মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিএনপি নয়, সরকারই আদালত অবমাননা করেছে’

নুরুল ইসলাম :=

বিএনপি নয়, সরকারই আদালত অবমাননা করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল। তিনি বলেছেন, আদালতের আদেশ থাকা সত্ত্বেও খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য প্রতিবেদন সুপ্রিমকোর্টে নির্ধারিত দিনে উপস্থাপন না করে সরকার এবং অ্যাটর্নি জেনারেল আদালত অবমাননা করেছেন। শুক্রবার সকালে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘৯০-এর ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্রঐক্যে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় গতকাল খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার মেডিকেল বোর্ড রিপোর্ট না দেওয়ায় শুনানি এক সপ্তাহ পিছিয়ে ১২ ডিসেম্বর তারিখ ধার্য করেন আদালত। এ নিয়ে আদালতে হট্টগোল করেন বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা। একপর্যায়ে এজলাস থেকে উঠে যান প্রধান বিচারপতি ও অন্য বিচারপতিরা।

হট্টগোল করে বিএনপির আইনজীবীরা আদালত অবমাননা করেছেন বলে আওয়ামী লীগ নেতারা বক্তব্য দিচ্ছেন। এই অভিযোগ খণ্ডন করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, উল্টো সরকারই আদালত অবমাননা করেছে।মির্জা ফখরুল বলেন, চিকিৎসকরা বলছেন খালেদা জিয়া অত্যন্ত অসুস্থ। তার স্বাস্থ্যের যে অবস্থা তাতে তার প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে। এমতাবস্থায় দেশনেত্রীর কিছু হলে এর দায় সরকার ও সরকারপ্রধানকে নিতে হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে বিএনপি চেয়ারপারসনকে সাজা দিয়েছে। তাকে এখন জোর করে আটকে রেখেছে। দেশবাসী এটি কিছুতেই মেনে নেবে না। ১২ ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার জামিন না হলে বৃহত্তর গণআন্দোলন তৈরি করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে।

 

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

বিএনপি নয়, সরকারই আদালত অবমাননা করেছে’

প্রকাশের সময় : ০৪:৪৭:২০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯
নুরুল ইসলাম :=

বিএনপি নয়, সরকারই আদালত অবমাননা করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল। তিনি বলেছেন, আদালতের আদেশ থাকা সত্ত্বেও খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য প্রতিবেদন সুপ্রিমকোর্টে নির্ধারিত দিনে উপস্থাপন না করে সরকার এবং অ্যাটর্নি জেনারেল আদালত অবমাননা করেছেন। শুক্রবার সকালে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘৯০-এর ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্রঐক্যে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় গতকাল খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তার মেডিকেল বোর্ড রিপোর্ট না দেওয়ায় শুনানি এক সপ্তাহ পিছিয়ে ১২ ডিসেম্বর তারিখ ধার্য করেন আদালত। এ নিয়ে আদালতে হট্টগোল করেন বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা। একপর্যায়ে এজলাস থেকে উঠে যান প্রধান বিচারপতি ও অন্য বিচারপতিরা।

হট্টগোল করে বিএনপির আইনজীবীরা আদালত অবমাননা করেছেন বলে আওয়ামী লীগ নেতারা বক্তব্য দিচ্ছেন। এই অভিযোগ খণ্ডন করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, উল্টো সরকারই আদালত অবমাননা করেছে।মির্জা ফখরুল বলেন, চিকিৎসকরা বলছেন খালেদা জিয়া অত্যন্ত অসুস্থ। তার স্বাস্থ্যের যে অবস্থা তাতে তার প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে। এমতাবস্থায় দেশনেত্রীর কিছু হলে এর দায় সরকার ও সরকারপ্রধানকে নিতে হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে বিএনপি চেয়ারপারসনকে সাজা দিয়েছে। তাকে এখন জোর করে আটকে রেখেছে। দেশবাসী এটি কিছুতেই মেনে নেবে না। ১২ ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার জামিন না হলে বৃহত্তর গণআন্দোলন তৈরি করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে।