• ১৯শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, সকাল ১০:২৫
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্বেচ্ছাসেবক কর্মী  থাকবে না —প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য

bmahedi
প্রকাশিত মে ১০, ২০২১, ১৯:৪৭ অপরাহ্ণ
যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্বেচ্ছাসেবক কর্মী  থাকবে না —প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য

যশোর ব্যুরো ##

যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্বেচ্ছাসেবক নামধারী কোনো কর্মী  থাকবে না। বিনা বেতনে কাজ করার কথা বলে বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের দালাল হিসেবে কাজ করছেন তারা। প্রতিনিয়ত তারা রোগীদের সাথে প্রতারণা করে আসছেন। স্বেচ্ছাসেবক লেবাসধারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের হুশিয়ারি দিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য।
রোববার অনুষ্ঠিত কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে যারা হাসপাতালের স্বেচ্ছাসেবক কর্মচারী হিসেবে কর্মরত আছেন, পহেলা জুন তাদের প্রত্যাহার করা হবে। সভায় উপস্থিত সকলকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অবহিত করেন, সকল অপকর্মের সাথে তারা স্বেচ্ছাসেবক কর্মচারী সরাসরি জড়িত। এছাড়াও আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে নিয়োগ পাওয়া কর্মীও দালালীতে জড়িয়ে পড়েছেন। রোগীর সাথে প্রতারণাকারীদের চিহিৃত করে নিয়োগ বাতিল করে নতুন কর্মী নেয়া হবে। বিভিন্ন দাতা সংস্থা, দানশীল ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করে ন্যূনতম বেতন নির্ধারণ করে মাস্টাররোলে কর্মী নিয়োগ দেয়া হবে। এতে করে সেবার মান অক্ষুন্ন রাখার পাশাপাশি জবাবদিহিতার আওতায় আনা যাবে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকার জেলা হাসপাতালগুলোতে সেবার মান বাড়াতে নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। অতি দ্রুতই যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মাল্টিপারপাস সেন্টার নির্মাণ করা হবে। হাসপাতালের সামনে যানজট সমস্যা দীর্ঘদিনের। এ সমস্যা নিরসনের জন্য পুলিশের পাশাপাশি পৌরসভার দু’জন কর্মী কাজ করবে। হাসপাতালের মসজিদ মাকের্টে দোকান প্রতি মাসিক ভাড়া দেড় হাজার টাকার পরিবর্তে তিন হাজার টাকা করা হয়েছে। এছাড়াও প্রতিবছর ১৫% বৃদ্ধি করা হবে।
চতুর্থ শ্রেণি কর্মচারী সমিতির দ্বারা পরিচালিত হাসপাতালের সাইকেল স্ট্যান্ড প্রতিমাসে ২০ হাজার টাকা ভাড়া প্রদান করবে। একজন কর্মচারী দু’বছরের বেশি স্ট্যান্ড পরিচালনা করতে পারবে না।

সভায় বক্তব্য রাখেন হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়, সিভিল সার্জন ডাক্তার শেখ আবু শাহীন, বিএমএ যশোরের সভাপতি ডাক্তার একেএম কামরুল ইসলাম বেনু, যশোর মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডাক্তার গোলাম ফারুক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অপু সরোয়ার, হাসপাতাল সমাজসেবা অফিসার রুবেল হাওলাদার, যশোর পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোকছিমুল বারী অপু, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, মেডিসিন ব্যাংকের অর্থ সম্পাদক জহুরুল আলম, রোগী কল্যাণ সমিতির নেতা এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন খোকন প্রমূখ।
সভা চলাকালীন উপস্থিত হন যশোর পৌরসভার মেয়র হায়দার গণি খান পলাশ। হাসপাতালের চিকিৎসা কার্যক্রম নির্বিঘ্ন রাখতে প্রয়োজনীয় কর্মী মাস্টাররোলে নিয়োজিত করা হলে তাদের বেতন প্রদানের ক্ষেত্রে প্রতিমাসে ১০ হাজার টাকা অনুদানের আশ্বাস দেন পৌর মেয়র।
সরকারি চাকরি থেকে অবসর নেয়ার প্রাক্কালে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার দিলীপ কুমার রায়কে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য।

 

Sharing is caring!