বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ছুটি কাটাতে কক্সবাজারে পর্যটকের ঢল

মনিরুল আলম মিশর :=

কক্সবাজার বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে অবস্হিত একটি পর্যটন শহর। কক্সবাজার তার নৈসর্গিক সৌন্দর্য্যের জন্য বিখ্যাত। এখানে রয়েছে বিশ্বের দীর্ঘতম অবিচ্ছিন্ন প্রাকৃতিক বালুময় সমুদ্র সৈকত, যার দৈর্ঘ্য ১২২ কি.মি পর্যন্ত বিস্তৃত।

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত অন্যদিকে সবুজ পাহাড়, প্রকৃতির অনাবিল সৌন্দর্যে ঘেরা। সমুদ্র সৈকতের এই সৌন্দর্যের টানে পর্য়টন মৌসুমের শুরুতে কক্সবাজারে ছুটে আসছে পর্যটকেরা।

এর সঙ্গে বিজয় দিবসের ছুটি যোগ হওয়ায় চলতি সপ্তাহে পর্যটন শহর কক্সবাজারে লাখো পর্যটকের ঢল নেমেছে।

শুধু কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতই নয়, রামুর বৌদ্ধ বিহার, হিমছড়ি, ইনানী, মহেশখালী, সোনাদিয়া ও ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কসহ জেলার পর্যটনকেন্দ্র গুলোতেও বিভিন্ন বয়সী মানুষের উপচে পড়া ভিড় জমেছে।

পর্যটকদের আগমনে কক্সবাজারের প্রায় চারশো হোটেল গেস্ট হাউজগুলোকেও সাজানো হয়েছে নতুন সাজে। অন্যদিকে পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমণ নিশ্চিত করতে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও জোরদার করেছে কক্সবাজার টুরিস্ট পুলিশ।

সমুদ্র সৈকতে ঘুরতে আসা এক পর্যটক বলেন, এত বিশাল সমুদ্রের সামনে এলেই মন ভালো হয়ে যায়। তাই ভ্রমণের কথা এলেই প্রথমেই চলে আসে কক্সবাজারের নাম। আসলেই ভ্রমণের জন্য অসাধারণ একটি জায়গা কক্সবাজার।

কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের পুলিশ সুপার (এসপি) জিল্লুর রহমান বলেন, পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমণ নিশ্চিত করতে টুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। পর্য়টকদের নিরাপত্তা দিতে রাত-দিন ২৪টি ঘণ্টা ট্যুরিস্ট পুলিশ কাজ করছে। পোশাকধারী ও সাদা পোশাকে দায়িত্ব পালন করছে ট্যুরিস্ট পুলিশের সদস্যরা। এছাড়া বিচ বাইক, বাই সাইকেল, জেডেস্কি টহলসহ বিভিন্নভাবে পর্যটকদের নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, শুধু কক্সবাজার সৈকত নয়, সৈকতের আশপাশে যেসব পর্যটন কেন্দ্রগুলো আছে হিমছড়ি, ইনানীসহ আশপাশের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে ট্যুরিস্ট পুলিশ সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে পর্যটকদের চাপ সামলানোর পাশাপাশি পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমণ নিশ্চিত করতে পোশাকধারী পুলিশ এবং ব্যস্ততম বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে সাদা পোশাকেও ট্যুরিস্ট পুলিশের সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

ছুটি কাটাতে কক্সবাজারে পর্যটকের ঢল

প্রকাশের সময় : ১০:৪৯:১২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৯
মনিরুল আলম মিশর :=

কক্সবাজার বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে অবস্হিত একটি পর্যটন শহর। কক্সবাজার তার নৈসর্গিক সৌন্দর্য্যের জন্য বিখ্যাত। এখানে রয়েছে বিশ্বের দীর্ঘতম অবিচ্ছিন্ন প্রাকৃতিক বালুময় সমুদ্র সৈকত, যার দৈর্ঘ্য ১২২ কি.মি পর্যন্ত বিস্তৃত।

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত অন্যদিকে সবুজ পাহাড়, প্রকৃতির অনাবিল সৌন্দর্যে ঘেরা। সমুদ্র সৈকতের এই সৌন্দর্যের টানে পর্য়টন মৌসুমের শুরুতে কক্সবাজারে ছুটে আসছে পর্যটকেরা।

এর সঙ্গে বিজয় দিবসের ছুটি যোগ হওয়ায় চলতি সপ্তাহে পর্যটন শহর কক্সবাজারে লাখো পর্যটকের ঢল নেমেছে।

শুধু কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতই নয়, রামুর বৌদ্ধ বিহার, হিমছড়ি, ইনানী, মহেশখালী, সোনাদিয়া ও ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কসহ জেলার পর্যটনকেন্দ্র গুলোতেও বিভিন্ন বয়সী মানুষের উপচে পড়া ভিড় জমেছে।

পর্যটকদের আগমনে কক্সবাজারের প্রায় চারশো হোটেল গেস্ট হাউজগুলোকেও সাজানো হয়েছে নতুন সাজে। অন্যদিকে পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমণ নিশ্চিত করতে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও জোরদার করেছে কক্সবাজার টুরিস্ট পুলিশ।

সমুদ্র সৈকতে ঘুরতে আসা এক পর্যটক বলেন, এত বিশাল সমুদ্রের সামনে এলেই মন ভালো হয়ে যায়। তাই ভ্রমণের কথা এলেই প্রথমেই চলে আসে কক্সবাজারের নাম। আসলেই ভ্রমণের জন্য অসাধারণ একটি জায়গা কক্সবাজার।

কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের পুলিশ সুপার (এসপি) জিল্লুর রহমান বলেন, পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমণ নিশ্চিত করতে টুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। পর্য়টকদের নিরাপত্তা দিতে রাত-দিন ২৪টি ঘণ্টা ট্যুরিস্ট পুলিশ কাজ করছে। পোশাকধারী ও সাদা পোশাকে দায়িত্ব পালন করছে ট্যুরিস্ট পুলিশের সদস্যরা। এছাড়া বিচ বাইক, বাই সাইকেল, জেডেস্কি টহলসহ বিভিন্নভাবে পর্যটকদের নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, শুধু কক্সবাজার সৈকত নয়, সৈকতের আশপাশে যেসব পর্যটন কেন্দ্রগুলো আছে হিমছড়ি, ইনানীসহ আশপাশের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে ট্যুরিস্ট পুলিশ সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে পর্যটকদের চাপ সামলানোর পাশাপাশি পর্যটকদের নিরাপদ ভ্রমণ নিশ্চিত করতে পোশাকধারী পুলিশ এবং ব্যস্ততম বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে সাদা পোশাকেও ট্যুরিস্ট পুলিশের সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছে।