সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হৃদরোগ ও ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় কলার মোচা

প্রফেসর জিন্নাত আলী ।। 

ফল হিসেবে কলার উপকারিতা আমাদের সকলেই কমবেশি জানা। কলার মোচাও কিন্তু নানা পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ। পুষ্টি-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইট এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে কলার ফুল বা মোচার উপকারিতা বিষয়ে। আমাদের পাঠকদের জন্য সে সম্পর্কে তুলে ধরা হলো।

কলাতে বিদ্যমান সকল পুষ্টি উপাদানের পাশাপাশি মোচাতে বাড়তি পাবেন মেন্থলের নির্যাস। যা শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এছাড়াও ভিটামিন বি সিক্স, সি ও আঁশসমৃদ্ধ কলার মোচায় আরো মিলবে ভিটামিন ই, প্রোটিন এবং অন্যান্য উপকারী অন্যান্য পুষ্টি উপাদান।

– রজঃকালীন ব্যথা কমাতে সাহায্য করে কলার ফুল। সেইসাথে প্রোজেস্টেরন উৎপাদন বাড়িয়ে রক্তস্বল্পতাও কমায়। কলার মোচা পেটের কয়েকটি সমস্যা নিয়ন্ত্রণে রাখে, যেমন- কোষ্ঠকাঠিন্য, পেট ফোলাভাব এবং ‘পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিন্ড্রোম (পিসিওএস)।

– মোচায় থাকা ম্যাগনেশিয়াম উদ্বেগ ও হতাশা কমাতে সাহায্য করে। ফলে মন মেজাজ থাকে ফুরফুরে।

– এতে আরো রয়েছে ফেনলিক অ্যাসিড এবং অন্যান্য ‘বায়োঅ্যাক্টিভ’। উপাদানগুলো রক্তের শর্করার মাত্রাও নিয়ন্ত্রণে রাখে।

– কলার ফুল বা মোচায় আরো মিলবে প্রাকৃতিক ‘গ্যালাক্টাগাগ’। এ উপাদানটি সদ্যপ্রসূতি মায়ের বুকের দুধ বাড়াতেও সাহায্য করে।

– এতে থাকা ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট অকালে বৃদ্ধ হওয়া ও বয়সের ছাপ পড়ার গতি কমিয়ে দেয়। এ ছাড়া ত্বকের গঠন উন্নত করে বলিরেখা কমায়।

– কলার মোচায় থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উন্মুক্ত ‘রেডিকল’য়ের বিরুদ্ধে কাজ করে। জারণ ক্ষয় প্রতিহত করে এবং হৃদরোগ ও ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

বিএনপির নেতাকর্মীদের কারাগারে প্রেরণ সরকারের প্রধান কর্মসূচি -মির্জা ফখরুল

হৃদরোগ ও ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় কলার মোচা

প্রকাশের সময় : ০১:০৭:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ এপ্রিল ২০২০

প্রফেসর জিন্নাত আলী ।। 

ফল হিসেবে কলার উপকারিতা আমাদের সকলেই কমবেশি জানা। কলার মোচাও কিন্তু নানা পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ। পুষ্টি-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইট এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে কলার ফুল বা মোচার উপকারিতা বিষয়ে। আমাদের পাঠকদের জন্য সে সম্পর্কে তুলে ধরা হলো।

কলাতে বিদ্যমান সকল পুষ্টি উপাদানের পাশাপাশি মোচাতে বাড়তি পাবেন মেন্থলের নির্যাস। যা শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এছাড়াও ভিটামিন বি সিক্স, সি ও আঁশসমৃদ্ধ কলার মোচায় আরো মিলবে ভিটামিন ই, প্রোটিন এবং অন্যান্য উপকারী অন্যান্য পুষ্টি উপাদান।

– রজঃকালীন ব্যথা কমাতে সাহায্য করে কলার ফুল। সেইসাথে প্রোজেস্টেরন উৎপাদন বাড়িয়ে রক্তস্বল্পতাও কমায়। কলার মোচা পেটের কয়েকটি সমস্যা নিয়ন্ত্রণে রাখে, যেমন- কোষ্ঠকাঠিন্য, পেট ফোলাভাব এবং ‘পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিন্ড্রোম (পিসিওএস)।

– মোচায় থাকা ম্যাগনেশিয়াম উদ্বেগ ও হতাশা কমাতে সাহায্য করে। ফলে মন মেজাজ থাকে ফুরফুরে।

– এতে আরো রয়েছে ফেনলিক অ্যাসিড এবং অন্যান্য ‘বায়োঅ্যাক্টিভ’। উপাদানগুলো রক্তের শর্করার মাত্রাও নিয়ন্ত্রণে রাখে।

– কলার ফুল বা মোচায় আরো মিলবে প্রাকৃতিক ‘গ্যালাক্টাগাগ’। এ উপাদানটি সদ্যপ্রসূতি মায়ের বুকের দুধ বাড়াতেও সাহায্য করে।

– এতে থাকা ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট অকালে বৃদ্ধ হওয়া ও বয়সের ছাপ পড়ার গতি কমিয়ে দেয়। এ ছাড়া ত্বকের গঠন উন্নত করে বলিরেখা কমায়।

– কলার মোচায় থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উন্মুক্ত ‘রেডিকল’য়ের বিরুদ্ধে কাজ করে। জারণ ক্ষয় প্রতিহত করে এবং হৃদরোগ ও ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।