মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

করোনা পরিস্থিতিতে দেশকে লাল, সবুজ ও হলুদ জোনে ভাগ করা হবে –স্বাস্থ্যমন্ত্রী

আব্দুল লতিফ:/=

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতিতে দেশকে লাল, সবুজ ও হলুদ জোনে ভাগ করা হবে বলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন। সোমবার স্বরাষ্ট্র  মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠক শেষে তিনি একথা বলেন।

জাহিদ মালেক বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার অনুযায়ী সারা দেশকে রেড, গ্রিন ও ইয়োলো জোনে ভাগ করা হবে।তিনি বলেন, আমাদের বিশেষজ্ঞ টিম নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছি। সেখানে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিস্তারিত এ বিষয়ে আলাপ হয়েছে। আমরা একটা প্ল্যান তৈরি করব। প্ল্যান নীতিগতভাবে আলোচনা হয়েছে। আমরা এখন সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা দিয়ে দেব। তখন মেয়র, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এবং আমরাও (স্বাস্থ্য) থাকব। সবাই মিলে বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করব।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এখনো জোন করা হয়নি। যখন করা হবে তখন জানতে পারবেন। ঢাকা, নারায়াণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্টগ্রাম সবচেয়ে বেশি সংক্রমিত হয়েছে। যদি কোনো জোন রেড হয়ে থাকে সেগুলোকে রেড করা হবে। বাংলাদেশের অধিকাংশ জেলা ও উপজেলা এখনও অনেকাংশে ভালো আছে। আমরা সেটা ভালো রাখতে চাই। ভালো রাখার জন্য আজকে এই সভা।

এলাকাভিত্তিক লকডাউনের সিদ্ধান্ত হয়েছে কি না প্রশ্ন করা হলে মন্ত্রী বলেন, যে এলকায় সংক্রমণ বেশি হবে সেই এলাকা বন্ধ থাকবে কয়দিনের জন্য।  এভাবে বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দেবে, সেই অনুযায়ী আমরা কাজ করব।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয় এমন কাজ থেকে বিরত থাকুন- এসপি 

করোনা পরিস্থিতিতে দেশকে লাল, সবুজ ও হলুদ জোনে ভাগ করা হবে –স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশের সময় : ০৭:২৩:১৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১ জুন ২০২০

আব্দুল লতিফ:/=

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতিতে দেশকে লাল, সবুজ ও হলুদ জোনে ভাগ করা হবে বলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন। সোমবার স্বরাষ্ট্র  মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠক শেষে তিনি একথা বলেন।

জাহিদ মালেক বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার অনুযায়ী সারা দেশকে রেড, গ্রিন ও ইয়োলো জোনে ভাগ করা হবে।তিনি বলেন, আমাদের বিশেষজ্ঞ টিম নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছি। সেখানে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিস্তারিত এ বিষয়ে আলাপ হয়েছে। আমরা একটা প্ল্যান তৈরি করব। প্ল্যান নীতিগতভাবে আলোচনা হয়েছে। আমরা এখন সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা দিয়ে দেব। তখন মেয়র, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এবং আমরাও (স্বাস্থ্য) থাকব। সবাই মিলে বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করব।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এখনো জোন করা হয়নি। যখন করা হবে তখন জানতে পারবেন। ঢাকা, নারায়াণগঞ্জ, গাজীপুর ও চট্টগ্রাম সবচেয়ে বেশি সংক্রমিত হয়েছে। যদি কোনো জোন রেড হয়ে থাকে সেগুলোকে রেড করা হবে। বাংলাদেশের অধিকাংশ জেলা ও উপজেলা এখনও অনেকাংশে ভালো আছে। আমরা সেটা ভালো রাখতে চাই। ভালো রাখার জন্য আজকে এই সভা।

এলাকাভিত্তিক লকডাউনের সিদ্ধান্ত হয়েছে কি না প্রশ্ন করা হলে মন্ত্রী বলেন, যে এলকায় সংক্রমণ বেশি হবে সেই এলাকা বন্ধ থাকবে কয়দিনের জন্য।  এভাবে বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দেবে, সেই অনুযায়ী আমরা কাজ করব।