শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

যশোরে ইমরান হোসেন মুন্না নামে এক মাছ ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাত করে খুন করেছে দুর্বৃত্তরা

যশোর ব্যুরো :=
যশোর শহরের মাছ বাজার এলাকায় বুধবার রাতে ইমরান হোসেন মুন্না (২৭) নামে এক মাছ ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাত করে খুন করেছে দুর্বৃত্তরা। নিহত মুন্না শহরের চুড়িপট্টি এলাকার মৃত আফতাব হোসেন হিরুর ছেলে।

নিহতের বড় ভাই সাদেকুল ইসলাম জানান, মুন্না মাছ বাজারের ‘সেন্ট মার্টিন ফিস’ ও ‘আবুল খায়ের ফিস’ নামক দুইটি মাছের আড়তের অংশীদার ছিলেন। প্রতিষ্ঠানের বকেয়া টাকা কালেকশন করতে বুধবার রাত সাত টার দিকে মুন্না মাছ বাজারের আদমের চায়ের দোকানের সামনে গেলে ওই এলাকার পলাশসহ তিন-চার জন দুবৃত্ব তাকে এলাপাতারি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত আট টায় তার মৃত্যু হয়। ডাক্তার মাহমুদুল হাসান পান্নু তাকে মৃত্যু নিশ্চিত করেছেন।

তিনি আরো জানান, ৪ দিন আগে এক যুবককে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় পুলিশ পলাশসহ বেশ কয়েকজনকে তাড়া করে। সে সময় মুন্না পুলিশকে তাদের আটক করতে সহযোগিতা করার ঘটনায় মুন্নাকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়।
জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত ডাক্তার মাহাবুবুর রহমান বলেন, মুন্নাকে জরুরি বিভাগে আশংকাজনক অবস্থায় আনা হয়। তার বাম পায়ের উরু ও দুহাতে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে। তার শরীর থেকে প্রচুর রক্ত রণ হয়েছে। তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিয়ে ওয়ার্ডে পাঠানোর কিছু সময় পর তার মৃত্যু হয়।
যশোর কোতয়ালী থানার ওসি মনিরুজ্জামান জানান, তবে বাজার কেন্দ্রীক দ্বন্দের জের ধরে মুন্না খুন হতে পারে। মুন্না হত্যার কারণ উদঘাটনের জন্য জড়িতদের আটকের জন্য পুলিশ অভিযান জোরদার করেছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

যশোরে ইমরান হোসেন মুন্না নামে এক মাছ ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাত করে খুন করেছে দুর্বৃত্তরা

প্রকাশের সময় : ১১:০৫:৩৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০
যশোর ব্যুরো :=
যশোর শহরের মাছ বাজার এলাকায় বুধবার রাতে ইমরান হোসেন মুন্না (২৭) নামে এক মাছ ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাত করে খুন করেছে দুর্বৃত্তরা। নিহত মুন্না শহরের চুড়িপট্টি এলাকার মৃত আফতাব হোসেন হিরুর ছেলে।

নিহতের বড় ভাই সাদেকুল ইসলাম জানান, মুন্না মাছ বাজারের ‘সেন্ট মার্টিন ফিস’ ও ‘আবুল খায়ের ফিস’ নামক দুইটি মাছের আড়তের অংশীদার ছিলেন। প্রতিষ্ঠানের বকেয়া টাকা কালেকশন করতে বুধবার রাত সাত টার দিকে মুন্না মাছ বাজারের আদমের চায়ের দোকানের সামনে গেলে ওই এলাকার পলাশসহ তিন-চার জন দুবৃত্ব তাকে এলাপাতারি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত আট টায় তার মৃত্যু হয়। ডাক্তার মাহমুদুল হাসান পান্নু তাকে মৃত্যু নিশ্চিত করেছেন।

তিনি আরো জানান, ৪ দিন আগে এক যুবককে ছুরিকাঘাতের ঘটনায় পুলিশ পলাশসহ বেশ কয়েকজনকে তাড়া করে। সে সময় মুন্না পুলিশকে তাদের আটক করতে সহযোগিতা করার ঘটনায় মুন্নাকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হয়।
জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত ডাক্তার মাহাবুবুর রহমান বলেন, মুন্নাকে জরুরি বিভাগে আশংকাজনক অবস্থায় আনা হয়। তার বাম পায়ের উরু ও দুহাতে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে। তার শরীর থেকে প্রচুর রক্ত রণ হয়েছে। তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিয়ে ওয়ার্ডে পাঠানোর কিছু সময় পর তার মৃত্যু হয়।
যশোর কোতয়ালী থানার ওসি মনিরুজ্জামান জানান, তবে বাজার কেন্দ্রীক দ্বন্দের জের ধরে মুন্না খুন হতে পারে। মুন্না হত্যার কারণ উদঘাটনের জন্য জড়িতদের আটকের জন্য পুলিশ অভিযান জোরদার করেছে।