মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মসজিদে বিস্ফোরণের বিষয়ে তদন্ত চলছে: প্রধানমন্ত্রী

রোকনুজ্জামান রিপন #

নারায়ণগঞ্জের পশ্চিম তল্লা বায়তুস সালাত জামে মসজিদে গ্যাসের লিকেজ থেকে বিস্ফোরণের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এটা কেন ঘটলো নিশ্চয়ই সেটা বের করা হবে। বর্তমানে এ বিষযে তদন্ত চলছে।’

রবিবার (৬ সেপ্টেম্বর) জাতীয় সংসদে শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘নামাজ পড়া অবস্থায় এই ধরণের ঘটনা খুব দুঃখজনক। ওইটুকু জায়গায় ৬টা এসি। আবার শোনা যাচ্ছে ওখানে গ্যাসের লাইনের ওপর মসজিদ নির্মাণ। সাধারণত গ্যাসের লাইনের ওপর নির্মাণ কাজ হয় না। জানি না রাজউক পারমিশন দিয়েছে কিনা। এই ধরণের পারমিশন দেওয়া উচিত না। এটা আশংকাজনক থাকে। সেটাই তদন্ত হবে।’

তিনি বলেছেন, ‘আজকাল মসজিদে সবাই দান করেন, এয়ারকন্ডিশন দেন। এখানে বিদ্যুৎ সরবরাহ কতটুকু নিতে পারবে সেটা দেখা হয়েছিল কিনা, সার্কিট ব্রেকার ছিল কিনা দেখতে হবে। এই বিষয়ে কেবিনেট সেক্রেটারীকে বলেছি, সবাইকে নির্দেশ দিয়েছি কারণ খুঁজে বের করার জন্য। সারাদেশের অপরিকল্পিতভাবে মসজিদ গড়ে তোলা, সেখানে এয়ারকন্ডিশন নিচ্ছেন, সেখানে আদৌ স্থাপনা করা যায় কিনা, নকশা করা হয়েছে কিনা তা দেখা একান্ত প্রয়োজন। নাহলে এই ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।’

অন্যদিকে শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন জানিয়েছেন, ‘মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে পৌঁছেছে ২৪ জনে। চিকিৎসাধীন ১৩ জন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন, তাদের সবার অবস্থা সংকটাপন্ন। প্রত্যেকেরই শ্বাসনালি, মুখমণ্ডলসহ শরীরের বেশির ভাগ অংশ পুড়ে গেছে।‘

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

রান্ধুবীবাড়িতে সনাতন ধর্মের ব্যক্তি উচ্ছেদের নোটিশ পেয়ে মৃত্যু

মসজিদে বিস্ফোরণের বিষয়ে তদন্ত চলছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশের সময় : ০৬:০০:২১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

রোকনুজ্জামান রিপন #

নারায়ণগঞ্জের পশ্চিম তল্লা বায়তুস সালাত জামে মসজিদে গ্যাসের লিকেজ থেকে বিস্ফোরণের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এটা কেন ঘটলো নিশ্চয়ই সেটা বের করা হবে। বর্তমানে এ বিষযে তদন্ত চলছে।’

রবিবার (৬ সেপ্টেম্বর) জাতীয় সংসদে শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘নামাজ পড়া অবস্থায় এই ধরণের ঘটনা খুব দুঃখজনক। ওইটুকু জায়গায় ৬টা এসি। আবার শোনা যাচ্ছে ওখানে গ্যাসের লাইনের ওপর মসজিদ নির্মাণ। সাধারণত গ্যাসের লাইনের ওপর নির্মাণ কাজ হয় না। জানি না রাজউক পারমিশন দিয়েছে কিনা। এই ধরণের পারমিশন দেওয়া উচিত না। এটা আশংকাজনক থাকে। সেটাই তদন্ত হবে।’

তিনি বলেছেন, ‘আজকাল মসজিদে সবাই দান করেন, এয়ারকন্ডিশন দেন। এখানে বিদ্যুৎ সরবরাহ কতটুকু নিতে পারবে সেটা দেখা হয়েছিল কিনা, সার্কিট ব্রেকার ছিল কিনা দেখতে হবে। এই বিষয়ে কেবিনেট সেক্রেটারীকে বলেছি, সবাইকে নির্দেশ দিয়েছি কারণ খুঁজে বের করার জন্য। সারাদেশের অপরিকল্পিতভাবে মসজিদ গড়ে তোলা, সেখানে এয়ারকন্ডিশন নিচ্ছেন, সেখানে আদৌ স্থাপনা করা যায় কিনা, নকশা করা হয়েছে কিনা তা দেখা একান্ত প্রয়োজন। নাহলে এই ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।’

অন্যদিকে শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন জানিয়েছেন, ‘মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে পৌঁছেছে ২৪ জনে। চিকিৎসাধীন ১৩ জন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন, তাদের সবার অবস্থা সংকটাপন্ন। প্রত্যেকেরই শ্বাসনালি, মুখমণ্ডলসহ শরীরের বেশির ভাগ অংশ পুড়ে গেছে।‘