সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ১৭ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বেনাপোল বন্দর দিয়ে ২০০ মেট্রিক টন ইলিশ রফতানি হয়েছে ভারতে

সেলিম রেজা #
দুর্গাপুজা পূজা উপলক্ষে বেনাপোল বন্দর দিয়ে গত ৩ দিনে ২০০ মেট্রিক টন ইলিশ মাছ রফতানি হয়েছে ভারতে। ১৬ সেপ্টেম্বর বুধবার রাতে ৯৩ দশমিক ৬ মেট্রিক টন ইলিশের চালান বেনাপোল বন্দর দিয়ে রফতানি হয়েছে ভারতে। ১৪ সেপ্টেম্বর ৪১ দশমিক ৩ মেট্রিক টন ও ১৫ সেপ্টেম্বর ৬৩ মেট্রিক টন ইলিশ ভারতে রফতানি হয়।
বুধবার ইলিশের চালানটির রফতানিকারক ছিলেন ঢাকার রিপা এন্টারপ্রাইজ ও খুলনার জাহানাবাদ সি ফিশ লিমিটেড। প্রতিকেজি ইলিশের রফতানি দর নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ মার্কিন ডলার হিসেবে বাংলাদেশী ৮০০ টাকা। এই দরে রফতানি করা প্রতিটি ইলিশের সাইজ ছিল এক কেজি থেকে ১ কেজি ২শ’ গ্রাম ওজনের।

মৎস্য অধিদফতরের সহকারী পরিচালক ও বেনাপোলের ফিশারিজ কোয়ারেন্টাইন অফিসার মাহবুবুর রহমান জানান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবার ৯ জন রফতানিকারককে মোট ১ হাজার ৪৭৫ টন ইলিশ ভারতে রফতানির অনুমতি দিয়েছে। প্রতিকেজি ১০ মার্কিন ডলার দরে মোট ১ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার মূল্যের ইলিশ মাছ ভারতে রফতানি করা হবে।
বেনাপোল কাস্টমসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা শামিম হোসেন জানান, প্রতি কেজি ১০ ডলার মূল্যে শুল্কমুক্ত সুবিধায় এ ইলিশ ভারতে রফতানি হচ্ছে।
২০১২ সাল থেকে বাংলাদেশ সরকার ভারতে ইলিশ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছিল উৎপাদন কমে যাওয়ার কারণে। দীর্ঘ ৭ বছর পর দুর্গাপুজা উপলে ১ হাজার ৪৭৫ টন ইলিশ রফতানি হচ্ছে ভারতে।
বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের শর্ত অনুযায়ী আগামী মাসের ১০ অক্টোবরের মধ্যে বাকি ইলিশ রফতানি করা হবে। পদ্মার ইলিশ পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে খালাশের পর চলে যাবে শিয়ালদহ, হাওড়া, পাতিপুকুর বাজারসহ রাজ্যের বিভিন্ন জেলায়।

আপনার মন্তব্য লিখুন

লেখকের সম্পর্কে

Shahriar Hossain

দীর্ঘ ২৪ বছর পর একই মঞ্চে লতিফ সিদ্দিকী ও কাদের সিদ্দিকী

রাহুল-আথিয়া সাত পাকে বাঁধা পড়লেন

বেনাপোল নোম্যান্সল্যান্ডে বসবে দুই বাংলার ভাষা প্রেমীদের মিলন মেলা -শেখ আফিল উদ্দিন, এমপি

বেনাপোল বন্দর দিয়ে ২০০ মেট্রিক টন ইলিশ রফতানি হয়েছে ভারতে

প্রকাশের সময় : ০৯:২২:৩৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

সেলিম রেজা #
দুর্গাপুজা পূজা উপলক্ষে বেনাপোল বন্দর দিয়ে গত ৩ দিনে ২০০ মেট্রিক টন ইলিশ মাছ রফতানি হয়েছে ভারতে। ১৬ সেপ্টেম্বর বুধবার রাতে ৯৩ দশমিক ৬ মেট্রিক টন ইলিশের চালান বেনাপোল বন্দর দিয়ে রফতানি হয়েছে ভারতে। ১৪ সেপ্টেম্বর ৪১ দশমিক ৩ মেট্রিক টন ও ১৫ সেপ্টেম্বর ৬৩ মেট্রিক টন ইলিশ ভারতে রফতানি হয়।
বুধবার ইলিশের চালানটির রফতানিকারক ছিলেন ঢাকার রিপা এন্টারপ্রাইজ ও খুলনার জাহানাবাদ সি ফিশ লিমিটেড। প্রতিকেজি ইলিশের রফতানি দর নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ মার্কিন ডলার হিসেবে বাংলাদেশী ৮০০ টাকা। এই দরে রফতানি করা প্রতিটি ইলিশের সাইজ ছিল এক কেজি থেকে ১ কেজি ২শ’ গ্রাম ওজনের।

মৎস্য অধিদফতরের সহকারী পরিচালক ও বেনাপোলের ফিশারিজ কোয়ারেন্টাইন অফিসার মাহবুবুর রহমান জানান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবার ৯ জন রফতানিকারককে মোট ১ হাজার ৪৭৫ টন ইলিশ ভারতে রফতানির অনুমতি দিয়েছে। প্রতিকেজি ১০ মার্কিন ডলার দরে মোট ১ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার মূল্যের ইলিশ মাছ ভারতে রফতানি করা হবে।
বেনাপোল কাস্টমসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা শামিম হোসেন জানান, প্রতি কেজি ১০ ডলার মূল্যে শুল্কমুক্ত সুবিধায় এ ইলিশ ভারতে রফতানি হচ্ছে।
২০১২ সাল থেকে বাংলাদেশ সরকার ভারতে ইলিশ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছিল উৎপাদন কমে যাওয়ার কারণে। দীর্ঘ ৭ বছর পর দুর্গাপুজা উপলে ১ হাজার ৪৭৫ টন ইলিশ রফতানি হচ্ছে ভারতে।
বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের শর্ত অনুযায়ী আগামী মাসের ১০ অক্টোবরের মধ্যে বাকি ইলিশ রফতানি করা হবে। পদ্মার ইলিশ পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে খালাশের পর চলে যাবে শিয়ালদহ, হাওড়া, পাতিপুকুর বাজারসহ রাজ্যের বিভিন্ন জেলায়।