মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভারতীয় সেনাদের হত্যা করতে অদ্ভুত অস্ত্র ব্যবহার চীনা সেনাদের

তানজীর মহসিন অংকন:/=

লাদাখ সীমান্তে ভারতীয় সেনাদের হত্যা করতে চীনের সেনারা কাঁটাতারে জোড়ানো এক প্রকার ‘অদ্ভুত অস্ত্র’ ব্যবহার করেছে বলে ধারণা দেশটির কর্মকর্তাদের। কর্নেল সন্তোষ বাবুর ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এবং ওই অস্ত্রটি উদ্ধারের পর এই ধারণা হয়েছে তাদের।

ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমসনাওয়ের বিশেষ একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সন্তোষের মাথায় খোঁচানো জখম পাওয়া গেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কিছু কাঁটা লাগানো লোহার রড উদ্ধার হয়েছে গালওয়ানের সংঘর্ষস্থল থেকে। ওই অস্ত্র দিয়েই চীনা বাহিনী আক্রমণ করেছিল ভারতীয় সেনাদের। ‘ক্লোজ কমব্যাট’ বা হাতাহাতির পর্যায়ে এ ধরনের রডের আঘাত আগ্নেয়াস্ত্রর থেকেও বেশি প্রাণঘাতী।

ভারতীয় সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দুপক্ষের তর্কাতর্কি এক পর্যায়ে প্রাণঘাতী সংঘাতে রূপ নেয়। গালওয়ান নদীর দক্ষিণ তীরের যে জায়গায় চীনের সেনারা নতুন পোস্ট বসানোর চেষ্টা করেন সেটি নিয়ে ভারত প্রথমে আপত্তি তোলে।

হাতাহাতির এক পর্যায়ে কয়েক জন ভারতীয় সেনাকে নদীতে ফেলে দেয়া হয় অথবা তারা পড়ে যান। কয়েক জনের লাশ নদীতে পাওয়া গেছে। কয়েক জনের শরীরে ‘বর্বরতার’ চিহ্ন ছিল। কয়েক জন আবার হাইপোথারমিয়ায় মারা যান।

নিজেদের সেনাদের ব্যাপারে ভারত এভাবে তথ্য দিলেও চীন বিস্তারিত কিছু জানায়নি। ভারতের দাবি, সোমবার সেনারা নিয়ন্ত্রণ রেখায় দায়িত্ব পালন করা অবস্থায় গুরুতর আহত হয়। ওদিকে চীনের দাবি, ভারত আগে তাদের সেনাদের আক্রমণ করেছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

ভারতীয় সেনাদের হত্যা করতে অদ্ভুত অস্ত্র ব্যবহার চীনা সেনাদের

প্রকাশের সময় : ০৭:২২:৫৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুন ২০২০

তানজীর মহসিন অংকন:/=

লাদাখ সীমান্তে ভারতীয় সেনাদের হত্যা করতে চীনের সেনারা কাঁটাতারে জোড়ানো এক প্রকার ‘অদ্ভুত অস্ত্র’ ব্যবহার করেছে বলে ধারণা দেশটির কর্মকর্তাদের। কর্নেল সন্তোষ বাবুর ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এবং ওই অস্ত্রটি উদ্ধারের পর এই ধারণা হয়েছে তাদের।

ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমসনাওয়ের বিশেষ একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সন্তোষের মাথায় খোঁচানো জখম পাওয়া গেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কিছু কাঁটা লাগানো লোহার রড উদ্ধার হয়েছে গালওয়ানের সংঘর্ষস্থল থেকে। ওই অস্ত্র দিয়েই চীনা বাহিনী আক্রমণ করেছিল ভারতীয় সেনাদের। ‘ক্লোজ কমব্যাট’ বা হাতাহাতির পর্যায়ে এ ধরনের রডের আঘাত আগ্নেয়াস্ত্রর থেকেও বেশি প্রাণঘাতী।

ভারতীয় সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দুপক্ষের তর্কাতর্কি এক পর্যায়ে প্রাণঘাতী সংঘাতে রূপ নেয়। গালওয়ান নদীর দক্ষিণ তীরের যে জায়গায় চীনের সেনারা নতুন পোস্ট বসানোর চেষ্টা করেন সেটি নিয়ে ভারত প্রথমে আপত্তি তোলে।

হাতাহাতির এক পর্যায়ে কয়েক জন ভারতীয় সেনাকে নদীতে ফেলে দেয়া হয় অথবা তারা পড়ে যান। কয়েক জনের লাশ নদীতে পাওয়া গেছে। কয়েক জনের শরীরে ‘বর্বরতার’ চিহ্ন ছিল। কয়েক জন আবার হাইপোথারমিয়ায় মারা যান।

নিজেদের সেনাদের ব্যাপারে ভারত এভাবে তথ্য দিলেও চীন বিস্তারিত কিছু জানায়নি। ভারতের দাবি, সোমবার সেনারা নিয়ন্ত্রণ রেখায় দায়িত্ব পালন করা অবস্থায় গুরুতর আহত হয়। ওদিকে চীনের দাবি, ভারত আগে তাদের সেনাদের আক্রমণ করেছে।