• ২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৪:২৬
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

সন্ত্রাসী চাঁদাবাজদের গ্রেফতার দাবিতে ‘ভোরের সাথী’র বিক্ষোভ ,মানববন্ধন

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত জুন ৪, ২০২১, ২১:১৯ অপরাহ্ণ
সন্ত্রাসী চাঁদাবাজদের গ্রেফতার দাবিতে ‘ভোরের সাথী’র বিক্ষোভ ,মানববন্ধন

শহীদ জয়,  যশোর ব্যুরো ## সংগঠনের সদস্য ব্যবসায়ী সঞ্জীবন ভদ্রের উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদ এবং চাঁদাবাজচক্রকে গ্রেফতারের দাবিতে ভোরের সাথী নামে একটি সামাজিক সংগঠন আজ শুক্রবার সকালে যশোরে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে।
সকাল ১০টায় শহরের মুজিব সড়কে (প্রেসক্লাব যশোরের) সামনে শুরু হওয়া মানববন্ধনে সংগঠনের অর্ধশতাধিক সদস্য অংশ নেন।
মানববন্ধন চলাকালে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তৃতায় নেতৃবৃন্দ বলেন, এই শহরের স্বাস্থ্য সচেতন নাগরিকদের সংগঠন ভোরের সাথী সামাজিক নানা কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত। অরাজনৈতিক এই সংগঠনের অন্যতম সদস্য সঞ্জীবন ভদ্রের বাড়ি শহরের ভোলা ট্যাংক রোডে। সেখানে তিনি একটি বাড়ি নির্মাণ করতে গেলে ওই এলাকার চিহ্নিত চাঁদাবাজরা তার কাছে চাঁদা দাবি করে। তিনি চাঁদা দিতে অস্বীকার করায় গত ২৫ মে দুপুরে তাকে বাড়ি থেকে ডেকে সন্ত্রাসীরা তার উরুতে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত এবং খিস্তিখেউড়  করে এলাকা ত্যাগ করে। যাওয়ার সময় শাসিয়ে যায়, চাঁদা না দিলে আরও বড় ধরনের ক্ষতি করবে।
নেতৃবৃন্দ বলেন, গুরুতর আহত সঞ্জীবন ভদ্রকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়। এই ঘটনায় সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কোতোয়ালী থানায় মামলাও করা হয়। কিন্তু পরিতাপের বিষয় পুলিশ এখন পর্যন্ত হামলাকারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করতে পারেনি।
নেতৃবৃন্দ যশোরের পুলিশ সুপারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, আমরা শুনেছি চাঁদাবাজ, অস্ত্রবাজ-সন্ত্রাসীদের প্রতি আপনার মনোভাব জিরো টলারেন্স। কিন্তু ঘটনার প্রায় ১০ দিন অতিবাহিত হলেও আসামিদের গ্রেফতার করা হয়নি।
নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জোর দাবি জানান।
সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব হারুন অর রশিদের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তৃতা করেন সহ-সভাপতি মোবাশ্বের হোসেন বাবু, মুক্তিযোদ্ধা একেএম কামরুজ্জামান, সাংগঠনিক সম্পাদক হাতেম আলী সরদার, প্রশিক্ষক ইঞ্জিনিয়ার জহিরুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য জাকির হোসেন পলাশ, অসীম কুণ্ডু, অ্যাড. মাহমুদ হাসান, তৌহিদ জামান, হাঁটার সাথীর সদস্য সুশীল কুমার প্রমুখ। #

Sharing is caring!