• ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ২রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, রাত ৯:৫৩
  • রেজিস্ট্রেশন ৪৬১

১৩ বছরে রাজস্ব বেড়েছে ৫০০ গুণ: এনবিআর

বার্তাকন্ঠ
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ৬, ২০২১, ১৬:০৩ অপরাহ্ণ
১৩ বছরে রাজস্ব বেড়েছে ৫০০ গুণ: এনবিআর
ঢাকা অফিস ।।
বর্তমান সরকারের ১৩ বছর সময়কালে ২০০৮-০৯ থেকে ২০২০-২১ অর্থবছরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) রাজস্ব আহরণের প্রবৃদ্ধি বেড়েছে প্রায় ৫০০ শতাংশ। ২০০৮-০৯ অর্থবছরে রাজস্ব আহরণ হয়েছিল ৫২ হাজার ৫২৭ কোটি ২৫ লাখ টাকা। ২০২০-২১ অর্থবছরে রাজস্ব আহরণ হয়েছে ২ লাখ ৫৯ হাজার ৮৮১ কোটি ৮০ লাখ টাকা।
জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে এ খবর জানা গেছে। জানা যায়, ২০২০-২১ অর্থবছরে রাজস্ব আদায় হয়েছে ভ্যাট থেকে ৯৭ হাজার ৫০৭ কোটি ২২ লাখ টাকা। আয়কর থেকে ৮৫ হাজার ২২৪ কোটি ১৭ লাখ টাকা। কাস্টমস থেকে ৭৭ হাজার ১৫০ কোটি ৪১ লাখ টাকা। যেখানে ২০০৮-০৯ অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫৩ হাজার কোটি টাকা কিন্তু আহরণ হয় ৫২ হাজার ৫২৭ কোটি ২৫ লাখ টাকা।
২০০৯-১০ অর্থবছরে রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬১ হাজার কোটি টাকা, আদায় হয় ৬২ হাজার ৪২ কোটি ১৬ লাখ টাকা। ২০১০-১১ অর্থবছরে রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭৫ হাজার ৬০০ কোটি টাকা, বিপরীতে আদায় হয় ৭৯ হাজার ৪০৩ কোটি ১১ লাখ কোটি টাকা। ২০১১-১২ অর্থবছরের ৯২ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে এনবিআর আদায় করে ৯৫ হাজার ৫৮ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। এ বছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও বেশি রাজস্ব আদায় হয়। এরপর ২০১২-১৩ অর্থবছরে এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ লাখ ১২ হাজার ২৫৯ কোটি টাকা, আদায় হয়েছিল ১ লাখ ৯ হাজার ১৫১ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। পরের বছর রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা, এনবিআর আদায় করেছিল ১ লাখ ২০ হাজার ৮১৯ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। এছাড়া ২০১৪-১৫ অর্থবছরে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ লাখ ৩৫ হাজার ২৮ কোটি টাকা কিন্তু এনবিআর আদায় করেছিল ১ লাখ ৩৫ হাজার ৭০০ কোটি টাকা।
২০১৫-১৬ অর্থবছরে এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ লাখ ৫০ হাজার কোটি টাকা। আদায় হয় ১ লাখ ৫৩ হাজার ৬২৬ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। এ বছরও লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩ হাজার কোটি টাকা বেশি আদায় করে এনবিআর। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য ছিলো ১ লাখ ৮৫ হাজার কোটি টাকা। এনবিআর আদায় করে ১ লাখ ৭১ হাজার ৬৫৬ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৪ হাজার কোটি টাকা কম। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে রাজস্ব বোর্ডের রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা কিন্তু এনবিআর আদায় করে ২ লাখ ২ হাজার ৩১২ কোটি টাকা। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২১ হাজার কোটি টাকার বেশি কম আদায় হয়। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে আদায় হয় ২ লাখ ২০ হাজার ৭৭১ কোটি ৬১ লাখ টাকা। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ঘাটতি বেশি হলেও গত অর্থবছরের চেয়ে রাজস্ব আহরণ ১৮ হাজার ৪০০ কোটি টাকা বেশি আহরণ হয়।
২০১৯-২০ অর্থবছরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা দেওয়া হয় ৩ লাখ ৫০০ কোটি টাকা। যার বিপরীতে এনবিআর আদায় করে ২ লাখ ১৬ হাজার ৪৫১ কোটি টাকা। অপরদিকে ২০২০-২১ অর্থবছরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা দেওয়া হয় ৩ লাখ ১ হাজার কোটি টাকা কিন্তু রাজস্ব আদায় হয় ২ লাখ ৫৯ হাজার ৮৮১ কোটি ৮০ লাখ টাকা। বিগত অর্থবছরের চেয়ে ৪৩ হাজার ৪৩০ কোটি ৪ লাখ টাকা বেশি আদায় হয়।
সবমিলে বর্তমান সরকারের আমলে ১৩ বছরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) রাজস্ব আহরণের প্রবৃদ্ধি প্রায় ৫০০ শতাংশ।
রাজস্ব বোর্ড বলছে, রাজস্ব আহরণে নানান উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জনে সহায়ক পরিবেশ তৈরি করা। দেশি বিদেশি বিনিয়োগে আকর্ষণ সৃষ্টি করা। নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং জিডিপি প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত করতে কাজ করছে সংস্থাটি।
ভবিষ্যত পরিকল্পনা হিসেবে এনবিআর আরও বলছে, অটোমেশনে যাচ্ছে তারা। রাজস্ব আহরণের উদ্দেশ্যে অন্য প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ডাটা ইনটিগ্রেশনে যাওয়া, সেবা সহজ করা এবং মানের উন্নয়ন করা। সবশেষ রাজস্ব আহরণে দক্ষ জনবল তৈরি করতেও কাজ করছে এনবিআর।
এ বিষয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান আবু হেনা মো রহমাতুল মুনিম বলেন, শুধু রাজস্ব আহরণই এনবিআর মুখ্য কাজ নয়। ব্যবসায়িক পরিবেশ তৈরি এবং ব্যবসায়ের উন্নয়নেও কাজ করে থাকে এনবিআর।
তিনি বলেন, আগামী ২০৪১ সালে বাংলাদেশের অবস্থা কেমন হবে, সেটা নিয়েও আমরা কাজ করছি। একইসাথে সরকারের রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা সামনে রেখে আমরা রাজস্ব আহরণ করে থাকি। সে লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি।

Sharing is caring!