মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

৩৫ বছরের নারী সুলতানা এখন যুবক, বিয়েও করলেন যুবতীকে

নজরুল ইসলাম #

নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার লক্ষ্মীকোল বাজার এলাকার বাসিন্দা শাহরিয়ার সুলতানা প্রকৃতির খেয়ালে পুরুষে পরিণত হয়েছেন।তার বয়স ৩৫ বছর।

পুলিশের অবসরপ্রাপ্ত এএসআই সাজেদুর রহমানের মেয়ে ছিলেন তিনি। প্রকৃতির খেয়ালে আজ তিনি আর শাহরিয়ার সুলতানা নন, বরং শাহরিয়ার জাইন। তিনি ইতোমধ্যে ভালোবেসে গত ৩০ আগস্ট বিয়ে করেছেন এক তরুণীকে।

স্থানীয়রা জানান, সুলতানা যখন কলেজে পড়তেন, তখনই তার শারীরিক কিছু পরিবর্তন দেখা দেয়। বিএ পাস করে বাড়িতেই থাকতেন তিনি। ধীরে ধীরে তার শরীরের গঠন পুরুষের মতো হচ্ছিল।

শাহরিয়ার জাইন বলেন, দুই বছর আগে ফেসবুকের মাধ্যমে তার পরিচয় হয় বগুড়া সদর উপজেলার শিববাটির মাহবুবা আক্তার নামে এক তরুণীর সঙ্গে। পরিচয়ের একপর্যায়ে আমি তাকে আমার সমস্যাগুলো খুলে বললে সে আমার পাশে এসে দাঁড়ায়। চিকিৎসার পরামর্শ দেয় এবং সারাজীবন পাশে থাকার আশ্বাস দেয়। সেই সঙ্গে চিকিৎসার জন্য অর্থনৈতিকভাবেও সে আমাকে সহযোগিতা করেছে। এক বছর আগে ভারতের একটি হাসপাতালে স্তন অপারেশন এবং জেন্ডার ডিসফোরিয়া অপারেশন করিয়েছি। এরপর আস্তে আস্তে সম্পূর্ণ পুরুষে রূপান্তরিত হয়েছি আমি।

বর্তমানের আমার নাম বদলে রেখেছি শাহরিয়ার জাইন। দুই পরিবারের সম্মতিতে গত ৩০ আগস্ট আমাদের বিয়ে হয়েছে।

শাহরিয়ার জাইনের স্ত্রী মাহবুবা আক্তার বলেন, শাহরিয়ার জাইনের সততায় আমি মুগ্ধ। পাশাপাশি তাকে অনেক ভালো মানুষ মনে হয়েছে। তাই তাকে বিয়ে করেছি। বিয়ের পর আমরা সুখেই আছি। আমাদের জন্য সবাই দোয়া করবেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

৩৫ বছরের নারী সুলতানা এখন যুবক, বিয়েও করলেন যুবতীকে

প্রকাশের সময় : ০৮:১৫:৫৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

নজরুল ইসলাম #

নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার লক্ষ্মীকোল বাজার এলাকার বাসিন্দা শাহরিয়ার সুলতানা প্রকৃতির খেয়ালে পুরুষে পরিণত হয়েছেন।তার বয়স ৩৫ বছর।

পুলিশের অবসরপ্রাপ্ত এএসআই সাজেদুর রহমানের মেয়ে ছিলেন তিনি। প্রকৃতির খেয়ালে আজ তিনি আর শাহরিয়ার সুলতানা নন, বরং শাহরিয়ার জাইন। তিনি ইতোমধ্যে ভালোবেসে গত ৩০ আগস্ট বিয়ে করেছেন এক তরুণীকে।

স্থানীয়রা জানান, সুলতানা যখন কলেজে পড়তেন, তখনই তার শারীরিক কিছু পরিবর্তন দেখা দেয়। বিএ পাস করে বাড়িতেই থাকতেন তিনি। ধীরে ধীরে তার শরীরের গঠন পুরুষের মতো হচ্ছিল।

শাহরিয়ার জাইন বলেন, দুই বছর আগে ফেসবুকের মাধ্যমে তার পরিচয় হয় বগুড়া সদর উপজেলার শিববাটির মাহবুবা আক্তার নামে এক তরুণীর সঙ্গে। পরিচয়ের একপর্যায়ে আমি তাকে আমার সমস্যাগুলো খুলে বললে সে আমার পাশে এসে দাঁড়ায়। চিকিৎসার পরামর্শ দেয় এবং সারাজীবন পাশে থাকার আশ্বাস দেয়। সেই সঙ্গে চিকিৎসার জন্য অর্থনৈতিকভাবেও সে আমাকে সহযোগিতা করেছে। এক বছর আগে ভারতের একটি হাসপাতালে স্তন অপারেশন এবং জেন্ডার ডিসফোরিয়া অপারেশন করিয়েছি। এরপর আস্তে আস্তে সম্পূর্ণ পুরুষে রূপান্তরিত হয়েছি আমি।

বর্তমানের আমার নাম বদলে রেখেছি শাহরিয়ার জাইন। দুই পরিবারের সম্মতিতে গত ৩০ আগস্ট আমাদের বিয়ে হয়েছে।

শাহরিয়ার জাইনের স্ত্রী মাহবুবা আক্তার বলেন, শাহরিয়ার জাইনের সততায় আমি মুগ্ধ। পাশাপাশি তাকে অনেক ভালো মানুষ মনে হয়েছে। তাই তাকে বিয়ে করেছি। বিয়ের পর আমরা সুখেই আছি। আমাদের জন্য সবাই দোয়া করবেন।