Barta Kontho
নিবন্ধন নম্বর: ৪৬১শনিবার , ১৩ জুলাই ২০১৯
  1. 1st Lead
  2. 2nd Lead
  3. অপরাধ
  4. আইটি বিশ্ব
  5. আইন ও আদালত
  6. আন্তর্জাতিক
  7. আবহাওয়া
  8. ইসলাম
  9. খেলাধুলা
  10. চাকুরি
  11. ছবি ঘর
  12. জাতীয়
  13. জেলার খবর
  14. ট্রাভেল
  15. নির্বাচন

আস্ত কুমীর গিলে খেল পাইথন

বার্তাকন্ঠ
জুলাই ১৩, ২০১৯ ৮:৫৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

প্রফেসর জিন্নাত আলী।।

একজনের খাদ্য- আরেকজনের মৃত্যুর কারণ। চলমান আমাদের অতি প্রিয় বিশ্বটা এইভাবেই আবর্তিত হচ্ছে।  অর্থাৎ খাদ্য-খাদকের সম্পর্কই তো বাস্তুতন্ত্রের মূল ভিত৷ তার উপর দাঁড়িয়েই পৃথিবী হয়ে উঠেছে সকলের বাসযোগ্য৷

তবে এই খাদ্য-খাদকের সমীকরণ অন্যরকম হলেই, তা আশ্চর্যই লাগে বটে৷ এমনই আশ্চর্যজনক দৃশ্য এখন নেটদুনিয়ায় ভাইরাল৷ অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডের এক নদীতে কায়াক ভ্রমণ করছিলেন মার্টিন মুলার নামে এক ব্যক্তি৷ তখনই তাঁর চোখে পড়ে সেই রোমহর্ষক দৃশ্য৷ নদীর তীরঘেঁষা একটি জায়গায় ধীরে ধীরে যেন ছোট হয়ে যাচ্ছে একটি বৃহদাকার কুমির৷

ব্যাপারটা কী? বোঝার জন্য খানিকটা কাছে গিয়ে তিনি যা দেখলেন, তাতে নিজের চোখকেও বিশ্বাস করতে পারছিলেন না, পরে এমনই প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন মুলার৷ দেখলেন, ওই বড়সড় কুমিরটাকে আস্ত গিলে নিচ্ছে তার চেয়ে অন্তত দ্বিগুণ বড় একটা সবজেটে রঙের পাইথন৷

এই দৃশ্য মুলারকে প্রায় পাথর করে দিয়েছিল৷ তবে কিছুক্ষণের মধ্যে সম্বিৎ ফিরে পেয়ে তিনি আর সময় নষ্ট করেননি৷ অজগরের কুমির ভক্ষণের দৃশ্য একের পর এক ক্যামেরাবন্দি করে গেলেন৷  যতক্ষণে অজগরটি কুমিরের দেহের শেষাংশটুকু গলাধকরণ করলেন, ততক্ষণ পর্যন্ত সেদিক থেকে চোখ সরাননি মুলার৷ এবং ছবিও তুলে গিয়েছেন৷

সেসব ছবি তিনি তুলে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার স্বেচ্ছাসেবী এক বন্যপ্রাণ সংরক্ষক সংস্থা জিজি ওয়াইল্ডলাইফের হাতে৷ তাঁরা ছবিগুলো ভালভাবে পর্যবেক্ষণ করে জানিয়েছেন, ভক্ষক প্রজাতিতে অলিভ পাইথন, দ্বিতীয় বৃহত্তম সাপ৷  এদের প্রিয় খাবার এই স্বচ্ছ জলের কুমির৷ এমনিতে একটু গভীর জঙ্গলে থাকলেও, খিদের চোটে জলাশয়ের দিকে চলে আসে৷ এবং কুমিরগুলোকে এভাবেই আস্ত গিলে খায়৷

তারপর আবার বেশ কিছুদিন বিশ্রাম নেওয়ার পর শিকারের খোঁজে সক্রিয় হয়ে ওঠে অলিভ পাইথন৷ মুলারের এই ছবি জিজি ওয়াইল্ডলাইফ নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছে৷ আর তারপর থেকেই ভাইরাল অজগরের কুমির ভক্ষণের ছবি৷

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।