সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

করোনা সন্দেহ হলে যা করবেন

অফসরাহ মহসিন ।। 

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকে সাধারণ মানুষকে বিভিন্নভাবে পরামর্শ দিয়ে আসছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। কারণ এই রোগের এখনও কোনও প্রতিষেধক বা টিকা আবিষ্কার হয়নি। এই ভাইরাস থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় হচ্ছে প্রতিরোধ ও ঘরে থাকা।

শরীরে হালকা জ্বর, খুশ খুশ করে কাশি হচ্ছে?- শরীরের এমন অবস্থায় সন্দেহ হতে পারে, করোনা নয় তো? কারণ বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই করোনার কারণে সৃষ্ট রোগ কোভিড–১৯–এর প্রকাশ ঘটে জ্বরের মাধ্যমে। এমন অবস্থায় কী করবেন? জ্বর হলেই হাসপাতালে ছুটবেন?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, না, জ্বর হলেই হাসপাতালে ছুটবেন না। এই আবহাওয়ায় জ্বর, ঠাণ্ডা কাশি হতে পারে। এ নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। যদি সিজনাল না হয়, করোনাই হয় তাহলে এই রোগ খুবই সংক্রামক। এতে একজন থেকে অন্যজন, এমনকি হাসপাতালের অন্য রোগীরাও আক্রান্ত হতে পারেন।

তাহলে এমন অবস্থায় করণীয় কী? 

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) জানিয়েছে, সন্দেহভাজন রোগীকে প্রাথমিকভাবে ঘরেই থাকতে হবে। এই রোগ নিয়ে এত আতঙ্কের কারণ হচ্ছে এখন পর্যন্ত এর কোনও টিকা বা প্রতিষেধক আবিষ্কৃত হয়নি। চিকিৎসার শরু হয় লক্ষণ দেখে।

আইইডিসিআরের তথ্য অনুযায়ী, এই ভাইরাস শরীরে ঢোকার পর সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিতে ২ থেকে ১৪ দিন সময় লাগে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে প্রথম লক্ষণ হয় জ্বর। এ ছাড়া শুকনো কাশি বা গলাব্যথা হতে পারে।

এ বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিওএইচও) কিছু পরামর্শ দিয়েছে। করোনা হানা দিয়েছে তা সন্দেহ বা আক্রান্ত হলে কী করবেন?

১. আক্রান্ত ব্যক্তির যথেষ্ট বিশ্রাম প্রয়োজন, পুষ্টিকর খাবার খান ও প্রচুর পানি আর তরল পান করুন।

২. রোগী ও যিনি সেবা করবেন, দুজনে ঘরে মেডিকেল মাস্ক পরবেন। হাত দিয়ে মাস্ক স্পর্শ করা, মুখে হাত দেয়া থেকে বিরত থাকুন। কাজ শেষে মাস্ক ফেলে দেবেন ময়লার ঝুড়িতে।

৩. অসুস্থ ব্যক্তির সংস্পর্শে বা এর চারপাশের সংস্পর্শে এলে খাবার তৈরির আগে, খাবার খেতে বসার আগে এবং টয়লেট ব্যবহারের পর সাবান পানি দিয়ে বা স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুয়ে নিন।

৪. আক্রান্ত ব্যক্তির বাসনপত্র, তোয়ালে ও বিছানার চাদর সাবান দিয়ে ধুতে হবে। অসুস্থ ব্যক্তি যা যা হাত দিয়ে স্পর্শ করবেন, সেগুলো বারবার জীবাণু শোধন করুন।

৫. অসুস্থ ব্যক্তির অবস্থা খারাপের দিকে গেলে বা শ্বাসকষ্ট হলে স্বাস্থ্যসেবাকেন্দ্রে ফোন করুন।

হটলাইন নম্বর:

স্বাস্থ্য বাতায়ন – স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

১৬২৬৩

এটুআই প্রোগ্রাম, আইসিটি ডিভিশন

৩৩৩

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট

১০৬৫৫,  +৮৮০ ১৯৪৪৩৩৩২২২,  +৮৮০ ১৯৩৭০০০০১১,  +৮৮০ ১৯৩৭১১০০১১,  +৮৮০ ১৯২৭৭১১৭৮৪,  +৮৮০ ১৯২৭৭১১৭৮৫

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

করোনা সন্দেহ হলে যা করবেন

প্রকাশের সময় : ০৪:৪৫:৪৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ এপ্রিল ২০২০

অফসরাহ মহসিন ।। 

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকে সাধারণ মানুষকে বিভিন্নভাবে পরামর্শ দিয়ে আসছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। কারণ এই রোগের এখনও কোনও প্রতিষেধক বা টিকা আবিষ্কার হয়নি। এই ভাইরাস থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় হচ্ছে প্রতিরোধ ও ঘরে থাকা।

শরীরে হালকা জ্বর, খুশ খুশ করে কাশি হচ্ছে?- শরীরের এমন অবস্থায় সন্দেহ হতে পারে, করোনা নয় তো? কারণ বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই করোনার কারণে সৃষ্ট রোগ কোভিড–১৯–এর প্রকাশ ঘটে জ্বরের মাধ্যমে। এমন অবস্থায় কী করবেন? জ্বর হলেই হাসপাতালে ছুটবেন?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, না, জ্বর হলেই হাসপাতালে ছুটবেন না। এই আবহাওয়ায় জ্বর, ঠাণ্ডা কাশি হতে পারে। এ নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। যদি সিজনাল না হয়, করোনাই হয় তাহলে এই রোগ খুবই সংক্রামক। এতে একজন থেকে অন্যজন, এমনকি হাসপাতালের অন্য রোগীরাও আক্রান্ত হতে পারেন।

তাহলে এমন অবস্থায় করণীয় কী? 

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) জানিয়েছে, সন্দেহভাজন রোগীকে প্রাথমিকভাবে ঘরেই থাকতে হবে। এই রোগ নিয়ে এত আতঙ্কের কারণ হচ্ছে এখন পর্যন্ত এর কোনও টিকা বা প্রতিষেধক আবিষ্কৃত হয়নি। চিকিৎসার শরু হয় লক্ষণ দেখে।

আইইডিসিআরের তথ্য অনুযায়ী, এই ভাইরাস শরীরে ঢোকার পর সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিতে ২ থেকে ১৪ দিন সময় লাগে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে প্রথম লক্ষণ হয় জ্বর। এ ছাড়া শুকনো কাশি বা গলাব্যথা হতে পারে।

এ বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিওএইচও) কিছু পরামর্শ দিয়েছে। করোনা হানা দিয়েছে তা সন্দেহ বা আক্রান্ত হলে কী করবেন?

১. আক্রান্ত ব্যক্তির যথেষ্ট বিশ্রাম প্রয়োজন, পুষ্টিকর খাবার খান ও প্রচুর পানি আর তরল পান করুন।

২. রোগী ও যিনি সেবা করবেন, দুজনে ঘরে মেডিকেল মাস্ক পরবেন। হাত দিয়ে মাস্ক স্পর্শ করা, মুখে হাত দেয়া থেকে বিরত থাকুন। কাজ শেষে মাস্ক ফেলে দেবেন ময়লার ঝুড়িতে।

৩. অসুস্থ ব্যক্তির সংস্পর্শে বা এর চারপাশের সংস্পর্শে এলে খাবার তৈরির আগে, খাবার খেতে বসার আগে এবং টয়লেট ব্যবহারের পর সাবান পানি দিয়ে বা স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুয়ে নিন।

৪. আক্রান্ত ব্যক্তির বাসনপত্র, তোয়ালে ও বিছানার চাদর সাবান দিয়ে ধুতে হবে। অসুস্থ ব্যক্তি যা যা হাত দিয়ে স্পর্শ করবেন, সেগুলো বারবার জীবাণু শোধন করুন।

৫. অসুস্থ ব্যক্তির অবস্থা খারাপের দিকে গেলে বা শ্বাসকষ্ট হলে স্বাস্থ্যসেবাকেন্দ্রে ফোন করুন।

হটলাইন নম্বর:

স্বাস্থ্য বাতায়ন – স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

১৬২৬৩

এটুআই প্রোগ্রাম, আইসিটি ডিভিশন

৩৩৩

রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট

১০৬৫৫,  +৮৮০ ১৯৪৪৩৩৩২২২,  +৮৮০ ১৯৩৭০০০০১১,  +৮৮০ ১৯৩৭১১০০১১,  +৮৮০ ১৯২৭৭১১৭৮৪,  +৮৮০ ১৯২৭৭১১৭৮৫