মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অনেকটাই ভালো আছেন ইউএনও ওয়াহিদা খানম, কথাও বলেছেন

নুরুজ্জামান লিটন #

গভীর রাতে বাসায় ঢুকে দুষ্কৃতকারীদের হামলার শিকার দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের পুরোপুরি জ্ঞান ফিরে এসেছে। তিনি এখন অনেকটাই ভালো আছেন। ইতোমধ্যে চিকিৎসক ও তাঁর স্বামীর সঙ্গে কথাও বলেছেন। তবে কে বা কারা তাঁর ওপর হামলা করেছে এ ব্যাপারে কোনো কিছু বলতে পারছেন না। এমনটিই জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

বৃহস্পতিবার রাতে মস্তিষ্কে জটিল অপারেশন পরিচালনা করেন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হাসপাতালের নিউরো ট্রমা বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. জাহেদ হোসেন ও তাঁর টিম।

শুক্রবার বিকেলে অধ্যাপক জাহেদ বলেন, তাঁর মাথায় ৯টি আঘাতের চিহ্ন ছিল। আঘাতগুলো হ্যামার (হাতুড়ি) জাতীয় কিছু দিয়ে হয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

তিনি বলেন, মস্তিষ্কের যে অংশ দিয়ে ডান সাইড নাড়াচাড়া করা হয়, সেই অংশটিতে চাপ পড়েছে বেশি। মাথার খুলি ভেঙে মস্তিষ্কের ভেতরে ঢুকে এই চাপ পড়ায় এমনটা হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। আমরা অপারেশন করে সে চাপটা কিছুটা তুলে এনেছি, তবে কিছুটা ড্যামেজ হয়েছে। তাঁকে আশঙ্কামুক্ত বলা যাবে কি না তা বলা মুশকিল। তবে ৭২ ঘণ্টা পার হলে অনেকটাই হয়তো শঙ্কামুক্ত বলা যাবে।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. কাজী দীন মোহাম্মদ বলেন, ইউএনও ওয়াহিদা খানমের শারীরিক অবস্থা এখন পর্যন্ত স্থিতিশীল। তবে সেটাকে ভালো বলা যাবে না। ভালো বলার প্যারামিটার আসলে আলাদা। তবে অপারেশনের পরবর্তী পর্যায়ে এখন পর্যন্ত ডেটোরেট (অবনতি) হয়নি, একই জায়গায় আছে।

অধ্যাপক কাজী দীন মোহাম্মদ বলেন, মাথায় মারাত্মক আঘাত তিনি পেয়েছেন। বিষয়টা অনেক জটিল, অনেক কমপ্লিকেটেড। তবে সঠিক সময়ে ঢাকায় এনে দ্রুত চিকিৎসা নেয়ায় কিছুটা ভালো হয়েছে। তিনি বলেন, তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেয়ার প্রয়োজন নেই। পরবর্তী চিকিৎসা বাংলাদেশেই সম্ভব।

জানা গেছে, শনিবার সকালে ইউএনও ওয়াহিদা খানমের শারীরিক অবস্থার পরবর্তী আপডেট জানাবেন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হাসপাতালের চিকিৎসকরা।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

অনেকটাই ভালো আছেন ইউএনও ওয়াহিদা খানম, কথাও বলেছেন

প্রকাশের সময় : ০৬:৪৩:৪০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

নুরুজ্জামান লিটন #

গভীর রাতে বাসায় ঢুকে দুষ্কৃতকারীদের হামলার শিকার দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের পুরোপুরি জ্ঞান ফিরে এসেছে। তিনি এখন অনেকটাই ভালো আছেন। ইতোমধ্যে চিকিৎসক ও তাঁর স্বামীর সঙ্গে কথাও বলেছেন। তবে কে বা কারা তাঁর ওপর হামলা করেছে এ ব্যাপারে কোনো কিছু বলতে পারছেন না। এমনটিই জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

বৃহস্পতিবার রাতে মস্তিষ্কে জটিল অপারেশন পরিচালনা করেন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হাসপাতালের নিউরো ট্রমা বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. জাহেদ হোসেন ও তাঁর টিম।

শুক্রবার বিকেলে অধ্যাপক জাহেদ বলেন, তাঁর মাথায় ৯টি আঘাতের চিহ্ন ছিল। আঘাতগুলো হ্যামার (হাতুড়ি) জাতীয় কিছু দিয়ে হয়েছে বলে মনে হচ্ছে।

তিনি বলেন, মস্তিষ্কের যে অংশ দিয়ে ডান সাইড নাড়াচাড়া করা হয়, সেই অংশটিতে চাপ পড়েছে বেশি। মাথার খুলি ভেঙে মস্তিষ্কের ভেতরে ঢুকে এই চাপ পড়ায় এমনটা হয়েছে বলে মনে হচ্ছে। আমরা অপারেশন করে সে চাপটা কিছুটা তুলে এনেছি, তবে কিছুটা ড্যামেজ হয়েছে। তাঁকে আশঙ্কামুক্ত বলা যাবে কি না তা বলা মুশকিল। তবে ৭২ ঘণ্টা পার হলে অনেকটাই হয়তো শঙ্কামুক্ত বলা যাবে।

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. কাজী দীন মোহাম্মদ বলেন, ইউএনও ওয়াহিদা খানমের শারীরিক অবস্থা এখন পর্যন্ত স্থিতিশীল। তবে সেটাকে ভালো বলা যাবে না। ভালো বলার প্যারামিটার আসলে আলাদা। তবে অপারেশনের পরবর্তী পর্যায়ে এখন পর্যন্ত ডেটোরেট (অবনতি) হয়নি, একই জায়গায় আছে।

অধ্যাপক কাজী দীন মোহাম্মদ বলেন, মাথায় মারাত্মক আঘাত তিনি পেয়েছেন। বিষয়টা অনেক জটিল, অনেক কমপ্লিকেটেড। তবে সঠিক সময়ে ঢাকায় এনে দ্রুত চিকিৎসা নেয়ায় কিছুটা ভালো হয়েছে। তিনি বলেন, তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেয়ার প্রয়োজন নেই। পরবর্তী চিকিৎসা বাংলাদেশেই সম্ভব।

জানা গেছে, শনিবার সকালে ইউএনও ওয়াহিদা খানমের শারীরিক অবস্থার পরবর্তী আপডেট জানাবেন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হাসপাতালের চিকিৎসকরা।