রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে ৫০ লাখ রুপি মুক্তিপণ আদায়”

কালিপদ দাস : কোলকাতা ব্যুরো :=

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এক বাংলাদেশি ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে একদল লোক ৫০ লাখ রুপি মুক্তিপণ আদায় করেছে। এ ঘটনায় ইতোমধ্যে কলকাতার এন্টালি থানায় ওই বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর পক্ষ থেকে একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।ভারতের সিনিয়র এক পুলিশ কর্মকর্তার বরাতে বুধবার (১৩ নভেম্বর) এই খবর প্রকাশ করেছে দেশটির সরকারি বার্তা সংস্থা ‘পিটিআই’।পুলিশ জানিয়েছে, ওই বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর নাম বশির মিয়া। জিম্মি করার পর তাকে পশ্চিমবঙ্গের চব্বিশ পরগণা জেলার হাবড়া এলাকার একটি অপরিচিত স্থানে রাখা হয়। আর মুক্তিপণ হিসেবে আদায় করা হয় ৫০ লাখ রুপি।পুলিশ আরও জানিয়েছে, স্ত্রীর জন্য কিছু গহনা কিনতে ডলার নিয়ে গত সপ্তাহে কলকাতায় যান বশির। এরপর ব্যবসায়িক প্রয়োজনে গত শনিবার শিয়ালদা এলাকার একটি বিপণিবিতানে কয়েকজন লোকের সঙ্গে দেখা করেন তিনি। সেখানে তারা সবাই মিলে দুপুরের খাবার খান। তারপর সবাই ব্যবসায়িক কাজে হাবড়ায় একজনের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ট্রেনে ওঠেন।এজাহারে উল্লেখ রয়েছে, বশির হাবড়ায় পৌঁছার পর অপহরণকারীরা তাকে অপরিচিত জায়গায় নিয়ে গিয়ে তার হাত বেঁধে ফেলে ও চোখ ঢেকে দেয়। তাদের চাপে বশির বাংলাদেশে নিজের বাবার কাছে ফোন করলে মুক্তিপণের জন্য তিনি ছয় লাখ রুপি দেন। পাশাপাশি বশিরের কাছে থাকা ৪৪ লাখ রুপির বিদেশি মুদ্রাও অপহরণকারীরা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে ৫০ লাখ রুপি মুক্তিপণ আদায়”

প্রকাশের সময় : ০৭:২০:৩১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯
কালিপদ দাস : কোলকাতা ব্যুরো :=

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এক বাংলাদেশি ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে একদল লোক ৫০ লাখ রুপি মুক্তিপণ আদায় করেছে। এ ঘটনায় ইতোমধ্যে কলকাতার এন্টালি থানায় ওই বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর পক্ষ থেকে একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।ভারতের সিনিয়র এক পুলিশ কর্মকর্তার বরাতে বুধবার (১৩ নভেম্বর) এই খবর প্রকাশ করেছে দেশটির সরকারি বার্তা সংস্থা ‘পিটিআই’।পুলিশ জানিয়েছে, ওই বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর নাম বশির মিয়া। জিম্মি করার পর তাকে পশ্চিমবঙ্গের চব্বিশ পরগণা জেলার হাবড়া এলাকার একটি অপরিচিত স্থানে রাখা হয়। আর মুক্তিপণ হিসেবে আদায় করা হয় ৫০ লাখ রুপি।পুলিশ আরও জানিয়েছে, স্ত্রীর জন্য কিছু গহনা কিনতে ডলার নিয়ে গত সপ্তাহে কলকাতায় যান বশির। এরপর ব্যবসায়িক প্রয়োজনে গত শনিবার শিয়ালদা এলাকার একটি বিপণিবিতানে কয়েকজন লোকের সঙ্গে দেখা করেন তিনি। সেখানে তারা সবাই মিলে দুপুরের খাবার খান। তারপর সবাই ব্যবসায়িক কাজে হাবড়ায় একজনের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ট্রেনে ওঠেন।এজাহারে উল্লেখ রয়েছে, বশির হাবড়ায় পৌঁছার পর অপহরণকারীরা তাকে অপরিচিত জায়গায় নিয়ে গিয়ে তার হাত বেঁধে ফেলে ও চোখ ঢেকে দেয়। তাদের চাপে বশির বাংলাদেশে নিজের বাবার কাছে ফোন করলে মুক্তিপণের জন্য তিনি ছয় লাখ রুপি দেন। পাশাপাশি বশিরের কাছে থাকা ৪৪ লাখ রুপির বিদেশি মুদ্রাও অপহরণকারীরা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।