• ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৮ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, সকাল ৮:৫৩
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্টে নকল ঠেকাতে নতুন উদ্যোগ

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত আগস্ট ২২, ২০২১, ১২:০২ অপরাহ্ণ
শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্টে নকল ঠেকাতে নতুন উদ্যোগ

ফাইল ছবি

প্রভাষক মামুনুর রশিদ ।।

করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় দেড় বছর ধরে বন্ধ আছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। তবে, অনলাইনে শিক্ষার্থীদের ক্লাস, অ্যাসাইনমেন্ট ও পরীক্ষার কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে সরকার। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ে অ্যাসাইনমেন্ট দিয়ে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হচ্ছে।

এদিকে গত ১৫ জুলাই মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা নেওয়ার ঘোষণা দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানান, মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের ১২ সপ্তাহে ২৪টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। তারা প্রতি সপ্তাহে দুটি করে অ্যাসাইনমেন্ট জমা দেবে। প্রতিটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে মোট আটটি করে অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে। এর মাধ্যমে সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচি শেষ করা হবে।

 এরপরই অ্যাসাইনমেন্ট করার চাপ বেড়েছে পরীক্ষার্থীদের মধ্যে। খবর বেরিয়েছে কেউ কেউ মূল্যায়নের এই মানদণ্ড অ্যাসাইনমেন্ট নকল করে জমা দিচ্ছে।
 
ফলে পরীক্ষার্থীরা যাতে অ্যাসাইনমেন্টে নকল করতে না পারে সে বিষয়ে উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। তারা অ্যাসাইনমেন্ট নিজ হাতে করে জমা দিচ্ছে কি না, তা মনিটরিংয়ের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ জন্য সব সরকারি-বেসরকারি স্কুল-কলেজের প্রধান শিক্ষক ও অধ্যক্ষদের কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।
শিক্ষা অধিদপ্তর বলছে, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর থেকে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট ও মূল্যায়ন নির্দেশনায় শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম যথাযথ পরিচালিত হচ্ছে কি না, তা সরেজমিনে মনিটরিংয়ের ‘অ্যাসাইনমেন্ট মনিটরিং কমিটি’ নামে একটি কমিটি গঠন করতে বলা হয়েছে। মাধ্যমিক পর্যায়ের সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানদের নেতৃত্বে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের প্রতিষ্ঠান প্রধানদের নেতৃত্বে এ কমিটি গঠন করা হবে।

এ কমিটিগুলো সব পরীক্ষার্থী যেন অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে, তা নিশ্চিত করবে। শিক্ষার্থীরা যেন কোনোক্রমেই অ্যাসাইনমেন্টগুলোয় নকল বা কোনো প্রকারের অসদুপায় অবলম্বন না করে, সে বিষয়ও নিশ্চিত করবে। কোনো শিক্ষার্থী যদি অ্যাসাইনমেন্টে নকলের আশ্রয় নিয়েছে বলে প্রতীয়মান হয়, তাহলে এটি বাতিল করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানাবে। বিষয়টির যেন পুনরাবৃত্তি না ঘটে, সে ব্যাপারে শিক্ষার্থীকে সতর্ক করবে কমিটি।

নির্দেশনা মোতাবেক, শিক্ষার্থীরা যেন অ্যাসাইনমেন্টগুলো নিজ হাতে লিখে জমা দেয়, সে বিষয় নিশ্চিত করতে কাজ করবে কমিটি। অ্যাসাইনমেন্টগুলো শিক্ষক কর্তৃক যথাযথভাবে মূল্যায়ন, সংরক্ষণ এবং নম্বরগুলো সঠিকভাবে এক্সেল শিটে এন্ট্রি করা হচ্ছে কি না, তা কমিটি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করবে। কমিটি নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে চলমান অ্যাসাইনমেন্ট কার্যক্রম সুষ্ঠু ও সফলভাবে কার্যকর করার লক্ষ্যে সার্বিকভাবে পর্যবেক্ষণ করবে।

Sharing is caring!