• ২১শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৭ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১২:১৫
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

যশোরের কিশোরকে কুপিয়ে উপার্জনের একমাত্র সম্বল রিকশা ছিনতাই : এখনও ঞান ফেরেনি তার

bmahedi
প্রকাশিত জুন ২৯, ২০১৯, ২১:৫২ অপরাহ্ণ

ফারুক হাসান।। 

আবু শাহিন ১৪ বছরের এক কিশোর। প্রতিদিনের ন্যায় জীবিকার তাগিদে শুক্রবার সকাল বেলায় বাড়ি থেকে ব্যাটারি চালিত রিক্সা নিয়ে বেরিয়েছিল। কিন্তু ভাগ্য বড়ই নির্মম, যাত্রী সেজে রিক্সাটা হাতিয়ে নেওয়ার জন্য ওঁৎপাতে দুর্বৃত্তরা। পরে ওই কিশোরকে দিন-দুপুরে কুপিয়ে তার উপার্জনের একমাত্র সম্বল ব্যাটারি চালিত রিক্সা ছিনতাই করে নিয়ে গেছে ৪ জন দুর্বৃত্ত।

শুক্রবার সকালে সাতক্ষীরা জেলার পাটকেলঘাটা ধানদিয়া এলাকায় এই ঘটনাটি ঘটে। ঘটনার পর থেকে শাহীন এখনও অঞান অবস্থায় রয়েছে।

তবে কিশোর আবু শাহিনের বাড়ি যশোরের কেশবপুর উপজেলার মঙ্গলকোট গ্রামে। সে ঐ গ্রামের হায়দার মোড়লের একমাত্র ছেলে।

জানা যায়, শুক্রবার সকাল বেলায় বাড়ি থেকে ব্যাটারি চালিত রিক্সা নিয়ে বেরিয়েছিল। দুর্বৃত্তরা রিক্সাটা হাতিয়ে নেওয়ার জন্য যাত্রী সেজে তার গাড়িতে উঠে। পরে পাশ্ববর্তী পাটকেলঘাটা থানার ধানদিয়া গ্রামের পথের মাঝে তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে রিক্সাটা হাতিয়ে নেয় তারা। গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে খুলনা সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

আজ শনিবার সকালে আবু শাহিনের শারীরিক অবস্থা আরো খারাপের দিকে গেলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে আসা হচ্ছে। তার চাচা এ খবর নিশ্চিত করেন।  রাত ৭ টায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তার গাড়ি রাস্তায় ছিলো, ঢাকায় পৌছায়নি।

এছাড়া শাহীন অজ্ঞান অবস্থায় রয়েছে এখনও।

১নং মঙ্গলকোট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জহির রায়হান জানান, সকাল ১০টার দিকে আমি ঘটনাটি শুনেছি। শুনেছি, রিক্সায় ৪ জন ছিল। তার রিক্সার দাম প্রায় ২৫ হাজার টাকা। শাহীন সুস্থ হলে রহস্য উদঘাটন হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। তাদের বাড়ির সবাই রুগী নিয়ে ব্যস্ত, একারণে থানায় জিডি বা কোন অভিযোগ করতে পারিনি।

পাটকেলঘাটা থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মো. রেজাউল ইসলাম জানান, সম্ভবত পূর্ব শত্রুতার জেরে ছেলেটিকে ধানদিয়ায় এনে হামলা চালিয়েছে। তাদের একজনকে ছেলেটি চিনতে পেরেছে। তিনি আরো জানান, হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান অব্যাহত আছে। এ ঘটনায় পাটকেল ঘাটা থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

 

Sharing is caring!