রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ১৬ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মেদ ভুড়ি কমাবেন কি ভাবে, জেনে নিন

তানজীর মহসিন অংকন #

সামান্য অনিয়মেই ওজনের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ে ভুঁড়ি। বাড়তি ভুঁড়ি শুধু যে সৌন্দর্য নষ্ট করে তা নয়, এটি আমাদের শরীরের জন্যও ক্ষতিকর। এমনকি নানা অসুখও ডেকে আনতে পারে এই অতিরিক্ত ভুঁড়ি।পুষ্টিবিদরা বলছেন, সকালের খাবারে প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার রাখাটা ভীষণ জরুরি। কারণ হাই প্রোটিন ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এমনকি ক্যালোরি বার্ন করতেও সাহায্য করে থাকে প্রোটিন। শরীরে নিউট্রিএন্টসের ভারসাম্যও বজায় রাখে প্রোটিন।মূলত সকালের খাবার থেকেই আমরা সারাদিনের শক্তিটা পাই। যে কারণে এটি ভারী হলেও তেমন কোনো ক্ষতি নেই। সকালের খাবারে অবশ্যই ফাইবারযুক্ত খাবার রাখুন। যা ফ্যাট কমানোর ক্ষেত্রে দারুণ কার্যকরী।সকালে চা বা কফি যা-ই পান করুন না কেন, চিনি মেশাবেন না। চিনি মিশিয়ে খেলে স্বাস্থ্যকর খাবার থেকেও সঠিক পুষ্টি পাবেন না। বরং ভুঁড়ি আরও বেড়ে যাবে।প্রসেসড খাবার এড়িয়ে যাওয়া এমনিতেই বুদ্ধিমানের কাজ। আর সকালে তো একেবারেই খাবেন না। অনেকে সকালের খাবারে প্রসেসড জুস পান করে থাকেন। কিন্তু এতে উপকারের থেকে অপকার হয় বেশি। তাই সকালে এটি পান করা এড়িয়ে চলুন। এর বদলে তাজা ফলের রস পান করুন। সম্ভব হলে আস্ত ফল খান।পাস্তা বা হাতে গড়া আটার রুটি খান সকালের নাস্তায়। এতে হৃদযন্ত্র ভালো থাকবে। সেই সঙ্গে কমবে ভুঁড়িও। প্রতিদিন সাত-আট ঘণ্টা ঘুমান। দুশ্চিন্তামুক্ত থাকুন। সেই সঙ্গে শরীরচর্চায় মনোযোগী হোন। অতিরিক্ত ভুঁড়ি দূর হবে দ্রুত।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

বিদ্যুৎ গ্যাস ও তেলের মূল্যবৃদ্ধির ক্ষমতা পেল সরকার, বিল পাস

মেদ ভুড়ি কমাবেন কি ভাবে, জেনে নিন

প্রকাশের সময় : ১০:১৫:৫৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১ সেপ্টেম্বর ২০২০

তানজীর মহসিন অংকন #

সামান্য অনিয়মেই ওজনের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ে ভুঁড়ি। বাড়তি ভুঁড়ি শুধু যে সৌন্দর্য নষ্ট করে তা নয়, এটি আমাদের শরীরের জন্যও ক্ষতিকর। এমনকি নানা অসুখও ডেকে আনতে পারে এই অতিরিক্ত ভুঁড়ি।পুষ্টিবিদরা বলছেন, সকালের খাবারে প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার রাখাটা ভীষণ জরুরি। কারণ হাই প্রোটিন ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এমনকি ক্যালোরি বার্ন করতেও সাহায্য করে থাকে প্রোটিন। শরীরে নিউট্রিএন্টসের ভারসাম্যও বজায় রাখে প্রোটিন।মূলত সকালের খাবার থেকেই আমরা সারাদিনের শক্তিটা পাই। যে কারণে এটি ভারী হলেও তেমন কোনো ক্ষতি নেই। সকালের খাবারে অবশ্যই ফাইবারযুক্ত খাবার রাখুন। যা ফ্যাট কমানোর ক্ষেত্রে দারুণ কার্যকরী।সকালে চা বা কফি যা-ই পান করুন না কেন, চিনি মেশাবেন না। চিনি মিশিয়ে খেলে স্বাস্থ্যকর খাবার থেকেও সঠিক পুষ্টি পাবেন না। বরং ভুঁড়ি আরও বেড়ে যাবে।প্রসেসড খাবার এড়িয়ে যাওয়া এমনিতেই বুদ্ধিমানের কাজ। আর সকালে তো একেবারেই খাবেন না। অনেকে সকালের খাবারে প্রসেসড জুস পান করে থাকেন। কিন্তু এতে উপকারের থেকে অপকার হয় বেশি। তাই সকালে এটি পান করা এড়িয়ে চলুন। এর বদলে তাজা ফলের রস পান করুন। সম্ভব হলে আস্ত ফল খান।পাস্তা বা হাতে গড়া আটার রুটি খান সকালের নাস্তায়। এতে হৃদযন্ত্র ভালো থাকবে। সেই সঙ্গে কমবে ভুঁড়িও। প্রতিদিন সাত-আট ঘণ্টা ঘুমান। দুশ্চিন্তামুক্ত থাকুন। সেই সঙ্গে শরীরচর্চায় মনোযোগী হোন। অতিরিক্ত ভুঁড়ি দূর হবে দ্রুত।