শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সুনামগঞ্জে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে এক যুবকের মৃত্যু

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :==
সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার লক্ষিপুর ইউনিয়নের বক্তরপুর গ্রামে শর্দি-জ্বর ও শ্বাসকষ্ট জনিত কারণে আব্দুস সালাম(২২)নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।
মঙ্গলবার রাত সোয়া নয়টায় উপজেলার লক্ষিপুর ইউনিয়নের বক্তরপুর গ্রামের নিজ বাড়িতে মৃত্যু হয়।
লক্ষিপু্র ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমিরুল হক এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।  করোনাভাইরাসের লক্ষণ শর্দি-জ্বর ও শ্বাসকষ্টে তার মৃত্যু হওয়ায় গ্রামের মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে মৃতের বাড়িতে কাউকে যেতে নিষেধ করা হয়েছে গ্রাম পঞ্চায়েতের পক্ষ থেকে।
এছাড়াও ঐ বাড়ি লক ডাউন করেছে উপজেলা প্রশাসন। ২২বছর বয়সের ঐ যুবকটি নরসিংদী জেলায় একটি ইট ভাটায় শ্রমিকের কাজ করতো বলে স্থানীয় এলাকাবাসী জানান। বাড়ি আসার পর কিছু দিন ধরে সে সর্দি-জ্বর ও কাশিতে আক্রন্ত ছিল।
দোয়ারা বাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মকর্তা ডাঃ দেলোয়ার হোসেন নিহতের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে  জানান,নিহতের সমুনা সংগ্রহ করা হবে। পরে জানানো হবে সে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ছিল কি না।
জেলা সিভিল সার্জন মো. শামস উদ্দিন জানান, যেহেতু আবদুস সালামের করোনার উপসর্গ ছিল তাই তার নমুনা সংগ্রহ করা হবে। একই সঙ্গে স্বাস্থ্যবিভাগের নির্দেশনা অনুসারে তার দাফন করা হবে।
দোয়ারাবাজার উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সোনিয়া সুলতানা জানান,করোনার উপসর্গ নিয়ে যেহেতু মারা গেছেন তাই আমরা মৃত ব্যক্তি ও তার পরিবারের সকলের নমুনা সংগ্রহ করে কোভিড-১৯ পরীক্ষার জন্য পাঠাবো। তাছাড়া সবার মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে না পড়ে এবং সবার নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে মৃতব্যক্তির বাড়িসহ আশেপাশের ১২টি বাড়ি লোকডাউন করার নির্দেশনা দিয়ে মাইকিং করিয়েছি।
 মৃত পরিবার  আমাদের জানিয়েছেন তিনি আগে থেকেই শ্বাশকষ্টের রোগী ছিলেন এবং প্রায় সময় অসুস্থ থাকতেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

সুনামগঞ্জে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে এক যুবকের মৃত্যু

প্রকাশের সময় : ১০:৩২:৩৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৮ এপ্রিল ২০২০
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :==
সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার লক্ষিপুর ইউনিয়নের বক্তরপুর গ্রামে শর্দি-জ্বর ও শ্বাসকষ্ট জনিত কারণে আব্দুস সালাম(২২)নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।
মঙ্গলবার রাত সোয়া নয়টায় উপজেলার লক্ষিপুর ইউনিয়নের বক্তরপুর গ্রামের নিজ বাড়িতে মৃত্যু হয়।
লক্ষিপু্র ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমিরুল হক এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।  করোনাভাইরাসের লক্ষণ শর্দি-জ্বর ও শ্বাসকষ্টে তার মৃত্যু হওয়ায় গ্রামের মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে মৃতের বাড়িতে কাউকে যেতে নিষেধ করা হয়েছে গ্রাম পঞ্চায়েতের পক্ষ থেকে।
এছাড়াও ঐ বাড়ি লক ডাউন করেছে উপজেলা প্রশাসন। ২২বছর বয়সের ঐ যুবকটি নরসিংদী জেলায় একটি ইট ভাটায় শ্রমিকের কাজ করতো বলে স্থানীয় এলাকাবাসী জানান। বাড়ি আসার পর কিছু দিন ধরে সে সর্দি-জ্বর ও কাশিতে আক্রন্ত ছিল।
দোয়ারা বাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মকর্তা ডাঃ দেলোয়ার হোসেন নিহতের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে  জানান,নিহতের সমুনা সংগ্রহ করা হবে। পরে জানানো হবে সে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ছিল কি না।
জেলা সিভিল সার্জন মো. শামস উদ্দিন জানান, যেহেতু আবদুস সালামের করোনার উপসর্গ ছিল তাই তার নমুনা সংগ্রহ করা হবে। একই সঙ্গে স্বাস্থ্যবিভাগের নির্দেশনা অনুসারে তার দাফন করা হবে।
দোয়ারাবাজার উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সোনিয়া সুলতানা জানান,করোনার উপসর্গ নিয়ে যেহেতু মারা গেছেন তাই আমরা মৃত ব্যক্তি ও তার পরিবারের সকলের নমুনা সংগ্রহ করে কোভিড-১৯ পরীক্ষার জন্য পাঠাবো। তাছাড়া সবার মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে না পড়ে এবং সবার নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে মৃতব্যক্তির বাড়িসহ আশেপাশের ১২টি বাড়ি লোকডাউন করার নির্দেশনা দিয়ে মাইকিং করিয়েছি।
 মৃত পরিবার  আমাদের জানিয়েছেন তিনি আগে থেকেই শ্বাশকষ্টের রোগী ছিলেন এবং প্রায় সময় অসুস্থ থাকতেন।