বুধবার, ২৯ মার্চ ২০২৩, ১৪ চৈত্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দুই জেলার প্রবেশদ্বারে সিসি টিভি বসালেন পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা

মোস্তাফিজুর রহমান ,লালমনিরহাটপ্রতিনিধিঃ/  লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রাম জেলার প্রবেশ ও বাহিরের মুলপথ তিস্তাসড়ক সেতু টোল প্লাজায় অপরাধ দমনে লক্ষ্যে সিসি টিভি’র কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়।  রবিবার ( ৩১ মে) বিকালে এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন লালমনিরহাট পুলিশ সুপার আবেদা সুলতানা।
এ সময় বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এ সার্কেল) এস এম শফিকুল ইসলাম। উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ইন সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টার) শহীদ সোহরাওয়াদ্দী, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহফুজ আলমসহ জেলা পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা বৃন্দ।উদ্বোধন কালে পুলিশ সুপার আবেদন সুলতানা বলেন, লালমনিরহাট জেলায় তিস্তা ব্রিজটি দু’জেলার প্রবেশ ও বাহির পথ হওয়ায় প্রতিদিন হাজার হাজর মানুষ যাতায়াত করে। এতে চোরাকারবারীরা পুলিশ-প্রশাসনের চোখ ফাকি দিয়ে অপরাধ কার্যক্রম পরিচালিত করেতে পারে। তাই লালমনিরহাট জেলা পুলিশ এই বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে পর্যবেক্ষন করে ৬টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন শেষে এই কার্যক্রম উদ্বোধন করা হলো। এখন এই দু’জেলা থেকে মাদক পাচারকারীসহ কোন চোরাকারবারী পুলিশ-প্রশাসনের চোখ ফাকি দিয়ে অপরাধ করতে পারবে না। তিনি সিসি ক্যামেরা রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচালনার জন্য এলাকাবাসীর কাছে সার্বিক সহযোগিতার কামনা করেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

জনপ্রিয়

দুই জেলার প্রবেশদ্বারে সিসি টিভি বসালেন পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানা

প্রকাশের সময় : ১১:৫৪:২২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুন ২০২০
মোস্তাফিজুর রহমান ,লালমনিরহাটপ্রতিনিধিঃ/  লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রাম জেলার প্রবেশ ও বাহিরের মুলপথ তিস্তাসড়ক সেতু টোল প্লাজায় অপরাধ দমনে লক্ষ্যে সিসি টিভি’র কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়।  রবিবার ( ৩১ মে) বিকালে এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন লালমনিরহাট পুলিশ সুপার আবেদা সুলতানা।
এ সময় বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এ সার্কেল) এস এম শফিকুল ইসলাম। উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ইন সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টার) শহীদ সোহরাওয়াদ্দী, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহফুজ আলমসহ জেলা পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা বৃন্দ।উদ্বোধন কালে পুলিশ সুপার আবেদন সুলতানা বলেন, লালমনিরহাট জেলায় তিস্তা ব্রিজটি দু’জেলার প্রবেশ ও বাহির পথ হওয়ায় প্রতিদিন হাজার হাজর মানুষ যাতায়াত করে। এতে চোরাকারবারীরা পুলিশ-প্রশাসনের চোখ ফাকি দিয়ে অপরাধ কার্যক্রম পরিচালিত করেতে পারে। তাই লালমনিরহাট জেলা পুলিশ এই বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে পর্যবেক্ষন করে ৬টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন শেষে এই কার্যক্রম উদ্বোধন করা হলো। এখন এই দু’জেলা থেকে মাদক পাচারকারীসহ কোন চোরাকারবারী পুলিশ-প্রশাসনের চোখ ফাকি দিয়ে অপরাধ করতে পারবে না। তিনি সিসি ক্যামেরা রক্ষণাবেক্ষণ ও পরিচালনার জন্য এলাকাবাসীর কাছে সার্বিক সহযোগিতার কামনা করেন।