মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

প্রশাসন ও বন্ধর কর্তৃপক্ষের সম্মতিতে সকল বন্দর এলাকায় ব্যাংক খোলা রাখতে হবে

নুরুজ্জামান লিটন ।। 

করোনাভাইরাসের কারণে দেশে চলমান সাধারণ ছুটির মধ্যে দেশের সবশিল্প এলাকায় ব্যাংকের শাখা সীমিত আকারে খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। একইসাথে যেসব ব্যাংকের অনলাইন সুবিধা নেই তাদের সব শাখা খোলা সীমিত আকারে রাখতে হবে। পাশাপাশি সব ব্যাংকের প্রত্যেক জেলা সদরে অন্তত একটি শাখা খোলা রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

তবে স্থানীয় প্রশাসন যেখানে করোনাভাইরাসের কারণে লকডাউন দেবে সেসব এলাকায় স্থানীয় প্রশাসনের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে কমপক্ষে একটি শাখা খোলা রাখতে হবে। পাশাপাশি এটিএম বুথগুলোতে পর্যাপ্ত টাকা সরবরাহ করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এমন নির্দেশনা দিয়ে সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীকে অবহিত করা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, তৈরী পোশাকসহ শিল্পঘন এলাকায় শ্রমিকের বেতন পরিশোধে অসুবিধা হচ্ছে। কিন্তু বেশিরভাগ ব্যাংকই নানা অজুহাতে ব্যাংকের শাখা বন্ধ রেখেছে। এ কারণে শ্রমিকদের বেতনভাতা প্রদানের সুবিধার্থেই এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সার্কুলারে বলা হয়েছে, অনলাইন সুবিধা আছে এমন ব্যাংকগুলো গ্রাহকের সুবিধা বিবেচনায় নিয়ে প্রয়োজনীয় সংখ্যক শাখা খোলা রাখবে। তবে যেসব ব্যাংকের অনলাইন সুবিধা নেই তাদের সব শাখা খোলা রাখতে হবে।

জেলা সদর জেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থান বিবেচনায় ব্যাংকের শাখা অন্তত একটি খোলা রাখতে হবে। একই সাথে মহারগর ও বিভাগীয় পর্যায়ে সব এডি শাখা (যেখানে বৈদেশিক লেনেদেন সম্পূর্ণ হয়) খোলা রাখতে হবে। তবে দেশের অন্যান্য এলাকায় নিজ বিবেচনায় নির্বাচিত এডি শাখা খোলা রাখতে হবে। এছাড়া স্থানীয় প্রশাসন ও বন্ধর কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে সমুদ্র, স্থল, বিমান বন্দর এলাকায় ব্যাংক শাখা খোলা রাখতে হবে।

তবে স্থানীয় প্রশাসন যেখানে করোনাভাইরাসের কারণে লকডাউন দেবে সেসব এলাকায় স্থানীয় প্রশাসনের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে কমপক্ষে একটি শাখা খোলা রাখতে হবে। পাশাপাশি এটিএম বুথগুলোতে পর্যাপ্ত টাকা সরবরাহ করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

প্রশাসন ও বন্ধর কর্তৃপক্ষের সম্মতিতে সকল বন্দর এলাকায় ব্যাংক খোলা রাখতে হবে

প্রকাশের সময় : ০৭:১৫:৩২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৬ এপ্রিল ২০২০
নুরুজ্জামান লিটন ।। 

করোনাভাইরাসের কারণে দেশে চলমান সাধারণ ছুটির মধ্যে দেশের সবশিল্প এলাকায় ব্যাংকের শাখা সীমিত আকারে খোলা রাখার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। একইসাথে যেসব ব্যাংকের অনলাইন সুবিধা নেই তাদের সব শাখা খোলা সীমিত আকারে রাখতে হবে। পাশাপাশি সব ব্যাংকের প্রত্যেক জেলা সদরে অন্তত একটি শাখা খোলা রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

তবে স্থানীয় প্রশাসন যেখানে করোনাভাইরাসের কারণে লকডাউন দেবে সেসব এলাকায় স্থানীয় প্রশাসনের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে কমপক্ষে একটি শাখা খোলা রাখতে হবে। পাশাপাশি এটিএম বুথগুলোতে পর্যাপ্ত টাকা সরবরাহ করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এমন নির্দেশনা দিয়ে সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীকে অবহিত করা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, তৈরী পোশাকসহ শিল্পঘন এলাকায় শ্রমিকের বেতন পরিশোধে অসুবিধা হচ্ছে। কিন্তু বেশিরভাগ ব্যাংকই নানা অজুহাতে ব্যাংকের শাখা বন্ধ রেখেছে। এ কারণে শ্রমিকদের বেতনভাতা প্রদানের সুবিধার্থেই এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সার্কুলারে বলা হয়েছে, অনলাইন সুবিধা আছে এমন ব্যাংকগুলো গ্রাহকের সুবিধা বিবেচনায় নিয়ে প্রয়োজনীয় সংখ্যক শাখা খোলা রাখবে। তবে যেসব ব্যাংকের অনলাইন সুবিধা নেই তাদের সব শাখা খোলা রাখতে হবে।

জেলা সদর জেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থান বিবেচনায় ব্যাংকের শাখা অন্তত একটি খোলা রাখতে হবে। একই সাথে মহারগর ও বিভাগীয় পর্যায়ে সব এডি শাখা (যেখানে বৈদেশিক লেনেদেন সম্পূর্ণ হয়) খোলা রাখতে হবে। তবে দেশের অন্যান্য এলাকায় নিজ বিবেচনায় নির্বাচিত এডি শাখা খোলা রাখতে হবে। এছাড়া স্থানীয় প্রশাসন ও বন্ধর কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে সমুদ্র, স্থল, বিমান বন্দর এলাকায় ব্যাংক শাখা খোলা রাখতে হবে।

তবে স্থানীয় প্রশাসন যেখানে করোনাভাইরাসের কারণে লকডাউন দেবে সেসব এলাকায় স্থানীয় প্রশাসনের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে কমপক্ষে একটি শাখা খোলা রাখতে হবে। পাশাপাশি এটিএম বুথগুলোতে পর্যাপ্ত টাকা সরবরাহ করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।