বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডিজিটাল বাংলাদেশ আর স্বপ্ন নয়ঃ তথ্যমন্ত্রী

সাজ্জাদুল ইসলাম সৌরভ :=

ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন আর স্বপ্ন নয়। কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানের ১১ বছর আগের ভিডিও ক্লিপ থাকলে দেখতে পাবেন। তখনকার ক্লিপ আর আজকের ক্লিপ অনেক চাকচিক্যময়।বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে আগারগাঁওয়ের বাংলাদেশ বেতার ভবনে বিশ্ব বেতার দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ একথা বলেন।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ২০০৮ সালে আমরা দু’টি স্বপ্নের কথা বলেছিলাম। একটি ডিজিটাল বাংলাদেশ ও আরেকটি দিনবদলের কথা। দুটিই বাস্তবায়িত হয়েছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আজকে আমরা ক্ষুধামুক্ত দেশ রচনা করেছি। ক্ষুধাকে আমরা জয় করেছি। আমি মনে করি, এখন আর ক্ষুধামুক্ত দেশ গড়ার স্লোগান দেওয়ার দরকার নেই। এখন সকাল-সন্ধ্যার পরে অলিতে-গলিতে কোনো ভিক্ষুকের ডাক শোনা যায় না।

তিনি বলেন, এখন ভোলার মনপুরা বা চর কুকরি-মুকরি থেকে ঢাকায় টেলিমেডিসিন সেবা হয়। ঢাকায় একজন কৃষক গাছে কোন পোকা লেগেছে সেটি ছবি তুলে জেলা কৃষি অফিসে পাঠান এবং মোবাইল ফোনে কৃষি অফিস থেকে পরামর্শ নেন, এটাই ডিজিটাল বাংলাদেশ।

তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, দিনাজপুরের বা টেকনাফের যে রিকশাওয়ালা ভাই ঢাকায় রিকশা চালায় বা যে ঢাকায় চাকরি করে, গ্রামে তার পরিবারের পাঁচশ’ টাকা দরকার হলে সে মোবাইল ফোনে টাকাটা পাঠিয়ে দিচ্ছে। এটাই ডিজিটাল বাংলাদেশ।

আলোচনায় তথ্য সচিব কামরুল নাহার, বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক হোসনে আরা তালুকদারসহ বাংলাদেশ বেতারের সর্বস্তরের কর্মকর্তা, শিল্পী কলাকুশলী ও সংবাদ পাঠক-পাঠিকা অংশ নেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

ডিজিটাল বাংলাদেশ আর স্বপ্ন নয়ঃ তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশের সময় : ০৬:৩৯:০০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২০
সাজ্জাদুল ইসলাম সৌরভ :=

ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন আর স্বপ্ন নয়। কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানের ১১ বছর আগের ভিডিও ক্লিপ থাকলে দেখতে পাবেন। তখনকার ক্লিপ আর আজকের ক্লিপ অনেক চাকচিক্যময়।বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে আগারগাঁওয়ের বাংলাদেশ বেতার ভবনে বিশ্ব বেতার দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ একথা বলেন।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ২০০৮ সালে আমরা দু’টি স্বপ্নের কথা বলেছিলাম। একটি ডিজিটাল বাংলাদেশ ও আরেকটি দিনবদলের কথা। দুটিই বাস্তবায়িত হয়েছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আজকে আমরা ক্ষুধামুক্ত দেশ রচনা করেছি। ক্ষুধাকে আমরা জয় করেছি। আমি মনে করি, এখন আর ক্ষুধামুক্ত দেশ গড়ার স্লোগান দেওয়ার দরকার নেই। এখন সকাল-সন্ধ্যার পরে অলিতে-গলিতে কোনো ভিক্ষুকের ডাক শোনা যায় না।

তিনি বলেন, এখন ভোলার মনপুরা বা চর কুকরি-মুকরি থেকে ঢাকায় টেলিমেডিসিন সেবা হয়। ঢাকায় একজন কৃষক গাছে কোন পোকা লেগেছে সেটি ছবি তুলে জেলা কৃষি অফিসে পাঠান এবং মোবাইল ফোনে কৃষি অফিস থেকে পরামর্শ নেন, এটাই ডিজিটাল বাংলাদেশ।

তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, দিনাজপুরের বা টেকনাফের যে রিকশাওয়ালা ভাই ঢাকায় রিকশা চালায় বা যে ঢাকায় চাকরি করে, গ্রামে তার পরিবারের পাঁচশ’ টাকা দরকার হলে সে মোবাইল ফোনে টাকাটা পাঠিয়ে দিচ্ছে। এটাই ডিজিটাল বাংলাদেশ।

আলোচনায় তথ্য সচিব কামরুল নাহার, বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক হোসনে আরা তালুকদারসহ বাংলাদেশ বেতারের সর্বস্তরের কর্মকর্তা, শিল্পী কলাকুশলী ও সংবাদ পাঠক-পাঠিকা অংশ নেন।