মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যশোরে আওয়ামীলীগ নেতা শরীফ রাকিবের মৃত্যুবার্ষিকীতে আবেগঘন স্মরণ

যশোর ব্যুরো :=

সুবিধাবাদী বা নব্য আওয়ামী লীগাররা না, ত্যাগী আওয়ামী লীগ কর্মীদের মূল্যায়ন করতে হবে। প্রকৃত আওয়ামী লীগ কর্মীদের দ্বারা সারাদেশের গ্রাম থেকে শহর-সব পর্যায়ে আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন করতে হবে। ঐক্যবদ্ধ থেকে দলকে শক্তিশালী করতে হবে। যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট শরীফ আব্দুর রাকিবের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে রোববার জেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত স্মরণসভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। তারা আরও বলেন, শরীফ আব্দুর রাকিব তার ব্যক্তিত্বের গুণে জেলা আওয়ামী লীগকে দীর্ঘদিন নেতৃত্ব দিয়েছেন। চরম দুঃসময়েও তিনি দল ছেড়ে যাননি। ওয়ান ইলেভেনে জননেত্রী শেখ হাসিনার গ্রেফতারের প্রতিবাদে আটক হওয়া প্রথম রাজবন্দি ছিলেন শরীফ আব্দুর রাকিব। নতুন প্রজন্মকে তার মতো ত্যাগী নেতাদের সম্পর্কে জানতে হবে। তার আদর্শকে অনুসরণ করতে হবে। বক্তারা বলেন, অশুভ শক্তি ছোবল দেয়ার জন্য তৈরি রয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ থেকে তাদের মোকাবেলা করতে হবে। আবেগঘন স্মৃতিচারণ ও আলোচনার মধ্যে দিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা শরীফ আব্দুর রাকিবের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হয়। স্মরণসভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন। বক্তৃতা করেন সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল খালেক, সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার, যুগ্ম সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরী, ন্যাপ বাংলাদেশের প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট এনামুল হক, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সহসভাপতি মাহবুব আলম বাচ্চু, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি যশোর জেলা সভাপতি আবুল হোসেন, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি যশোর জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট আবু বকর সিদ্দিকী, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথ, সাধারণ সম্পাদক শাহারুল ইসলাম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান মিন্টু, শরীফ আব্দুর রাকিবের ভাই শরীফ রবিউল ইসলাম রবি, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নূরজাহান ইসলাম নীরা, আইনজীবী সমিতি যশোরের সভাপতি অ্যাডভোকেট ইদ্রিস আলী, আওয়ামী লীগ নেতা মোবাশ্বের হোসেন বাবু, ছাত্রলীগ প্রাক্তন সংসদ যশোর জেলা আহবায়ক সৈয়দ কবীর হোসেন জনি।এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খয়রাত হোসেন, গোলাম মোস্তফা, আলী রায়হান, শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মাহমুদ হাসান বিপু, সদর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান সেতারা খাতুন, জেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুনির হোসেন টগর, ইউপি চেয়ারম্যান নাসরিন সুলতানা খুশি, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক লাইজুজামান, যুব মহিলা লীগের জেলা সভাপতি মঞ্জুন্নাহার নাজনীন সোনালী, জেলা পরিষদের সদস্য হাজেরা পারভীনসহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মুন্সি মহিউদ্দিন।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

যশোরে আওয়ামীলীগ নেতা শরীফ রাকিবের মৃত্যুবার্ষিকীতে আবেগঘন স্মরণ

প্রকাশের সময় : ০৮:২৬:৪২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৩০ ডিসেম্বর ২০১৯
যশোর ব্যুরো :=

সুবিধাবাদী বা নব্য আওয়ামী লীগাররা না, ত্যাগী আওয়ামী লীগ কর্মীদের মূল্যায়ন করতে হবে। প্রকৃত আওয়ামী লীগ কর্মীদের দ্বারা সারাদেশের গ্রাম থেকে শহর-সব পর্যায়ে আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন করতে হবে। ঐক্যবদ্ধ থেকে দলকে শক্তিশালী করতে হবে। যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট শরীফ আব্দুর রাকিবের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে রোববার জেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত স্মরণসভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। তারা আরও বলেন, শরীফ আব্দুর রাকিব তার ব্যক্তিত্বের গুণে জেলা আওয়ামী লীগকে দীর্ঘদিন নেতৃত্ব দিয়েছেন। চরম দুঃসময়েও তিনি দল ছেড়ে যাননি। ওয়ান ইলেভেনে জননেত্রী শেখ হাসিনার গ্রেফতারের প্রতিবাদে আটক হওয়া প্রথম রাজবন্দি ছিলেন শরীফ আব্দুর রাকিব। নতুন প্রজন্মকে তার মতো ত্যাগী নেতাদের সম্পর্কে জানতে হবে। তার আদর্শকে অনুসরণ করতে হবে। বক্তারা বলেন, অশুভ শক্তি ছোবল দেয়ার জন্য তৈরি রয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ থেকে তাদের মোকাবেলা করতে হবে। আবেগঘন স্মৃতিচারণ ও আলোচনার মধ্যে দিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা শরীফ আব্দুর রাকিবের দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হয়। স্মরণসভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন। বক্তৃতা করেন সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল খালেক, সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার, যুগ্ম সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরী, ন্যাপ বাংলাদেশের প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট এনামুল হক, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় সহসভাপতি মাহবুব আলম বাচ্চু, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি যশোর জেলা সভাপতি আবুল হোসেন, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি যশোর জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট আবু বকর সিদ্দিকী, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথ, সাধারণ সম্পাদক শাহারুল ইসলাম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান মিন্টু, শরীফ আব্দুর রাকিবের ভাই শরীফ রবিউল ইসলাম রবি, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নূরজাহান ইসলাম নীরা, আইনজীবী সমিতি যশোরের সভাপতি অ্যাডভোকেট ইদ্রিস আলী, আওয়ামী লীগ নেতা মোবাশ্বের হোসেন বাবু, ছাত্রলীগ প্রাক্তন সংসদ যশোর জেলা আহবায়ক সৈয়দ কবীর হোসেন জনি।এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খয়রাত হোসেন, গোলাম মোস্তফা, আলী রায়হান, শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মাহমুদ হাসান বিপু, সদর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান সেতারা খাতুন, জেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুনির হোসেন টগর, ইউপি চেয়ারম্যান নাসরিন সুলতানা খুশি, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক লাইজুজামান, যুব মহিলা লীগের জেলা সভাপতি মঞ্জুন্নাহার নাজনীন সোনালী, জেলা পরিষদের সদস্য হাজেরা পারভীনসহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মুন্সি মহিউদ্দিন।