বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

খোকার আশা ছেড়ে দিয়েছেন ডাক্তাররা

আলহাজ্ব হাফিজুর রহমান:= 

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকার মেয়র সাদেক হোসেন খোকা জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে।

শুক্রবারও তার অবস্থা অপরিবর্তিত ছিল। চিকিৎসকরা যে কোনো সময়ে তাকে মৃত ঘোষণা করতে পারেন। শুক্রবার দেশ রূপান্তরকে এসব জানান খোকার ছেলে ও বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন।

তিনি বলেন, তার বাবা ক্যানসারে আক্রান্ত ২০১৪ সালের ২৪ মে চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে যান। এরপর ২০১৭ সালে তার পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হলে নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনস্যুলেট অফিসে নতুন পাসপোর্টের জন্য আবেদন করা হয়। তবে তাকে পাসপোর্ট দেওয়া হয়নি। এখন চিকিৎসকরা বাবাকে মৃত ঘোষণা করলে তার লাশ দেশে ফিরিয়ে আনা নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে। তাই বিষয়টি নিয়ে তারা চিন্তিত।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আব্দুস সালাম বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। হাসপাতালে খোকাসহ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে থাকছেন তিনি।

সন্ধ্যায় তিনি দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘খোকা ভাইয়ের অবস্থা ভালো না। চিকিৎসকরা তার আশা ছেড়ে দিয়েছেন। কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাস দিয়ে তাকে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে। এভাবে কয়েক দিন বুঝতে পারছি না। খোকা ভাই কথা বলতে পারছেন না। কথা বললে সাড়া দিচ্ছেন না’।

নিউইয়র্কের ম্যানহাটনের মেমোরিয়াল স্লোন ক্যাটারিং ক্যানসার সেন্টারে চিকিৎসাধীন খোকার সঙ্গে রয়েছেন তার স্ত্রী ইসমত হোসেন, মেয়ে সারিকা সাদেক, ছোট ছেলে ইশফাক হোসেন।

দীর্ঘ ৫ বছর খোকা নিউইয়র্কে হাসপাতালে বিশেষজ্ঞদের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। দীর্ঘদিন ওষুধ সেবনের ফলে খোকার মুখে ঘা হয়ে যায়। তিনি খাবার খেতে পারছিলেন না বিধায় ১৮ অক্টোবর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ডাক্তাররা তার শ্বাসনালিতে টিউমার দেখতে পান। ২৭ অক্টোবর তার শ্বাসনালির টিউমার অপসারণ করা হয়। এরপর থেকে তার অবস্থা অবনতির দিকে চলে যায়।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

খোকার আশা ছেড়ে দিয়েছেন ডাক্তাররা

প্রকাশের সময় : ০৭:১৮:৪৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ নভেম্বর ২০১৯
আলহাজ্ব হাফিজুর রহমান:= 

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকার মেয়র সাদেক হোসেন খোকা জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে।

শুক্রবারও তার অবস্থা অপরিবর্তিত ছিল। চিকিৎসকরা যে কোনো সময়ে তাকে মৃত ঘোষণা করতে পারেন। শুক্রবার দেশ রূপান্তরকে এসব জানান খোকার ছেলে ও বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন।

তিনি বলেন, তার বাবা ক্যানসারে আক্রান্ত ২০১৪ সালের ২৪ মে চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে যান। এরপর ২০১৭ সালে তার পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হলে নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনস্যুলেট অফিসে নতুন পাসপোর্টের জন্য আবেদন করা হয়। তবে তাকে পাসপোর্ট দেওয়া হয়নি। এখন চিকিৎসকরা বাবাকে মৃত ঘোষণা করলে তার লাশ দেশে ফিরিয়ে আনা নিয়ে জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে। তাই বিষয়টি নিয়ে তারা চিন্তিত।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আব্দুস সালাম বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। হাসপাতালে খোকাসহ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে থাকছেন তিনি।

সন্ধ্যায় তিনি দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘খোকা ভাইয়ের অবস্থা ভালো না। চিকিৎসকরা তার আশা ছেড়ে দিয়েছেন। কৃত্রিম শ্বাস-প্রশ্বাস দিয়ে তাকে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে। এভাবে কয়েক দিন বুঝতে পারছি না। খোকা ভাই কথা বলতে পারছেন না। কথা বললে সাড়া দিচ্ছেন না’।

নিউইয়র্কের ম্যানহাটনের মেমোরিয়াল স্লোন ক্যাটারিং ক্যানসার সেন্টারে চিকিৎসাধীন খোকার সঙ্গে রয়েছেন তার স্ত্রী ইসমত হোসেন, মেয়ে সারিকা সাদেক, ছোট ছেলে ইশফাক হোসেন।

দীর্ঘ ৫ বছর খোকা নিউইয়র্কে হাসপাতালে বিশেষজ্ঞদের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। দীর্ঘদিন ওষুধ সেবনের ফলে খোকার মুখে ঘা হয়ে যায়। তিনি খাবার খেতে পারছিলেন না বিধায় ১৮ অক্টোবর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ডাক্তাররা তার শ্বাসনালিতে টিউমার দেখতে পান। ২৭ অক্টোবর তার শ্বাসনালির টিউমার অপসারণ করা হয়। এরপর থেকে তার অবস্থা অবনতির দিকে চলে যায়।