• ২৮শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৩ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ২:৩৭
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

লালমনিরহাটে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্লাশ নিলেন জেলা প্রশাসক

bmahedi
প্রকাশিত নভেম্বর ২৫, ২০১৯, ০৮:১৫ পূর্বাহ্ণ
মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাফা : লালমনিরহাট :=

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাঠদান করলেন লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক (ডিসি) আবু জাফর। গত শনিবার বিকেলে সদর উপজেলার মহেন্দ্রনগর ইউনিয়নের মৃতিঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান করেন তিনি। শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা জানান, লালমনিরহাট রংপুর মহাসড়কের পাশে অবস্থিত সদর উপজেলার মৃতিঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। নিয়মিত কাজে ওই মহাসড়ক হয়ে যাচ্ছিলেন জেলা প্রশাসক আবু জাফর। এ সময় হঠাৎ তিনি বিদ্যালয়ে প্রবেশ করে শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলেন। এরপর শ্রেণি কক্ষে চলে যান এবং শিক্ষার্থীদের পাঠদান করেন। তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণিতে বিভিন্ন বিষয়ে পাঠদানের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার খোঁজখবর নেন জেলা প্রশাসক আবু জাফর।
শিক্ষক হিসেবে শ্রেণি কক্ষে জেলা প্রশাসককে দেখে শিক্ষার্থীরা প্রথম দিকে ভয় পেলেও পরবর্তী আনন্দ দায়ক পরিবেশে উৎফুল্ল মনে পাঠদান শ্রবণ করে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। এ সময় শিক্ষার্থীরা শিক্ষক ডিসি’র নানান প্রশ্নের উত্তর দেয়। ডিসি’র পাঠদানের বিষয়টি সাধুবাদ জানিয়ে স্থানীয় অভিভাবকরা জানান, সরকারি কর্মকর্তারা বিদ্যালয়গুলো নিয়মিত ভাবে হঠাৎ পরিদর্শন করলে শিক্ষারমান অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে। জেলা প্রশাসক যে কাজ শুরু করেছেন তা অব্যাহত থাকলে বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষকদের উপস্থিতি বৃদ্ধির পাশাপাশি শিক্ষার মান ও পরিবেশ সুন্দর হবে। আগাম না জানিয়ে হঠাৎ বিদ্যালয়গুলো পরিদর্শন করতে ডিসিসহ সরকারি কর্মকর্তাদের প্রতি আহবান জানান অভিভাবকরা।
মৃতিঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরজাহান বেগম বলেন, জেলা প্রশাসক মহোদয় হঠাৎ বিদ্যালয়ের প্রবেশ করেন। শ্রেণি কক্ষে পাঠদানসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে শিক্ষকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। শেষে বিদ্যালয়ের পরিদর্শন বহিতে স্বাক্ষরও করেন বলে জানান প্রধান শিক্ষক।
লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, ওই পথে যেতে হঠাৎ বিদ্যালয়টিতে প্রবেশ করে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের পাঠদানের খোঁজ খবর নিয়েছি। ছোট সোনামনিদের সঙ্গে কথা বলতে ভাল লাগে তাই তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির ক্লাশে পাঠদান করেছি। ব্যস্ততা কম থাকলে পাঠদান করতে বিদ্যালয়ে যেতে ইচ্ছে করে। তাই সুযোগ হলেই ক্লাশে যাই। যা আগামী দিনেও অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

Sharing is caring!