বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অযোধ্যা রায় মেনে নিতে ১০০ মুসলিম ব্যক্তিত্বের আরজি

রোকনুজ্জামান রিপন :=

অযোধ্যার বাবরি মসজিদ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায়কে মেনে নিতে পারেনি ভারতের মুসলমানদের অনেকেই, তারা রায় পুনর্বিবেচনার দাবি জানিয়েছেন। এই সিদ্ধান্তের বিপক্ষে অবস্থান নিলেন অভিনেতা নাসিরুদ্দিন শাহ, শাবানা আজমিসহ ১০০ জন মুসলিম ব্যক্তিত্ব।

তাদের মধ্যে আরও রয়েছেন পণ্ডিত, সমাজ সেবক, আইনজীবী, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, কবি, অভিনেতা, চলচ্চিত্র নির্দেশক, থিয়েটার জগতের শিল্পী, সংগীত পরিচালক ও শিক্ষার্থী। তারা মনে করেন, যত দিন রাম জন্মভূমি ও বাবরি মসজিদের মামলা থাকবে, তত দিন মুসলমানদের আরও ক্ষতি হবে। পুনর্বিবেচনার আবেদন দায়েরের বিরোধিতা করে ওই চিঠিতে সবাই স্বাক্ষর করেন।

তারা বলেন, “ভারতীয় মুসলিম সম্প্রদায়, সংবিধানিক বিশেষজ্ঞ এবং ধর্মনিরপেক্ষ সংগঠন অখুশি হলেও  এটা মাথায় রাখতে হবে যে, দেশের সর্বোচ্চ বিচারালয় নিজের সিদ্ধান্ত জানানোর জন্য আইনের ওপর আস্থা রেখেছে।” আরও বলা হয়, অযোধ্যা বিবাদ জীবিত রাখার মানে হলো ভারতীয় মুসলমানদের আরও ক্ষতি ডেকে আনা এবং তাদের কোনোভাবেই সাহায্য না করা।

৯ নভেম্বর অযোধ্যা মামলার ‘ঐতিহাসিক’ রায়ে সুপ্রিম কোর্ট ২.৭৭ একর জমিতে রাম মন্দির গড়ে তোলার আদেশ দেয়। পাশাপাশি মসজিদের জন্য আলাদা জমি দেওয়ার কথা বলে। এই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার আরজি জানিয়েছে অল ইন্ডিয়া পার্সোনাল ল বোর্ড এবং জমিয়ত উলেমা-এ-হিন্দ।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

অযোধ্যা রায় মেনে নিতে ১০০ মুসলিম ব্যক্তিত্বের আরজি

প্রকাশের সময় : ০৬:৫৮:৫৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ নভেম্বর ২০১৯
রোকনুজ্জামান রিপন :=

অযোধ্যার বাবরি মসজিদ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায়কে মেনে নিতে পারেনি ভারতের মুসলমানদের অনেকেই, তারা রায় পুনর্বিবেচনার দাবি জানিয়েছেন। এই সিদ্ধান্তের বিপক্ষে অবস্থান নিলেন অভিনেতা নাসিরুদ্দিন শাহ, শাবানা আজমিসহ ১০০ জন মুসলিম ব্যক্তিত্ব।

তাদের মধ্যে আরও রয়েছেন পণ্ডিত, সমাজ সেবক, আইনজীবী, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, কবি, অভিনেতা, চলচ্চিত্র নির্দেশক, থিয়েটার জগতের শিল্পী, সংগীত পরিচালক ও শিক্ষার্থী। তারা মনে করেন, যত দিন রাম জন্মভূমি ও বাবরি মসজিদের মামলা থাকবে, তত দিন মুসলমানদের আরও ক্ষতি হবে। পুনর্বিবেচনার আবেদন দায়েরের বিরোধিতা করে ওই চিঠিতে সবাই স্বাক্ষর করেন।

তারা বলেন, “ভারতীয় মুসলিম সম্প্রদায়, সংবিধানিক বিশেষজ্ঞ এবং ধর্মনিরপেক্ষ সংগঠন অখুশি হলেও  এটা মাথায় রাখতে হবে যে, দেশের সর্বোচ্চ বিচারালয় নিজের সিদ্ধান্ত জানানোর জন্য আইনের ওপর আস্থা রেখেছে।” আরও বলা হয়, অযোধ্যা বিবাদ জীবিত রাখার মানে হলো ভারতীয় মুসলমানদের আরও ক্ষতি ডেকে আনা এবং তাদের কোনোভাবেই সাহায্য না করা।

৯ নভেম্বর অযোধ্যা মামলার ‘ঐতিহাসিক’ রায়ে সুপ্রিম কোর্ট ২.৭৭ একর জমিতে রাম মন্দির গড়ে তোলার আদেশ দেয়। পাশাপাশি মসজিদের জন্য আলাদা জমি দেওয়ার কথা বলে। এই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার আরজি জানিয়েছে অল ইন্ডিয়া পার্সোনাল ল বোর্ড এবং জমিয়ত উলেমা-এ-হিন্দ।