• ২৮শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:৫৭
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

মহারাষ্ট্রে বিজেপির টোপ: দলত্যাগ ঠেকাতে বিধায়কদের হোটেলে বন্দী

bmahedi
প্রকাশিত নভেম্বর ২৯, ২০১৯, ১০:১১ পূর্বাহ্ণ
নুরুজ্জামান লিটন :=

মহারাষ্ট্রে রাজ্য সরকার গঠন নিয়ে নাটকীয়তা থামছে না। এনসিপি ভেঙে অজিত পাওয়ারকে নিয়ে জোট সরকার গঠন করলেও সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন হয়নি বিজেপি।

২৮৮ আসনের বিধানসভায় বিজেপির আসন ১০৫টি। সরকার গঠনের জন্য সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে প্রয়োজন ১৪৫ আসন। আর ৩০ নভেম্বরের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করার জন্য সময় বেধে দিয়েছেন রাজ্যপাল।

এমন অবস্থায় বিরোধী দলের বিধায়কদের জোটে ভিড়াতে টোপ দিচ্ছে বিজেপি। অন্যদিকে বিধায়কদের দলত্যাগ ঠেকাতেও জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে এনসিপি, কংগ্রেস ও শিবসেনা।

বিজেপির দেবেন্দ্র ফড়নবিশ দ্বিতীয়বারের মতো মুখ্যমন্ত্রীর শপথ গ্রহণের পর বিধায়কদের নিয়ে বৈঠক ডাকে এনসিপি। বৈঠকে ৬ বিধায়কের নিখোঁজ হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়তেই কংগ্রেস তার অন্য বিধায়কদের ভোপালে সরানোর সিদ্ধান্ত নেয়। শিবসেনার বিধায়কদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে জয়পুরে। এই দুটি রাজ্যই কংগ্রেসশাসিত।

এদিকে এনসিপির প্রায় ৫০ জন বিধায়ককে মুম্বাইয়ের রেনেঁসা হোটেলে আটকে রাখা হয়। তবে সেখানে অসুবিধার কারণে বিমানবন্দর সংলগ্ন হায়াত হোটেলে তাদের স্থানান্তরিত করা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

শনিবার এনসিপি ভেঙে উপমুখ্যমন্ত্রী হওয়া অজিত পাওয়ারের দাবি, ২০ জনের মতো বিধায়ক তার সঙ্গে রয়েছে। কিন্তু পরবর্তীতে দেখা যায়, মাত্র পাঁচজন তার সঙ্গে আছে।

এমন পরিস্থিতিতে বিজেপির টোপ থেকে রক্ষা করতে বিধায়কদের হোটেলে নিয়ে এসে আটকে রেখেছে এনসিপি।

নির্বাচনে ৫৬ জন বিধায়কের জয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে শিবসেনা। এনসিপি থেকে নির্বাচিত হয়েছেন ৫৪ জন বিধায়ক। অন্যদিকে ১০৫ আসন নিয়ে এগিয়ে আছে বিজেপি। এখন সরকার গঠন করতে হলে দুই দলের জোট গঠন করতে হবে। সেটি নিয়ে ২৮ দিন ধরে চলে নানা নাটকীয়তা।

এর মধ্যে শুক্রবার এনসিপি প্রধান শারদ পাওয়ারের ভাতিজা অজিত পাওয়ারকে নিয়ে রাতারাতি সরকার গঠন করে ফেলে বিজেপি। এমন ঘটনায় পুরা ভারত স্তম্ভিত হয়ে পড়ে।

Sharing is caring!