মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্ত্রীর তালাকের নোটিশ পেয়ে খুশিতে তিন মন দুধ দিয়ে গোসল করেছে এক স্বামী

টাংগাইল ব্যুরো ।। 

স্ত্রীর তালাকের নোটিশ পেয়ে খুশিতে তিন মন দুধ দিয়ে গোসল করেছে এক স্বামী। সোমবার টাঙ্গাইল জেলার মধুপুরের জাঙ্গালিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, স্ত্রী রীণার (১৬) তালাকের নোটিশ পেয়ে খুশিতে দুধ দিয়ে গোসল করছেন স্বামী আলম (১৮)। শুধু তাই নয়। আনন্দে প্রায় দুই শতাধিক এলাকাবাসীকে বাড়িতে নিমন্ত্রণ করে ভূরিভোজও করিয়েছেন তিনি।  স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জাঙ্গালিয়া গ্রামের মৃত নয়ন মিয়ার ছেলে আলমের (১৮) সাথে একই গ্রামের আনোয়ার হোসেনের মেয়ে রীণার (১৬) প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। বিষয়টি টের পেয়ে মেয়ে পক্ষ আলমকে বাড়িতে ডেকে গোপনে বিয়ে পড়িয়ে দেন।

কিন্তু এ বিয়ে আলমের পরিবার মেনে নিতে পারেনি যৌতুক থেকে বঞ্চিত হওয়ায়। আর রীণার পরিবার রুষ্ট হয় প্রচলিত নিয়মে বিয়ের নিমন্ত্রণ থেকে বঞ্চিত হওয়ায়। তাই বিয়ের পর উভয় পক্ষেই শুরু হয় অশান্তি। বেশ ক’বার সালিশ বসে, তবে সুরাহা হয়নি। শেষ পর্যন্ত স্ত্রী রীণার পরিবারের সম্মতিতে গত রবিবার আইনী প্রক্রিয়ায় আলমের নিকট তালাকনামা পাঠিয়ে দেয়। এতে স্বামী আলমসহ অনেকেই খুশি হন।

এরপরেই আলমের পরিবার পাশের বাজার থেকে তিন মন মহিষের দুধ কিনে সোমবার আলমকে গোসল করান তার পরিবারের সদস্যরা। একই সাথে দুপুরে গ্রামের দুই শতাধিক মানুষকে ভূরি ভোজ করানো হয়। এ বিষয়ে বর আলম বলেন, রীণার আরেকটি বিয়ে হয়েছিল। যেটি তার পরিবার গোপন রেখেছিল। তালাকের মাধ্যমে গ্রামে শান্তি ফিরে আসায় এমনটি করেছি।

কনে রীণার দাদা মুক্তার হোসেন বলেন, আলম নেশাগ্রস্ত ছেলে। প্রায়ই রীণাকে নির্যাতন করতো। এ জন্য বৈধ নিয়মে রীণাকে ছাড়িয়ে নেওয়া হয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, টাঙ্গাইলের মধুপুর অঞ্চলের এই গ্রামটিতে বাল্য বিয়ে হয় হরদম। গ্রামটিতে শুভ খবরে দুধ ঢেলে আপনজনকে আশীর্বাদ করা সমাজের প্রচলিত নিয়ম।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

স্ত্রীর তালাকের নোটিশ পেয়ে খুশিতে তিন মন দুধ দিয়ে গোসল করেছে এক স্বামী

প্রকাশের সময় : ০৭:২২:৫৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯

টাংগাইল ব্যুরো ।। 

স্ত্রীর তালাকের নোটিশ পেয়ে খুশিতে তিন মন দুধ দিয়ে গোসল করেছে এক স্বামী। সোমবার টাঙ্গাইল জেলার মধুপুরের জাঙ্গালিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, স্ত্রী রীণার (১৬) তালাকের নোটিশ পেয়ে খুশিতে দুধ দিয়ে গোসল করছেন স্বামী আলম (১৮)। শুধু তাই নয়। আনন্দে প্রায় দুই শতাধিক এলাকাবাসীকে বাড়িতে নিমন্ত্রণ করে ভূরিভোজও করিয়েছেন তিনি।  স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জাঙ্গালিয়া গ্রামের মৃত নয়ন মিয়ার ছেলে আলমের (১৮) সাথে একই গ্রামের আনোয়ার হোসেনের মেয়ে রীণার (১৬) প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। বিষয়টি টের পেয়ে মেয়ে পক্ষ আলমকে বাড়িতে ডেকে গোপনে বিয়ে পড়িয়ে দেন।

কিন্তু এ বিয়ে আলমের পরিবার মেনে নিতে পারেনি যৌতুক থেকে বঞ্চিত হওয়ায়। আর রীণার পরিবার রুষ্ট হয় প্রচলিত নিয়মে বিয়ের নিমন্ত্রণ থেকে বঞ্চিত হওয়ায়। তাই বিয়ের পর উভয় পক্ষেই শুরু হয় অশান্তি। বেশ ক’বার সালিশ বসে, তবে সুরাহা হয়নি। শেষ পর্যন্ত স্ত্রী রীণার পরিবারের সম্মতিতে গত রবিবার আইনী প্রক্রিয়ায় আলমের নিকট তালাকনামা পাঠিয়ে দেয়। এতে স্বামী আলমসহ অনেকেই খুশি হন।

এরপরেই আলমের পরিবার পাশের বাজার থেকে তিন মন মহিষের দুধ কিনে সোমবার আলমকে গোসল করান তার পরিবারের সদস্যরা। একই সাথে দুপুরে গ্রামের দুই শতাধিক মানুষকে ভূরি ভোজ করানো হয়। এ বিষয়ে বর আলম বলেন, রীণার আরেকটি বিয়ে হয়েছিল। যেটি তার পরিবার গোপন রেখেছিল। তালাকের মাধ্যমে গ্রামে শান্তি ফিরে আসায় এমনটি করেছি।

কনে রীণার দাদা মুক্তার হোসেন বলেন, আলম নেশাগ্রস্ত ছেলে। প্রায়ই রীণাকে নির্যাতন করতো। এ জন্য বৈধ নিয়মে রীণাকে ছাড়িয়ে নেওয়া হয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, টাঙ্গাইলের মধুপুর অঞ্চলের এই গ্রামটিতে বাল্য বিয়ে হয় হরদম। গ্রামটিতে শুভ খবরে দুধ ঢেলে আপনজনকে আশীর্বাদ করা সমাজের প্রচলিত নিয়ম।