয়াল। ত্বকে ব্রণের সমস্যা থাকলে আয়ুর্বেদিক ফেসিয়াল করালে উপকার পাবেন। ঘরে বসে ত্বকের যত্ন নিতে চাইলে রোদেপোড়া ভাব কমাতে চন্দনের প্যাক লাগাতে পারেন।

অনেকে ছেলের ধারণা বয়সের কারণে ব্রণ হয়। তবে ব্রণ শুধু কিশোর বয়সের সমস্যা নয়, প্রাপ্তবয়স্ক ছেলেদের ব্রণ হতে পারে। সাধারণত মেয়েদের তুলনায় ছেলেদের ত্বক বেশি তৈলাক্ত হয়ে থাকে। আর তৈলাক্ত ত্বকে ব্রণ হওয়ার প্রবণতা বেশি। এ পরিস্থিতি এড়াতে অয়েল-ফ্রি বা নন-কমিডোজেনিক বা যেসব পণ্য লোমকূপ বন্ধ করবে না এরকম প্রসাধনী ব্যবহার করা যেতে পারে। নন-কমিডোজেনিক পণ্য ব্যবহার করলে ত্বকে ব্ল্যাকহেডস বা হোয়াইটহেডস সমস্যা থাকবে না। এছাড়া ব্রণ দূর করতে ‘নন-কমেডোজেনিক ক্লেনজার’ বেশ কার্যকর।

ত্বকে ব্ল্যাকহেডস থাকলে গরম পানিতে কিছু সময় ভাপ নিয়ে আস্তে আস্তে দুই আঙুলের ডগা দিয়ে চেপে ব্ল্যাকহেডস বের করতে পারেন। চোখের নিচে ফোলা ভাব দেখা দিলে অল্প গরম পানিতে লেবুর রস ও মধু মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে খেলে ভালো ফল পাওয়া যাবে। চোখের নিচের ত্বক অনেক পাতলা। তাই ক্রিম বা ময়েশ্চারাইজারযুক্ত লোশন ব্যবহার করা ঠিক হবে না। প্রয়োজনে আন্ডার আইক্রিম লাগাতে পারেন।

চোখের নিচে সমস্ত মুখের তুলনায় একটু কালচে রঙের হয়। কারণ এই অংশের আর্দ্রতা সারা মুখের তুলনায় কম হয়। এই কালো অংশতেই বয়স বাড়লে দেখা দেয় বলিরেখা। তাই এখন থেকেই যত্ন নেওয়া শুরু করুন। চোখের তলায় হাইড্রেটিং ক্রিম লাগান নিয়মিত। কখন ব্যবহার করবেন? দিনের বেলা ঘুম থেকে ওঠার পর ও রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে এই দুবার প্রতিদিন নিয়মিত লাগান। দেখবেন চোখের তলার কালোভাব অনেকটা কমে এসেছে।

মুখের ত্বককে সূর্যের তাপ থেকে বাঁচাতে নিয়মিত সানস্ক্রিন মাখুন। সানস্ক্রিন মুখের ত্বককে সূর্যের ক্ষতিকর আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মির থেকে বাঁচিয়ে রাখে। কোন ধরনের সানস্ক্রিন বাছবেন? সান প্রোটেক্টিং ফ্যাক্টর নামে একটি মাপকাঠি রয়েছে যা দিয়ে সানস্ক্রিনের ক্ষমতা মাপা যায়। ৩০ বা তার বেশি এসপিএফ-এর সানস্ক্রিন মুখের ত্বককে ঠিকঠাক প্রোটেকশন দেয়। তাই বেছে নিন বেশি এসপিএফ-এর সানস্ক্রিন।

সুন্দর চুলের অধিকারী হওয়ার জন্য খানিকটা কষ্ট করতে হবে। চুলে নিয়মিত তেল দেওয়া, শ্যাম্পু করা, কন্ডিশনিং করা খুবই জরুরি কাজ। সম্ভব হলে সপ্তাহে অন্তত একদিন চুলে মেহেন্দি ব্যবহার করলে উপকার পাওয়া যাবে। যদি কারও অনেকদিনের পুরনো খুশকি থাকে সেখান থেকে মুখে ব্রণ হওয়া, চুল পড়ার মতো সমস্যা দেখা দেয়। চুলে হালকা তেল ম্যাসাজ অনেক ক্ষেত্রেই এ সমস্যার সমাধান করে।

Sharing is caring!