মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সূর্যের তাপে করোনা ভাইরাসের মৃত্যুঝুঁকি কমে

নুরুজ্জামান লিটন:/=

ইডেনবার্গ ইউনিভার্সিটির গবেষকরা নতুন এক গবেষণায় দেখেছেন, প্রাকৃতিক অতি-বেগুনি রশ্মি এবং করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার ব্যাপারে সম্পর্ক রয়েছে।

এদিকে সারাবিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে এক কোটি ১৯ লাখ ৫৬ হাজার আটশ ৭৭ জন এবং মারা গেছে পাঁচ লাখ ৪৬ হাজার সাতশ ৬৫ জন।

করোনাভাইরাস এখনো বিভিন্ন দেশে ব্যাপকহারে ছড়িয়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানীরা চেষ্টা করছেন- করোনাভাইরাসের টিকা দ্রুত উদ্ভাবনের ব্যাপারে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আবহাওয়ার তারতম্য হলে, তাপমাত্রা ভিন্ন হলে, আদ্রতাভেদে এবং অতি-বেগুনি রশ্মির প্রভাবে করোনাভাইরাস দুর্বল হয়ে যায়।

অতি-বেগুনি রশ্মি, সূর্যের তাপ ও কভিড-১৯

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম রোগী পাওয়ার পর ছয় মাস পেরিয়ে গেছে। তবে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসের ব্যাপারে নতুন নতুন তথ্য বেরিয়ে আসছে। বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, অতি-বেগুনি রশ্মি করোনাভাইরাসে মৃতের হার কমানোর ব্যাপারে প্রভাব ফেলে।

এর আগে ওই গবেষকরাই আরেক গবেষণায় দেখেছেন, সূর্যের আলো রক্তচাপ কমিয়ে দেয়। এছাড়া ভিটামিন ডি এর পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। সে কারণে অতি-বেগুনি রশ্মির প্রভাবে রক্তচাপ কমে যায়। সে কারণে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিও কমে যায়।

যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি ও ইংল্যান্ডে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের নিয়ে গবেষণা করে দেখা গেছে, অতি বেগুনি রশ্মির সঙ্গে করোনায় মৃতের হারের সম্পর্ক রয়েছে।

গবেষকরা দেখেছেন, অতি বেগুনি-রশ্মি যুক্তরাষ্ট্রে ২৭ শতাংশ পর্যন্ত মৃত্যু ঝুঁকি কমিয়ে দিয়েছে। আর ইংল্যান্ডে ৪৯ শতাংশ ও ১৯ শতাংশ মৃত্যুর ঝুঁকি কমিয়ে দিয়েছে অতি বেগুনি রশ্মি

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

সূর্যের তাপে করোনা ভাইরাসের মৃত্যুঝুঁকি কমে

প্রকাশের সময় : ০৫:৪৯:১৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ জুলাই ২০২০

নুরুজ্জামান লিটন:/=

ইডেনবার্গ ইউনিভার্সিটির গবেষকরা নতুন এক গবেষণায় দেখেছেন, প্রাকৃতিক অতি-বেগুনি রশ্মি এবং করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়ার ব্যাপারে সম্পর্ক রয়েছে।

এদিকে সারাবিশ্বে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে এক কোটি ১৯ লাখ ৫৬ হাজার আটশ ৭৭ জন এবং মারা গেছে পাঁচ লাখ ৪৬ হাজার সাতশ ৬৫ জন।

করোনাভাইরাস এখনো বিভিন্ন দেশে ব্যাপকহারে ছড়িয়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানীরা চেষ্টা করছেন- করোনাভাইরাসের টিকা দ্রুত উদ্ভাবনের ব্যাপারে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আবহাওয়ার তারতম্য হলে, তাপমাত্রা ভিন্ন হলে, আদ্রতাভেদে এবং অতি-বেগুনি রশ্মির প্রভাবে করোনাভাইরাস দুর্বল হয়ে যায়।

অতি-বেগুনি রশ্মি, সূর্যের তাপ ও কভিড-১৯

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম রোগী পাওয়ার পর ছয় মাস পেরিয়ে গেছে। তবে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসের ব্যাপারে নতুন নতুন তথ্য বেরিয়ে আসছে। বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, অতি-বেগুনি রশ্মি করোনাভাইরাসে মৃতের হার কমানোর ব্যাপারে প্রভাব ফেলে।

এর আগে ওই গবেষকরাই আরেক গবেষণায় দেখেছেন, সূর্যের আলো রক্তচাপ কমিয়ে দেয়। এছাড়া ভিটামিন ডি এর পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। সে কারণে অতি-বেগুনি রশ্মির প্রভাবে রক্তচাপ কমে যায়। সে কারণে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিও কমে যায়।

যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি ও ইংল্যান্ডে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের নিয়ে গবেষণা করে দেখা গেছে, অতি বেগুনি রশ্মির সঙ্গে করোনায় মৃতের হারের সম্পর্ক রয়েছে।

গবেষকরা দেখেছেন, অতি বেগুনি-রশ্মি যুক্তরাষ্ট্রে ২৭ শতাংশ পর্যন্ত মৃত্যু ঝুঁকি কমিয়ে দিয়েছে। আর ইংল্যান্ডে ৪৯ শতাংশ ও ১৯ শতাংশ মৃত্যুর ঝুঁকি কমিয়ে দিয়েছে অতি বেগুনি রশ্মি