• ৫ই আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ২১শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, সকাল ১০:২৯
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

যশোরে দুই গ্রুপের মধ্যে বোমাবাজীর ঘটনা ।। ৬জন আহত

bmahedi
প্রকাশিত জুন ৩০, ২০১৯, ২০:৩৫ অপরাহ্ণ

রোকনুজ্জামান রিপন।।

যশোর শহরতলী বিরামপুরে দুই গ্রুপের মধ্যে বোমাবাজীর ঘটনা ঘটেছে। বোমা ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে কমবেশি ৬জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে ৪ জনের অবস্থা আশংকাজনক। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে দুইজন আটক করেছে। আটককৃতরা হলো, বিরামপুরের ফকিরার মোড় এলাকার আতিয়ান খানের ছেলে ইমরান খান ও একই এলাকার শহিদুল ইসলামের ছেলে নাহিদ হাসান।

আর হাসপাতালে ভর্তিকৃতরা হলো, বিরামপুর কালীতলা এলাকার দুলাল মৃধার ছেলে ফয়সল হোসেন সাজ্জাদ (২২), জাহিদ হোসেনের ছেলে আকাশ হোসেন (১৯), আব্বাস আলীর ছেলে মিরাজ হোসেন (১৯), আলম সিকদারের ছেলে রাজু এছাড়া হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন শেখ নাজমুল হোসেনের ছেলে মামুন হোসেন (৩২) এবং একই এলাকার তামিম হোসেন, রেজওয়ানের ছেলে সাগর হোসেন (২২)।

হাসিবের ভাই শুভ জানান, সাজ্জাদ, আকাশ, মিরাজদের বন্ধু হাসিবকে গত শুক্রবার বিয়েবাড়ির অনুষ্ঠানে খাজনদারী করার সময় একই এলাকার রাজু, আলআমিনসহ ১৫-২০জন ছুরিকাঘাত করে। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে কোন্দল চলে আসছিল।

আজ রবিবার দুপুর ১২টার দিকে সাজ্জাদ, আকাশ, মিরাজসহ বন্ধুরা বিরামপুরের ভাটার গুড়গোল্লা মোড় এলাকায় গেলে রাজু, আল আমিনের নেতৃত্বে ১০-১২জন যুবক তাদের উপর পর পর কয়েকটি বোমা হামলা চালায়। এসময় স্থানীয়দের আতংক ছড়িয়ে পড়ে। দুর্বৃত্ত্বরা তাদেরকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। এদিকে স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বিরামপুর ভাটার মোড় ও গুড়গোল্লা মোড় এলাকায় উঠতি বয়সের যুবকদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে কোন্দল চলে আসছে।

আজ রবিবার দুপুরে সাজ্জাদ, আকাশ, মিরাজসহ কয়েকজন রাজু ও আল আমিনগ্রুপ মারপিট করার জন্য গুড়গোল্লার মোড়ে যায়। সেখানে তারা তিনটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। স্থানীয়রা এগিয়ে তাদেরকে ধাওয়া করে। রাজুগ্রুপ তখন ধারালো অস্ত্র নিয়ে স্থানীয়দেরকে সাথে নিয়ে ধাওয়া করে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে।

এসময় কয়েকটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। এসময় উভয়পক্ষের সাজ্জাদ, আকাশ, মিরাজ ও রাজু গুরুত্বর আহত হয়। স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক কাজল মল্লিক জানান, আহতদের মধ্যে ৪জনের মধ্যে অবস্থা আশংকামুক্ত নয়। এছাড়া উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজুকে ঢাকায় রেফার করা হয়েছে।

ঘটনার পর পরই আহতদের দেখতে আসলে কোতয়ালি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হায়াত মাহমুদ ও এস আই মিজানুর রহমান বোমা হামলার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে রাজু গ্রুপের ইমরান খান ও নাহিদ হাসানকে আটক করে। বোমা হামলার ঘটনা নিয়ে বিরামপুর এলাকায় চরম উত্তেজনা চলছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কেউ কোন অভিযোগ দেয়নি বলে কোতয়ালি থানার পুলিশ পরিদর্শক সমীর কুমার বিশ্বাস জানান।

Sharing is caring!