• ২৬শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, দুপুর ১২:২৪
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

হাতীবান্ধায় পোট্টি ফার্মে রাতের আধারে লুটপাট, আটক ৭

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২১, ১৭:০৮ অপরাহ্ণ
হাতীবান্ধায় পোট্টি ফার্মে রাতের আধারে লুটপাট, আটক ৭
মোস্তাফিজুর রহমান, লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি ।।
জেলার হাতীবান্ধা উপজেলা গোতামারী ইউনিয়নের  দইখাওয়া ভুটিয়া মঙ্গল এলাকায় মুরগী ফার্মে রাতের আধারে লুটপাটের ঘটনা ঘটে। এ সময় থানা পুলিশ সংবাদ পেয়ে একটি পিক ভ্যান,ও একটি নছিমনসহ ১৪০০ মুরগী আটক করে।  ঘটনার জড়িত  ৭জনকে আটক করে থানা পুলিশ।  ঘটনাটি শনিবার(২৫ সেপ্টেম্বর)  দিবাগত গভীর রাতে ঘটনাটি ঘটে। এজাহার সূত্রে জানা যায়। ঘটনার পরদিন রবিবার বিকালে ঐ ফার্মের মালিক মোঃ জাহাঙ্গীর আলমের ছোট বোন মোঃ মৌসুমী (২৩) বাদি হয়ে ঘটনার সাথে জড়িত ২৮ জনের নাম উল্লেখ করে আরো ১০০/১৫০ অজ্ঞাত নামা ব্যক্তিদের লিখিত অভিযোগ করেন।
প্রত্যক্ষদর্শীও পুলিশ সূত্রে জানায়,ঐ ফার্মকে কেন্দ্র করে।ঐ এলাকার মোঃ ইলিয়াস তালুকদার ও মোঃশফিকুল ইসলাম শফি এর সাথে ফার্মের মালিক জাহাঙ্গীর আলমের সাথে দীর্ঘদিন থেকে বিবাদ চলে আসছে। ফলে জাহাঙ্গীর আলম ২১/৯/২০২১ ইং বিজ্ঞ লালমনিরহাট আদালতে চিরস্হায়ী নিষেধাজ্ঞা নিমিত্তে অন্য-৩১৪/২১ আনানয়ন করেন যাহা  পিটিশন মামলা নং ২৯৯/২১(হাতী) ধারা ফৌঃকাঃবিঃ আইনের ১৪৪ মোতাবেক হাতীবান্ধা থানা পুলিশ বিবাদী পক্ষকে ফার্মে প্রবেশ হতে বিরত থাকার নোটিশ জারি করেন।এমতাবস্থায় গত ২৪/০৯/২০২১ ইং রোজ শুক্রবার দিবাগত রাত্রি ১১ টার সময় বিবাদী পক্ষ গং বাঁশের লাঠি,লোহার রডসহ বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্রে সজিত হইয়া বিজ্ঞ আদালতের আদেশ অমান্য করিয়া ফার্মে প্রবেশ করে।মুরগী নিয়ে যেতে চেষ্টা করলে,খামারের মালিক জাহাঙ্গীর আলমের বাবা,মোঃ বাবলু(৫৫) ও মা মোসলেমা বেগম(৫২) সহ খামারের নিরাপত্তায় থাকা ব্যক্তিগণকে এলোপাতাড়ি ভাবে মারপিট করে। মারাত্মক ভাবে আহত করেন।এ সময় তাদের আত্ম চিৎকারে এলাকার আশে পাশে লোকজন ছুটে আসলে তারা পালিয়ে গেলে এলাকাবাসী আহত বাবলু ও তার স্ত্রী সহ আহতদের উদ্ধার করে।লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।এ ঘটনার পর দিন খামারে লোকজন না থাকায় সুযোগ বুঝে গভীর রাতে বিরোধী পক্ষ পুনরায় বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র সজিত হয়ে।হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করে এবং খামারে,থাকা ৭০০০ মুরগী তাদের আনিত পিক আপ ও নছিমন ভ্যান,যোগে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা কালে, মালিক পক্ষের জৈনিক ব্যক্তি উপায়ান্তর ৯৯৯ ফোন কল দিলে, হাতীবান্ধা থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্হলে উপস্হিত হয়ে, ঘটনার সাথে জড়িত ৭ জনকে আটক করেন। এ সময় পুলিশ ঘটনাস্হল থেকে একটি পিকআপ ভ্যানও নছিমন সহ১৪০০ মুরগী উদ্ধার করলেও বাকি মুরগী অপর তিন পিক আপ ভ্যানে নিয়ে পালিয়ে যায়।
এ ব্যাপারে থানা ভারপ্রাপ্ত ওসি রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,ঐ ঘটনার ৭ জন আটক করে হয়েছে। সোমবার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হবে।

Sharing is caring!