• ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ১:১০
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

বেনাপোলের ওপারে বাংলাদেশী পাসপোর্ট যাত্রীদের কাছ থেকে জোর করে অর্থ আদায় করছে ভারতীয় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ

bmahedi
প্রকাশিত জুলাই ১০, ২০১৯, ২০:৫৮ অপরাহ্ণ
বেনাপোলের ওপারে বাংলাদেশী পাসপোর্ট যাত্রীদের কাছ থেকে জোর করে অর্থ আদায় করছে ভারতীয় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ

মিলন হোসেন :  স্স্টাফ রিপোর্টার ।।  
বেনাপোল আন্তর্জাতিক চেকপোস্টের  ওপারে ভারতের  হরিদাসপুর কাস্টম চেকপোস্টে বাংলাদেশী পাসপোর্ট যাত্রীরা নানা হয়রানরি শিকার হচ্ছে বলে অভিযোগ।ভারত ফেরত যাত্রীদের ল্যাগেজ তল্লাশীর নামে ভয়ভীতি দেখিয়ে জোর করে অর্থ   আদায় করা হচ্ছে প্রকাশ্যে। কেউ টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাকে ঘন্টার পর ঘন্টা আটকে রেখে জেলে পাঠানোর ভয় দেখানো হচ্ছে বলে ভারত থেকে ফিরে আসা অনেকেই অভিযোগ করেছেন।
ভারত থেকে ফিরে আসা বাবু দত্ত বলেন বৈধ পাসপোর্ট ভিসা নিয়ে বাংলাদেশ কাস্টমস ইমিগ্রেশন কাজ শেষ করে ভারতে প্রবেশ করার পর ব্যাগ তল্লাশী করে কিছু না পেয়ে মানিব্যাগ নিয়ে ব্যাগে থাকা ১৭ হাজার টাকা দেখে এত টাকা নেয়া যাবে না বলে জানিয়ে দেন।পরে খুব অনুরোধের পর ৫ হাজার টাকা রেখে মানিব্যাগ ফেরত দেন।
কথা হয় বরিশাল গেীরনদী বাজারের ব্যবসায়ী সুশিল এর সাথে তিনি বলেন স্ত্রী সন্তান নিয়ে ভারতে বেড়াতে যাবার সময় ভারতীয় কাস্টম পকেট চেক করে ৩২ হাজার টাকার মধ্য ৭ হাজার টাকা রেখে দেয়।প্রতিবাদ করলে পুলিশে দেওয়ার ভয় দেখাচ্ছিল।পিরোজপুর জেলার সেলিম হোসেন বলেন চিকিৎসা জন্য ভারত গিয়ে ছিলাম ফেরার সময় ভারতীয় কাস্টম জোর করে ৩শ টাকা নিয়ে নিল তারা কোন কথাই শোনে না।
শায়লা খাতুন নামে একযাত্রী জানান ভারত থেকে ফেরার সময় ৬হাজার ভারতীয় রুপি ছিল সেটাতো নিল আবার বাংলা টাকা  এক  হাজার টাকা দিতে হল। বেনাপোল আমদানী রপ্তানী কারক কামাল হোসেন বলেন বেনাপোল দিয়ে কোলকাতা দূরত্ব কম হওয়াতে এ পথ দিয়ে ব্যবসায়ী,চিকিৎসা ও ভ্রমন করার জন্য সবাই ভারতে যেতে চায় কিন্ত বর্তমানে ভারতীয় কাস্টম কর্তৃকক্ষ যে ভাবে বাংলাদেশী পাসপোর্ট যাত্রীদের হয়রানী করছে তা খুবই দূঃখ জনক।
ভারতীয় কাস্টম কর্তৃক বাংলাদেশী যাত্রী হয়রানীর ব্যাপারে বেনাপোল চেকপোষ্ট আন্তজাতিক কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা আজিজুল ইসলাম জানান,ভারতীয় চেকপোষ্ট কাস্টমসে বাংলাদেশী পাসপোর্ট যাত্রী হয়রানী হচ্ছে কেউ অভিযোগ করেনি।অভিযোগ পেলে তাদেরকে আমরা জানাতে পারি।#

Sharing is caring!