শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

তরিকুল ইসলামের আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত যশোরে

আলহাজ্ব হাফিজুর রহমান :=

বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য, সাবেক মন্ত্রী, বরেণ্য রাজনীতিক মরহুম তরিকুল ইসলামের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে পরিবারের আয়োজনে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বাদআসর যশোর শহরের ঐতিহ্যবাহী দড়াটানা জামে মসজিদে ও ঘোপ পিলুখান রোডে তার বাসভবনে পৃথকভাবে এ দোয়া মাহফিল হয়। এছাড়া বাদজুমা যশোর সদর উপজেলার বিভিন্ন মসজিদে মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া হয়। ২০১৮ সালের ৪ নভেম্বর বরেণ্য এ রাজনীতিক মৃত্যুবরণ করেন।
বাদ আসর দড়াটানা জামে মসজিদে আয়োজিত দোয়া মাহফিলে যশোরের শীর্ষস্থানীয় আলেমরা বলেন, মানুষের দুনিয়ায় এমন কিছু আমল আছে, যে আমলের সুফল মৃত্যুর পরও কিয়ামত পর্যন্ত চলমান থাকে। সেটি হচ্ছে সদকায়ে জারিয়া। দুনিয়ায় যারা সদকায়ে জারিয়ার মতো আমল করে যাবেন মৃত্যুর পর কবরে তার আমলনামায় সওয়াব যেতে থাকবে। মরহুম তরিকুল ইসলামের বর্ণাঢ্য জীবনের কিছু উল্লেখযোগ্য দিক তুলে ধরে দড়াটানা মাদরাসার শাইখুল হাদিস মাওলানা রুহুল আমীন বলেন, তিনি একজন বিশাল মানবিক গুণেুর মানুষ ছিলেন। জীবদ্দশায় তিনি অনেক সদকায়ে জারিয়া করেছেন। মন্ত্রী থাকাকালীন যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের উন্নতিসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন। দড়াটানা জামে মসজিদসহ দ্বীনি প্রতিষ্ঠানের খেদমত করে গেছেন। দুনিয়ায় যারা এ ধরনের সদকায়ে জারিয়ার কাজ করেছেন তাদেরকে আখিরাতে আল্লাহ শান্তিতে রাখেন বলে কুরআন ও হাদিসে বর্ণনা আছে। মরহুম তরিকুল ইসলামকেও আল্লাহ তাঁর ভালো কাজের জন্য প্রতিদান দেবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি। তিনি তরিকুল ইসলামের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও তাঁর সন্তানসহ পরিবারের সকল সদস্যের দীর্ঘায়ূ কামনা করেন।
দড়াটানা মাদরাসার মুহতামিম প্রখ্যাত আলেম মুফতি মাওলানা মুজিবুর রহমান বলেন, দুনিয়ার জিন্দেগি খুবই ক্ষণস্থায়ী। যার মূল্য আল্লাহর কাছে কিছুই নেই। যে মানুষ দুনিয়ায় ভালো কাজ করে যাবেন, সে ব্যক্তি আখিরাতে তার প্রতিদান পাবেন। সাবেক মন্ত্রী তরিকুল ইসলাম এই যশোরের জন্য অনেক ভালো কাজ করেছেন। যেকারণে আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তাঁকে পরকালে এর পুরস্কার দেবেন, শান্তিতে রাখবেন। আলোচনা শেষে তিনি মরহুম তরিকুল ইসলাম ও তার পরিবারের মৃত্যুবরণকারী স্বজনদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করেন। এ সময় তিনি তরিকুল ইসলামের সন্তানদের ভবিষ্যত সফল কামনাসহ দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনা করে দোয়া করেন। দোয়া মাহফিলে মরহুমের ছোটভাই ডা. আমিনুল ইসলাম, বড় ছেলে লোকসমাজের প্রকাশক শান্তনু ইসলাম সুমিত, ছোট ছেলে বিএনপির খুলনা বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত ও মরহুমের ভাই-বোনদের সন্তান, স্বজন, শুভাকাঙ্খীসহ যশোরের বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, পেশাজীবী, সাংস্কৃতিক, সাংবাদিক নেতৃবৃন্দসহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষ অংশ নেন।
এদিকে পরিবারের আয়োজনে ঘোপ পিলু খান রোডে তরিকুল ইসলাম ও তার ভাই মরহুম সিরাজুল ইসলামের বাসভবন চত্বরে মহিলাদের জন্য একই সময়ে পৃথক দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। দোয়া মাহফিলে বিপুল সংখ্যক মহিলা অংশ নেন। দোয়া মাহফিলে তরিকুল ইসলামের সহধর্মিণী লোকসমাজের সম্পাদক ও যশোর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক নার্গিস বেগমসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্য অংশ নেন। এ সময় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন, যশোর জেলা ইমাম পরিষদের সাবেক সভাপতি মাওলানা মুফতি মো. আব্দুল মান্নান। একই দিনে শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে যশোর সদর উপজেলার হৈবতপুর, লেবুতলা, ইছালী, নওয়াপাড়া, উপশহর, কাশিমপুর, চুড়ামনকাটি, দেয়াড়া, আরবপুর, চাঁচড়া, রামনগর, ফতেপুর, কচুয়া, নরেন্দ্রপুর ও বসুন্দিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন মসজিদে স্থানীয় বিএনপির উদ্যোগে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

তরিকুল ইসলামের আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত যশোরে

প্রকাশের সময় : ০৭:৪৮:২১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ নভেম্বর ২০১৯
আলহাজ্ব হাফিজুর রহমান :=

বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য, সাবেক মন্ত্রী, বরেণ্য রাজনীতিক মরহুম তরিকুল ইসলামের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে পরিবারের আয়োজনে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বাদআসর যশোর শহরের ঐতিহ্যবাহী দড়াটানা জামে মসজিদে ও ঘোপ পিলুখান রোডে তার বাসভবনে পৃথকভাবে এ দোয়া মাহফিল হয়। এছাড়া বাদজুমা যশোর সদর উপজেলার বিভিন্ন মসজিদে মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া হয়। ২০১৮ সালের ৪ নভেম্বর বরেণ্য এ রাজনীতিক মৃত্যুবরণ করেন।
বাদ আসর দড়াটানা জামে মসজিদে আয়োজিত দোয়া মাহফিলে যশোরের শীর্ষস্থানীয় আলেমরা বলেন, মানুষের দুনিয়ায় এমন কিছু আমল আছে, যে আমলের সুফল মৃত্যুর পরও কিয়ামত পর্যন্ত চলমান থাকে। সেটি হচ্ছে সদকায়ে জারিয়া। দুনিয়ায় যারা সদকায়ে জারিয়ার মতো আমল করে যাবেন মৃত্যুর পর কবরে তার আমলনামায় সওয়াব যেতে থাকবে। মরহুম তরিকুল ইসলামের বর্ণাঢ্য জীবনের কিছু উল্লেখযোগ্য দিক তুলে ধরে দড়াটানা মাদরাসার শাইখুল হাদিস মাওলানা রুহুল আমীন বলেন, তিনি একজন বিশাল মানবিক গুণেুর মানুষ ছিলেন। জীবদ্দশায় তিনি অনেক সদকায়ে জারিয়া করেছেন। মন্ত্রী থাকাকালীন যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের উন্নতিসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন। দড়াটানা জামে মসজিদসহ দ্বীনি প্রতিষ্ঠানের খেদমত করে গেছেন। দুনিয়ায় যারা এ ধরনের সদকায়ে জারিয়ার কাজ করেছেন তাদেরকে আখিরাতে আল্লাহ শান্তিতে রাখেন বলে কুরআন ও হাদিসে বর্ণনা আছে। মরহুম তরিকুল ইসলামকেও আল্লাহ তাঁর ভালো কাজের জন্য প্রতিদান দেবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি। তিনি তরিকুল ইসলামের আত্মার মাগফিরাত কামনা ও তাঁর সন্তানসহ পরিবারের সকল সদস্যের দীর্ঘায়ূ কামনা করেন।
দড়াটানা মাদরাসার মুহতামিম প্রখ্যাত আলেম মুফতি মাওলানা মুজিবুর রহমান বলেন, দুনিয়ার জিন্দেগি খুবই ক্ষণস্থায়ী। যার মূল্য আল্লাহর কাছে কিছুই নেই। যে মানুষ দুনিয়ায় ভালো কাজ করে যাবেন, সে ব্যক্তি আখিরাতে তার প্রতিদান পাবেন। সাবেক মন্ত্রী তরিকুল ইসলাম এই যশোরের জন্য অনেক ভালো কাজ করেছেন। যেকারণে আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তাঁকে পরকালে এর পুরস্কার দেবেন, শান্তিতে রাখবেন। আলোচনা শেষে তিনি মরহুম তরিকুল ইসলাম ও তার পরিবারের মৃত্যুবরণকারী স্বজনদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করেন। এ সময় তিনি তরিকুল ইসলামের সন্তানদের ভবিষ্যত সফল কামনাসহ দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনা করে দোয়া করেন। দোয়া মাহফিলে মরহুমের ছোটভাই ডা. আমিনুল ইসলাম, বড় ছেলে লোকসমাজের প্রকাশক শান্তনু ইসলাম সুমিত, ছোট ছেলে বিএনপির খুলনা বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত ও মরহুমের ভাই-বোনদের সন্তান, স্বজন, শুভাকাঙ্খীসহ যশোরের বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, পেশাজীবী, সাংস্কৃতিক, সাংবাদিক নেতৃবৃন্দসহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষ অংশ নেন।
এদিকে পরিবারের আয়োজনে ঘোপ পিলু খান রোডে তরিকুল ইসলাম ও তার ভাই মরহুম সিরাজুল ইসলামের বাসভবন চত্বরে মহিলাদের জন্য একই সময়ে পৃথক দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। দোয়া মাহফিলে বিপুল সংখ্যক মহিলা অংশ নেন। দোয়া মাহফিলে তরিকুল ইসলামের সহধর্মিণী লোকসমাজের সম্পাদক ও যশোর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক নার্গিস বেগমসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্য অংশ নেন। এ সময় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। দোয়া পরিচালনা করেন, যশোর জেলা ইমাম পরিষদের সাবেক সভাপতি মাওলানা মুফতি মো. আব্দুল মান্নান। একই দিনে শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে যশোর সদর উপজেলার হৈবতপুর, লেবুতলা, ইছালী, নওয়াপাড়া, উপশহর, কাশিমপুর, চুড়ামনকাটি, দেয়াড়া, আরবপুর, চাঁচড়া, রামনগর, ফতেপুর, কচুয়া, নরেন্দ্রপুর ও বসুন্দিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন মসজিদে স্থানীয় বিএনপির উদ্যোগে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।