শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

চীনবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল হংকং, পুলিশের গুলি

মো: হাফিজুর রহমান ।।

কমিউনিস্ট শাসনের ৭০ বছর পূর্তি উপলক্ষে মঙ্গলবার বিশ্ববাসীকে সামরিক শক্তি প্রদর্শন করেছে চীন। ঠিক সেই সময়ে হংকংয়ের রাস্তায় চীনবিরোধী বিক্ষোভে নেমেছে লাখ লাখ মানুষ।

চীনের জাতীয় দিবসকে তারা ‘শোক দিবস’ হিসেবে পালনের ঘোষণা দিয়েছে। দিনের শুরুতে প্রায় ১০ লাখ মানুষ বিশাল বিক্ষোভ র‌্যালিতে নামেন বলে জানায় এএফপি।

দিন গড়ানোর পরপরই বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় পুলিশ। কোথাও কোথাও গণতন্ত্রকামী বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি ছুড়েছে পুলিশ। এতে এক বিক্ষোভকারী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

পাশাপাশি টিয়ারগ্যাস, রাবার বুলেট ও পেপার স্প্রে নিক্ষেপ করে তারা। পাল্টা ইট-পাথর ও পেট্রোলবোমা ছুড়ে তার জবাব দিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। গুলি না ছুড়ে সংলাপ বহাল রাখার ওপরই জোর দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

চীনের বর্ষপূর্তির দিন বড় বিক্ষোভের ডাক দিয়েছিলেন আন্দোলনকারীরা। একে কেন্দ্র করেই হংকং পুলিশও কড়া অবস্থানে ছিল। জাতীয় দিবসের দিন বিক্ষোভ করলে ফল ভালো হবে না বলেও হুমকি দেয় পুলিশ।

নিরাপত্তা বাহিনীর এ হুমকি উপেক্ষা করে রাজপথে নামেন গণতন্ত্রপন্থীরা। হংকংয়ের ১৮টি জেলার প্রায় সবকটিতে বিক্ষোভ হয়েছে। সুয়েন ওয়ান জেলায় বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। গুলি এক বিক্ষোভকারীর বুকে লেগেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ সূত্র। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, অন্তত দুই ডজন বিক্ষোভকারী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। তাদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

 

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

চীনবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল হংকং, পুলিশের গুলি

প্রকাশের সময় : ০৭:২১:২২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২ অক্টোবর ২০১৯

মো: হাফিজুর রহমান ।।

কমিউনিস্ট শাসনের ৭০ বছর পূর্তি উপলক্ষে মঙ্গলবার বিশ্ববাসীকে সামরিক শক্তি প্রদর্শন করেছে চীন। ঠিক সেই সময়ে হংকংয়ের রাস্তায় চীনবিরোধী বিক্ষোভে নেমেছে লাখ লাখ মানুষ।

চীনের জাতীয় দিবসকে তারা ‘শোক দিবস’ হিসেবে পালনের ঘোষণা দিয়েছে। দিনের শুরুতে প্রায় ১০ লাখ মানুষ বিশাল বিক্ষোভ র‌্যালিতে নামেন বলে জানায় এএফপি।

দিন গড়ানোর পরপরই বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় পুলিশ। কোথাও কোথাও গণতন্ত্রকামী বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি ছুড়েছে পুলিশ। এতে এক বিক্ষোভকারী গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।

পাশাপাশি টিয়ারগ্যাস, রাবার বুলেট ও পেপার স্প্রে নিক্ষেপ করে তারা। পাল্টা ইট-পাথর ও পেট্রোলবোমা ছুড়ে তার জবাব দিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। গুলি না ছুড়ে সংলাপ বহাল রাখার ওপরই জোর দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

চীনের বর্ষপূর্তির দিন বড় বিক্ষোভের ডাক দিয়েছিলেন আন্দোলনকারীরা। একে কেন্দ্র করেই হংকং পুলিশও কড়া অবস্থানে ছিল। জাতীয় দিবসের দিন বিক্ষোভ করলে ফল ভালো হবে না বলেও হুমকি দেয় পুলিশ।

নিরাপত্তা বাহিনীর এ হুমকি উপেক্ষা করে রাজপথে নামেন গণতন্ত্রপন্থীরা। হংকংয়ের ১৮টি জেলার প্রায় সবকটিতে বিক্ষোভ হয়েছে। সুয়েন ওয়ান জেলায় বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। গুলি এক বিক্ষোভকারীর বুকে লেগেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ সূত্র। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, অন্তত দুই ডজন বিক্ষোভকারী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। তাদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।