শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত

নুরুজ্জামান লিটন:/=

তিস্তা নদীর পানি দিনিদিন বেড়ে চলেছে। লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে তিস্তার পানি আজ শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে বিপদসীমার ১৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অপরদিকে, ধরলা নদীর পানি লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট পয়েন্টে বিপদসীমা ছুঁই ছুঁই হয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

অবিরাম বর্ষণ আর উজানে ভারত থেকে পাহাড়ি ঢলের পানিতে জেলার প্রধান দুই নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুর কাদের।

পানি বেড়ে যাওয়ায় তলিয়ে গেছে চরাঞ্চলগুলো। নদী তীরবর্তী এলাকার বাড়িঘরে ঢুকে পড়েছে পানি। এতে তলিয়ে গেছে আমন ধানের বীজতলাসহ বিভিন্ন সবজি ক্ষেত। বৃষ্টিপাত আর উজানের পানি আসা অব্যাহত থাকলে তিস্তা ও ধরলা নদীর পানিতে দেখা দিতে পারে বন্যা পরিস্থিতি, এমন আশঙ্কাই করছেন নদীপাড়ের মানুষজন।

এদিকে, ঘরবাড়ি ও ফসল পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় তিস্তাপাড়ে শতশত মানুষ পরিবারের লোকজন ও গবাদিপশুসহ প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র নিয়ে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিয়েছেন। এমনকি, নলকুপ ও রান্নার চুলা পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন তারা।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত

প্রকাশের সময় : ০৭:১৯:৫৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৬ জুন ২০২০

নুরুজ্জামান লিটন:/=

তিস্তা নদীর পানি দিনিদিন বেড়ে চলেছে। লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে তিস্তার পানি আজ শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে বিপদসীমার ১৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অপরদিকে, ধরলা নদীর পানি লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট পয়েন্টে বিপদসীমা ছুঁই ছুঁই হয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

অবিরাম বর্ষণ আর উজানে ভারত থেকে পাহাড়ি ঢলের পানিতে জেলার প্রধান দুই নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী আব্দুর কাদের।

পানি বেড়ে যাওয়ায় তলিয়ে গেছে চরাঞ্চলগুলো। নদী তীরবর্তী এলাকার বাড়িঘরে ঢুকে পড়েছে পানি। এতে তলিয়ে গেছে আমন ধানের বীজতলাসহ বিভিন্ন সবজি ক্ষেত। বৃষ্টিপাত আর উজানের পানি আসা অব্যাহত থাকলে তিস্তা ও ধরলা নদীর পানিতে দেখা দিতে পারে বন্যা পরিস্থিতি, এমন আশঙ্কাই করছেন নদীপাড়ের মানুষজন।

এদিকে, ঘরবাড়ি ও ফসল পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় তিস্তাপাড়ে শতশত মানুষ পরিবারের লোকজন ও গবাদিপশুসহ প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র নিয়ে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিয়েছেন। এমনকি, নলকুপ ও রান্নার চুলা পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন তারা।