মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আইসিসির সদস্যপদ ফিরে পেল জিম্বাবুয়ে-নেপাল

মো: ইদ্রিস আলী :=

আইসিসির সদস্যপদ ফিরে পেল জিম্বাবুয়ে ও নেপাল। দুবাইয়ে বোর্ড মিটিং শেষে সোমবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। সদস্যপদ ফিরে পাওয়ায় আগামী জানুয়ারিতে অনুষ্ঠেয় আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে অংশ নিতে পারবে জিম্বাবুয়ে। এছাড়া ২০২০ সালে আইসিসি আইসিসি সুপার লিগেও তারা খেলতে পারবে।

বোর্ড মিটিংয়ে অংশ নিয়েছিলেন আইসিসি চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহর, জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের চেয়ারম্যান তাভেনগোয়া মুকুলানি, জিম্বাবুয়ে ক্রীড়ামন্ত্রী কার্স্টি কভেন্ট্রি এবং দেশটির স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রেয়েশন কমিশনের চেয়ারম্যান জেরাল্ড এমলোটসওয়া।

আইসিসি চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহর বলেছেন, জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটকে পুনরুদ্ধার করার দৃঢ় অঙ্গীকার করায় দেশটির ক্রীড়ামন্ত্রীকে আমি ধন্যবাদ জানাই। জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটের সমর্থনে কাজ করতে তার ইচ্ছাটা পরিষ্কার। আইসিসি বোর্ড যেগুলো নিয়ম বেঁধে দিয়েছে তিনি তা বিনা শর্তে মেনে নিয়েছেন।

গত জুলাইয়ে আফ্রিকার এই দেশটির সদস্যপদ স্থগিত করে আইসিসি। কারণ, জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড আইসিসি সংবিধানের ২.৪ (সি), ডি অনুচ্ছেদ ভঙ্গ করেছিল। ক্রিকেটে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ ঠেকাতে ব্যর্থতার জন্য শাস্তি হিসেবে জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল আইসিসি।

আইসিসি বলে দিয়েছিল যে, সদস্যপদ ফিরে না পাওয়া পর্যন্ত তারা আইসিসির কোনো ইভেন্টে অংশ নিতে পারবে না। তাছাড়া তাদের আইসিসি ফান্ডিংও স্থগিত থাকবে। তবে, সোমবার তাদের উপর থেকে সব নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হলো।

অন্যদিকে, শর্তসাপেক্ষে নেপালকেও সদস্যপদ ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। ২০১৬ সালে তাদের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল আইসিসি। তারাও জিম্বাবুয়ের মতো একই দোষে দোষী ছিল। দেশটির ক্রিকেটে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপের কারণে তাদের এই শাস্তি দিয়েছিল আইসিসি।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

আইসিসির সদস্যপদ ফিরে পেল জিম্বাবুয়ে-নেপাল

প্রকাশের সময় : ১০:৫৯:৪০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯
মো: ইদ্রিস আলী :=

আইসিসির সদস্যপদ ফিরে পেল জিম্বাবুয়ে ও নেপাল। দুবাইয়ে বোর্ড মিটিং শেষে সোমবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। সদস্যপদ ফিরে পাওয়ায় আগামী জানুয়ারিতে অনুষ্ঠেয় আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে অংশ নিতে পারবে জিম্বাবুয়ে। এছাড়া ২০২০ সালে আইসিসি আইসিসি সুপার লিগেও তারা খেলতে পারবে।

বোর্ড মিটিংয়ে অংশ নিয়েছিলেন আইসিসি চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহর, জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের চেয়ারম্যান তাভেনগোয়া মুকুলানি, জিম্বাবুয়ে ক্রীড়ামন্ত্রী কার্স্টি কভেন্ট্রি এবং দেশটির স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রেয়েশন কমিশনের চেয়ারম্যান জেরাল্ড এমলোটসওয়া।

আইসিসি চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহর বলেছেন, জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটকে পুনরুদ্ধার করার দৃঢ় অঙ্গীকার করায় দেশটির ক্রীড়ামন্ত্রীকে আমি ধন্যবাদ জানাই। জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটের সমর্থনে কাজ করতে তার ইচ্ছাটা পরিষ্কার। আইসিসি বোর্ড যেগুলো নিয়ম বেঁধে দিয়েছে তিনি তা বিনা শর্তে মেনে নিয়েছেন।

গত জুলাইয়ে আফ্রিকার এই দেশটির সদস্যপদ স্থগিত করে আইসিসি। কারণ, জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট বোর্ড আইসিসি সংবিধানের ২.৪ (সি), ডি অনুচ্ছেদ ভঙ্গ করেছিল। ক্রিকেটে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ ঠেকাতে ব্যর্থতার জন্য শাস্তি হিসেবে জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল আইসিসি।

আইসিসি বলে দিয়েছিল যে, সদস্যপদ ফিরে না পাওয়া পর্যন্ত তারা আইসিসির কোনো ইভেন্টে অংশ নিতে পারবে না। তাছাড়া তাদের আইসিসি ফান্ডিংও স্থগিত থাকবে। তবে, সোমবার তাদের উপর থেকে সব নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হলো।

অন্যদিকে, শর্তসাপেক্ষে নেপালকেও সদস্যপদ ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। ২০১৬ সালে তাদের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল আইসিসি। তারাও জিম্বাবুয়ের মতো একই দোষে দোষী ছিল। দেশটির ক্রিকেটে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপের কারণে তাদের এই শাস্তি দিয়েছিল আইসিসি।