শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বেনাপোল পোর্ট থানা সেবার ক্ষেত্রে এগিয়ে

তানজীর মহসিন অংকন :=

যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানায় সেবা নিতে আসা মানুষের হাসি মুখে অভ্যর্থনার পাশাপাশি চকলেট দিয়ে আপ্যায়ন করেন থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মামুন খান। তিনি থানায় আগতদের অপ্যায়নের জন্য টেবিলের উপরেই রেখে দিয়েছেন চকলেট। যেকোনো প্রয়োজনে থানায় আসা প্রত্যেক মানুষ আপ্যায়ন হিসাবে পাচ্ছেন চকলেট। পুলিশের কাছ থেকে এমন ব্যবহার ও আপ্যায়ন যেন আগামীতেও অব্যাহত থাকে ওসির কাছে এমন প্রত্যাশা এলাকাবাসীর।

বেনাপোল ভবারবেড় গ্রামের মনির হোসেন বলেন, কিছুদিন আগে আমার কিছু জরুরী কাগজ হারিয়ে যায় এজন্য আমি থানায় গিয়েছিলাম। টাকা-পয়সা ছাড়াই জিডি করেছি। আর উপহার হিসেবে পেয়েছি চকলেট। ওসির এমন ব্যবহার পেয়ে আমরা খুবই আনন্দিত।

বেনাপোল পোর্ট থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই পিন্টু লাল দাস জানান, থানায় আসা প্রতিটি মানুষের চকলেট দিয়ে আপ্যায়নের নিয়ম চালু করেছেন। তাই থানায় এরকম ব্যবহার ও আপ্যায়ন পেয়ে সেবা গ্রহনকারীরাও খুশি। এছাড়া তিনি প্রতিটি মানুষের সাথে খারাপ ব্যবহার না করার জন্যও সবাইকে সতর্ক করেছেন।

মোছাঃ জেরিন আনান বলেন, আমি একটি জিডি করার জন্য কিছুদিন আগে থানায় গিয়েছিলাম। ভালো ব্যবহার এবং তৎক্ষনিক আমার কাজটি সম্পুর্ন করে দেন পোর্ট থানা পুলিশ। আগে থানায় গেলে ভালো ব্যবহার করতো না এখন ব্যবহার ভালো করছে এবং ওসি সাহেব নিজে আমার মেয়ে ওয়াফাকে চকলেট দিয়েছে। এমন ব্যবহার আমরা চেয়েছিলাম যা ওসি মামুন খান এর কাছ থেকে পেয়েছি।বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের এমন ব্যবহার পেয়ে আমরা খুবই আনন্দিত।

ওসি মামুন খান সংবাদকর্মীদের বলেন, থানায় কেউ শখ করে ঘুরতে আসে না। মানুষ বিপদে পড়লেই থানায় আসে। তাই তাদের সেবা প্রদানের পাশাপাশি চকলেট দিয়ে আপ্যায়ন করার ব্যবস্থা করেছি।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

ব্রায়ান লারার অপরাজিত ৪০০ রানের রেকর্ড, দু’দশক আজ

বেনাপোল পোর্ট থানা সেবার ক্ষেত্রে এগিয়ে

প্রকাশের সময় : ০৫:০২:৫৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২০
তানজীর মহসিন অংকন :=

যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানায় সেবা নিতে আসা মানুষের হাসি মুখে অভ্যর্থনার পাশাপাশি চকলেট দিয়ে আপ্যায়ন করেন থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মামুন খান। তিনি থানায় আগতদের অপ্যায়নের জন্য টেবিলের উপরেই রেখে দিয়েছেন চকলেট। যেকোনো প্রয়োজনে থানায় আসা প্রত্যেক মানুষ আপ্যায়ন হিসাবে পাচ্ছেন চকলেট। পুলিশের কাছ থেকে এমন ব্যবহার ও আপ্যায়ন যেন আগামীতেও অব্যাহত থাকে ওসির কাছে এমন প্রত্যাশা এলাকাবাসীর।

বেনাপোল ভবারবেড় গ্রামের মনির হোসেন বলেন, কিছুদিন আগে আমার কিছু জরুরী কাগজ হারিয়ে যায় এজন্য আমি থানায় গিয়েছিলাম। টাকা-পয়সা ছাড়াই জিডি করেছি। আর উপহার হিসেবে পেয়েছি চকলেট। ওসির এমন ব্যবহার পেয়ে আমরা খুবই আনন্দিত।

বেনাপোল পোর্ট থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই পিন্টু লাল দাস জানান, থানায় আসা প্রতিটি মানুষের চকলেট দিয়ে আপ্যায়নের নিয়ম চালু করেছেন। তাই থানায় এরকম ব্যবহার ও আপ্যায়ন পেয়ে সেবা গ্রহনকারীরাও খুশি। এছাড়া তিনি প্রতিটি মানুষের সাথে খারাপ ব্যবহার না করার জন্যও সবাইকে সতর্ক করেছেন।

মোছাঃ জেরিন আনান বলেন, আমি একটি জিডি করার জন্য কিছুদিন আগে থানায় গিয়েছিলাম। ভালো ব্যবহার এবং তৎক্ষনিক আমার কাজটি সম্পুর্ন করে দেন পোর্ট থানা পুলিশ। আগে থানায় গেলে ভালো ব্যবহার করতো না এখন ব্যবহার ভালো করছে এবং ওসি সাহেব নিজে আমার মেয়ে ওয়াফাকে চকলেট দিয়েছে। এমন ব্যবহার আমরা চেয়েছিলাম যা ওসি মামুন খান এর কাছ থেকে পেয়েছি।বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের এমন ব্যবহার পেয়ে আমরা খুবই আনন্দিত।

ওসি মামুন খান সংবাদকর্মীদের বলেন, থানায় কেউ শখ করে ঘুরতে আসে না। মানুষ বিপদে পড়লেই থানায় আসে। তাই তাদের সেবা প্রদানের পাশাপাশি চকলেট দিয়ে আপ্যায়ন করার ব্যবস্থা করেছি।