• ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১২ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১:৩৬
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

মিরাছের সম্পদ দ্রুত  বণ্টন জরুরী

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২১, ২১:২২ অপরাহ্ণ
মিরাছের সম্পদ দ্রুত  বণ্টন জরুরী
হাফেজ মাওঃ মেহেদী হাসান।।
কাফন-দাফন শেষে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কোন হক্কানী আলিম মুফতীর মাধ্যমে ওয়ারিশদের মাঝে মীরাছ বণ্টন করে প্রত্যেককে তার নির্ধারিত অংশে তার মালিকানা বুঝিয়ে দিবে। নাবালিগ ছেলে বা মেয়ের অংশ-ইয়াতীমের যিনি অভিভাবক বা মুরব্বী হবে এবং ইয়াতীম ও তার ধন-সম্পদ যিনি দেখাশুনা করবেন, তার হাতে বুঝিয়ে দিবে। এটা খুবই জরুরী। (সূরা নিসা, আয়াত-৬/ মাআরিফুল কুরআন, ২/ ৩০৬)
কারণ, জরুরী ভিত্তিতে এটা করা না হলে প্রথমত ওয়ারিশদের মধ্যে কেউ নাবালিগ থাকলে তার মাল খাওয়া পড়বে। আর ইয়াতীমের মাল খাওয়া মানে জাহান্নামের আগুন দ্বারা উদর/পেট ভর্তি করা। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘নিশ্চয়ই যারা ইয়াতীমের মাল অন্যায়ভাবে ভক্ষণ করে, তারা তাদের পেটে আগুন ভরে’।
হ্যাঁ, যদি কেউ স্ত্রীকে গর্ভবতী অবস্থায় রেখে মারা যায়, তাহলে তখন বাচ্চা প্রসব হওয়া পর্যন্ত মীরাছ বণ্টনে বিলম্ব করবে। কারণ, পেটে ছেলে কি মেয়ে তা জানা নেই। আর উভয়ের মীরাছ এক সমান নয়, তাই দেরী করার প্রয়োজন রয়েছে। (ইসলাহে ইনকিলাবে উম্মত-সূত্র : আহকামে মায়্যিত-১৯০)
দ্বিতীয়ত ওয়ারিশদের মধ্যে কেউ নাবালিগ না থাকলেও বোনদের অংশ গোটা সম্পদে রয়েছে। আর দ্রুত মীরাস বণ্টন না করা হলে শরঈ অনুমতি ব্যতীত তাদের সম্পদ ভক্ষণ করা হয়, এটাও জুলুমের পর্যায়ভুক্ত এবং অন্যের হক নষ্ট করার শামিল। তাছাড়া এর দ্বারা নিজেরও হারাম খাওয়া হয়, স্ত্রী-সন্তানদেরকেও হারাম খাওয়ানো হয়। সুতরাং আমাদের উচিত হারাম হারাম থেকে সর্বদা বিরত থেকে পরিপূর্ণ হালাল এর উপর চলা। আল্লাহ তায়ালা আমাদের তৌফিক দান করুন। (আমিন)

Sharing is caring!