সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ১৭ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ট্রেনে করেই যাওয়া যাবে সুন্দরবন

নুরুজ্জামান লিটন #

বিশ্বের সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ বনভূমি সুন্দরবন পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণের প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে ট্রেনে করেই যাওয়া যাবে সুন্দরবনে। এ লক্ষ্যে এরইমধ্যে চিনের কাছে  ১ হাজার ৩২৯ কোটি ৭৯ লাখ টাকা ঋণ সহায়তা চাওয়া হয়েছে।

এ প্রকল্পের মোট প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৬৬২ কোটি ২৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি অর্থায়ন ৩৩২ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। চলতি সময় থেকে ২০২৪ সাল পর্যন্ত মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, ‘কন্সট্রাকশন অব নিউ বিজি ট্র্যাক ফর্ম নাভারন টু সাতক্ষীরা’ নামে প্রকল্পের আওতায় যশোরের নাভারন থেকে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার মুন্সিগঞ্জ পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ করা হবে। নাভারন থেকে মুন্সিগঞ্জ গ্যারেজ পর্যন্ত রেলপথের মোট দৈর্ঘ্য হবে ৯৮ দশমিক ৪২ কিলোমিটার। মুন্সিগঞ্জ হচ্ছে সুন্দরবনেরই একটি পয়েন্ট। মুন্সিগঞ্জের চুনা নদীর ওপারেই গভীর বনাঞ্চল।

রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, যশোরের নাভারন থেকে মুন্সিগঞ্জ পর্যন্ত থাকবে ৮টি স্টেশন। এগুলো হলো – নাভারন, বাগআচড়া, কলারোয়া, সাতক্ষীরা, পারুলিয়া, কালিগঞ্জ, শ্যামনগর ও মুন্সিগঞ্জ। ব্রডগেজের এ রেললাইনের যাত্রীবাহী ট্রেনের গতিবেগ হবে ঘণ্টায় ১২০ কিলোমিটার।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা আরও জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সাতক্ষীরা ও যাশোর জেলা অর্থনৈতিকভাবে আরো শক্তিশালী হবে। নতুন এ রেলপথে যাওয়া যাবে সুন্দরবনের খুব কাছাকাছি মুন্সীগঞ্জ পয়েন্টে। সেখান থেকে একটা নদী পাড়ি দিলেই সুন্দরবনের মূল অংশ। সুন্দরবনের উদ্ভিদ ও প্রাণী বৈচিত্র্যের কথা চিন্তা করেই ট্রেন সর্বোচ্চ ১০ কিলোমিটার দূরত্ব পর্যন্ত যাবে।

এ প্রকল্প প্রসঙ্গে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-প্রধান (পরিকল্পনা) আ.ন.ম. আজিজুল হক বলেন, একেবারে প্রাথমিক অবস্থায় আছে প্রকল্পের কাজ। রেলপথটি নির্মাণে চিনসহ কয়েকটি উন্নয়ন সহযোগী খোঁজা হচ্ছে। সুবিধামতো যার সঙ্গে মিলবে তাকেই এই প্রকল্পের উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে বেছে নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, সমুদ্র উপকূলবর্তী পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বনভূমি সুন্দরবনের আয়তন ৬ হাজার ১৭ বর্গ কিলোমিটার। এই বনে রয়েছে বিশ্ব বিখ্যাত রয়েল বেঙ্গল টাইগার। এ ছাড়া নানান ধরনের পাখি, চিত্রা হরিণ, কুমির ও সাপসহ অসংখ্য প্রজাতির প্রাণীর আবাসস্থল হিসেবে পরিচিত। সুন্দরবনে বিখ্যাত সুন্দরী ও গোলপাতা গাছও পাওয়া যায়।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

বেনাপোল নোম্যান্সল্যান্ডে বসবে দুই বাংলার ভাষা প্রেমীদের মিলন মেলা -শেখ আফিল উদ্দিন, এমপি

ট্রেনে করেই যাওয়া যাবে সুন্দরবন

প্রকাশের সময় : ০৬:১০:৩৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

নুরুজ্জামান লিটন #

বিশ্বের সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ বনভূমি সুন্দরবন পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণের প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে ট্রেনে করেই যাওয়া যাবে সুন্দরবনে। এ লক্ষ্যে এরইমধ্যে চিনের কাছে  ১ হাজার ৩২৯ কোটি ৭৯ লাখ টাকা ঋণ সহায়তা চাওয়া হয়েছে।

এ প্রকল্পের মোট প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৬৬২ কোটি ২৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি অর্থায়ন ৩৩২ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। চলতি সময় থেকে ২০২৪ সাল পর্যন্ত মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, ‘কন্সট্রাকশন অব নিউ বিজি ট্র্যাক ফর্ম নাভারন টু সাতক্ষীরা’ নামে প্রকল্পের আওতায় যশোরের নাভারন থেকে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার মুন্সিগঞ্জ পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণ করা হবে। নাভারন থেকে মুন্সিগঞ্জ গ্যারেজ পর্যন্ত রেলপথের মোট দৈর্ঘ্য হবে ৯৮ দশমিক ৪২ কিলোমিটার। মুন্সিগঞ্জ হচ্ছে সুন্দরবনেরই একটি পয়েন্ট। মুন্সিগঞ্জের চুনা নদীর ওপারেই গভীর বনাঞ্চল।

রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, যশোরের নাভারন থেকে মুন্সিগঞ্জ পর্যন্ত থাকবে ৮টি স্টেশন। এগুলো হলো – নাভারন, বাগআচড়া, কলারোয়া, সাতক্ষীরা, পারুলিয়া, কালিগঞ্জ, শ্যামনগর ও মুন্সিগঞ্জ। ব্রডগেজের এ রেললাইনের যাত্রীবাহী ট্রেনের গতিবেগ হবে ঘণ্টায় ১২০ কিলোমিটার।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা আরও জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সাতক্ষীরা ও যাশোর জেলা অর্থনৈতিকভাবে আরো শক্তিশালী হবে। নতুন এ রেলপথে যাওয়া যাবে সুন্দরবনের খুব কাছাকাছি মুন্সীগঞ্জ পয়েন্টে। সেখান থেকে একটা নদী পাড়ি দিলেই সুন্দরবনের মূল অংশ। সুন্দরবনের উদ্ভিদ ও প্রাণী বৈচিত্র্যের কথা চিন্তা করেই ট্রেন সর্বোচ্চ ১০ কিলোমিটার দূরত্ব পর্যন্ত যাবে।

এ প্রকল্প প্রসঙ্গে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-প্রধান (পরিকল্পনা) আ.ন.ম. আজিজুল হক বলেন, একেবারে প্রাথমিক অবস্থায় আছে প্রকল্পের কাজ। রেলপথটি নির্মাণে চিনসহ কয়েকটি উন্নয়ন সহযোগী খোঁজা হচ্ছে। সুবিধামতো যার সঙ্গে মিলবে তাকেই এই প্রকল্পের উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে বেছে নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, সমুদ্র উপকূলবর্তী পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বনভূমি সুন্দরবনের আয়তন ৬ হাজার ১৭ বর্গ কিলোমিটার। এই বনে রয়েছে বিশ্ব বিখ্যাত রয়েল বেঙ্গল টাইগার। এ ছাড়া নানান ধরনের পাখি, চিত্রা হরিণ, কুমির ও সাপসহ অসংখ্য প্রজাতির প্রাণীর আবাসস্থল হিসেবে পরিচিত। সুন্দরবনে বিখ্যাত সুন্দরী ও গোলপাতা গাছও পাওয়া যায়।